০৮:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিক্ষকরা কোয়ালিটি লেকচার প্রদান করলে শিক্ষার মানোন্নয়ন হবে- ইবি উপাচার্য 

শিক্ষকরা যদি যথাযথভাবে প্রস্ততি নিয়ে কোয়ালিটি লেকচার প্রদান করেন তাহলে একদিকে যেমন শিক্ষার মানোন্নয়ন হবে, শিক্ষার্থীদের পঠন-পাঠনের মানের ক্ষেত্রে তাঁদের একটা ভূমিকা থাকবে, পাশাপাশি নিজেদেরকে আরও যোগ্য করে গড়ে তোলা যাবে।
বুধবার (০৮ নভেম্বর) ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম-পরিকল্পনা ২০২৩-২৪ এর আওতায় ‘শিক্ষার মান উন্নয়নে শুদ্ধাচার চর্চা’ বিষয়ক এক কর্মশালার প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম একথা বলেন। এসময় সব ক্লাস লেকচার সময়মতো সম্পন্ন করা এবং নির্মোহ মূল্যায়নের মাধ্যমে শুদ্ধাচারী হওয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।
তিনি আরোও বলেন, যার যা আচরণ তা যেন আমরা শুদ্ধভাবে করতে পারি। এজন্য আমাদের ভেতরের আমিকে পরিবর্তন করতে হবে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে এই পরিবর্তন যত দ্রুত ঘটনা যাবে তার ওপর নির্ভর করবে এই প্রোগ্রামের সফলতা। এই আয়োজনগুলো থেকে আমরা নিজেদেরকে শুদ্ধ করতে চাই। এখান থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ রূপায়ণের কারিগর হতে চাই।
উক্ত কর্মশালাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদ, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদ এবং জীববিজ্ঞান অনুষদের সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক এবং প্রভাষকবৃন্দের অংশগ্রহণে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে পুরাতন বিজ্ঞান ভবনের ২০৩ নম্বর কক্ষে শুরু হয়। এসময় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ও এপিএ টিমের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো: মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্ব করেন।
কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো: আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া। রিসোর্স পার্সন ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ শিপন মিয়া। স্বাগত বক্তব্য দেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এইচ. এম. আলী হাসান। সঞ্চালনায় ছিলেন উপ-রেজিস্ট্রার (প্রশাসন) ও ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা চন্দন কুমার দাস।
জনপ্রিয় সংবাদ

দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত

শিক্ষকরা কোয়ালিটি লেকচার প্রদান করলে শিক্ষার মানোন্নয়ন হবে- ইবি উপাচার্য 

আপডেট সময় : ০৫:১১:২০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ নভেম্বর ২০২৩
শিক্ষকরা যদি যথাযথভাবে প্রস্ততি নিয়ে কোয়ালিটি লেকচার প্রদান করেন তাহলে একদিকে যেমন শিক্ষার মানোন্নয়ন হবে, শিক্ষার্থীদের পঠন-পাঠনের মানের ক্ষেত্রে তাঁদের একটা ভূমিকা থাকবে, পাশাপাশি নিজেদেরকে আরও যোগ্য করে গড়ে তোলা যাবে।
বুধবার (০৮ নভেম্বর) ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম-পরিকল্পনা ২০২৩-২৪ এর আওতায় ‘শিক্ষার মান উন্নয়নে শুদ্ধাচার চর্চা’ বিষয়ক এক কর্মশালার প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম একথা বলেন। এসময় সব ক্লাস লেকচার সময়মতো সম্পন্ন করা এবং নির্মোহ মূল্যায়নের মাধ্যমে শুদ্ধাচারী হওয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।
তিনি আরোও বলেন, যার যা আচরণ তা যেন আমরা শুদ্ধভাবে করতে পারি। এজন্য আমাদের ভেতরের আমিকে পরিবর্তন করতে হবে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে এই পরিবর্তন যত দ্রুত ঘটনা যাবে তার ওপর নির্ভর করবে এই প্রোগ্রামের সফলতা। এই আয়োজনগুলো থেকে আমরা নিজেদেরকে শুদ্ধ করতে চাই। এখান থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ রূপায়ণের কারিগর হতে চাই।
উক্ত কর্মশালাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদ, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদ এবং জীববিজ্ঞান অনুষদের সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক এবং প্রভাষকবৃন্দের অংশগ্রহণে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে পুরাতন বিজ্ঞান ভবনের ২০৩ নম্বর কক্ষে শুরু হয়। এসময় প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ও এপিএ টিমের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো: মাহবুবুর রহমানের সভাপতিত্ব করেন।
কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো: আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া। রিসোর্স পার্সন ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ শিপন মিয়া। স্বাগত বক্তব্য দেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এইচ. এম. আলী হাসান। সঞ্চালনায় ছিলেন উপ-রেজিস্ট্রার (প্রশাসন) ও ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা চন্দন কুমার দাস।