০৯:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ভারতে সাজা ভোগের পর দেশে ফিরলো ১২ বাংলাদেশি

দালালের খপ্পরে পড়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে আটকা পড়া ১২ বাংলাদেশি নাগরিক নিজ দেশে ফিরেছেন। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে তারা দেশে ফেরেন।
দেশে ফেরত আসা বাংলাদেশিরা হলেন, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার জবা রানী রায় ও জগদীশ রায়, নেত্রকোনার পুর্বধলার মোসা. বিউটি, চাদপুরের নিশ্চিন্তপুরের রিয়াহ হোসেন, যশোরের অভয়নগরের মোসা. বিনা বেগম ও মো. শেখ সাদী, নওগাঁর আত্রাই উপজেলার শাহিনা বেগম, জামালপুরের মেলান্দহের দুই ভাই মো. শামিম মিয়া ও মো. সুহান মিয়া, জামালপুরের ইসলামপুর থানার মো. ফারুখ হোসেন ও আসমা বেগম এবং ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার তৃষ্ণা অধিকারী তিশা। সাজা শেষে তিশা আগরতলার জওহরলাল নেহড়ু বালিকা নিবাসে এবং বাকিরা নরসিংগড় ডিটেনশন সেন্টারে অবস্থান করছিলেন।
পরিবার ও হাইকমিশন সূত্র জানায়, দালালের খপ্পড়ে পড়ে অবৈধ পথে ১২ জন বাংলাদেশি ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে গিয়ে আটক হন। এরপর আদালতের নির্দেশে তারা সাজা ভোগ করেন। সাজা শেষে তাদের নাগরিকত্ব যাচাই করা হয়। এরপর স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী যোগাযোগ করে তাদের দেশে ফেরার জন্য ভারত সরকারের অনাপত্তি সংগ্রহ করে আগরতলার সহকারী হাইকমিশন।
এসময় ভারতের ত্রিপুরায় নিযুক্ত বাংলাদেশের সহকারী হাইকমিশনার আরিফুল ইসলাম, আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাবেয়া আক্তার, আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো নূরে আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ভারতে সাজা ভোগের পর দেশে ফিরলো ১২ বাংলাদেশি

আপডেট সময় : ০৭:২৩:২৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
দালালের খপ্পরে পড়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে আটকা পড়া ১২ বাংলাদেশি নাগরিক নিজ দেশে ফিরেছেন। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে তারা দেশে ফেরেন।
দেশে ফেরত আসা বাংলাদেশিরা হলেন, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার জবা রানী রায় ও জগদীশ রায়, নেত্রকোনার পুর্বধলার মোসা. বিউটি, চাদপুরের নিশ্চিন্তপুরের রিয়াহ হোসেন, যশোরের অভয়নগরের মোসা. বিনা বেগম ও মো. শেখ সাদী, নওগাঁর আত্রাই উপজেলার শাহিনা বেগম, জামালপুরের মেলান্দহের দুই ভাই মো. শামিম মিয়া ও মো. সুহান মিয়া, জামালপুরের ইসলামপুর থানার মো. ফারুখ হোসেন ও আসমা বেগম এবং ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার তৃষ্ণা অধিকারী তিশা। সাজা শেষে তিশা আগরতলার জওহরলাল নেহড়ু বালিকা নিবাসে এবং বাকিরা নরসিংগড় ডিটেনশন সেন্টারে অবস্থান করছিলেন।
পরিবার ও হাইকমিশন সূত্র জানায়, দালালের খপ্পড়ে পড়ে অবৈধ পথে ১২ জন বাংলাদেশি ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে গিয়ে আটক হন। এরপর আদালতের নির্দেশে তারা সাজা ভোগ করেন। সাজা শেষে তাদের নাগরিকত্ব যাচাই করা হয়। এরপর স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী যোগাযোগ করে তাদের দেশে ফেরার জন্য ভারত সরকারের অনাপত্তি সংগ্রহ করে আগরতলার সহকারী হাইকমিশন।
এসময় ভারতের ত্রিপুরায় নিযুক্ত বাংলাদেশের সহকারী হাইকমিশনার আরিফুল ইসলাম, আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাবেয়া আক্তার, আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো নূরে আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।