০৯:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফেনীর ছাগলনাইয়ার ২৩ যুবককে  ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয়  সীমান্তরক্ষীরা

২৩ বাংলাদেশিকে ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ।এ ঘটনার পর মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক হলেও কোনো সুরাহা হয়নি।
এর আগে সোমবার (০৫ফেব্রুয়ারি)  দিবাগত রাতে ফেনীর বাংলাদেশ-ভারত  সীমান্তের ৯৯ নং পিলার সংলগ্ন পূর্ব ছাগলনাইয়া এলাকা থেকে তাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।
এরা হলেন-জেলার পূর্ব ছাগলনাইয়া গ্রামের সাইমুম হোসেন (১৯), রাইসুল ইসলাম (১৯), সামিন (৪০), হারুন (২৩), লিটন (৩০), মাঈন উদ্দিন (২০), রাধানগর এলাকার মহসিন (২৫), কাজী রিপন (৪০), তাজুল ইসলাম সাকিল (২২), হানিফ (৩৫), আবুল হাসান (৩০), ইমরান (২২), রুবেল (২৮), জাফর ইমাম মজুমদার (৪০), মো. ওবায়দুল হক (৪৪), জামাল উদ্দিন (৪০), আরিফ হোসেন (২৪), করিম (২০), ছাগলনাইয়া এলাকার মটুয়া এলাকার খোরশেদ (৩৮), আজাদ হোসেন (২৫), মাহিম (২৫), হারুন (৩২) ও ইমাম হোসেন (২২)।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে পূর্ব ছাগলনাইয়া এলাকায় এক ব্যাক্তিকে বিএসএফ ধরে নিয়ে গেছে এমন গুঞ্জন শুনে স্থানীয়রা খবর নিতে সেখানে ছুটে যায়। এসময় বিএসএফ সদস্যরা তাদের ধাওয়া শুরু করে।এসময় অনেকেই পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও সেখান থেকে ২৩ জনকে ধরে নিয়ে যায় বিএসএফ।
ফেনীস্থ-৪ বিজিবির অধিনায়ক লেফন্যান্ট কর্নেল
শেখ মোহাম্মদ বদরুদ্দোজা বলেন, এ বিষয়ে মঙ্গলবার দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে চোরাকারবারির অভিযোগে ২৩ বাংলাদেশি নাগরিককে আটক করা হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএসএফ।
 ওইসময় আটককৃতদের একটি তালিকাও তাদের পক্ষ থেকে বিজিবিকে সরবরাহ করা হয়েছে।আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।এরমধ্যে বাংলাদেশি নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। এ বিষয়ে আমরাও প্রয়োজনীয় আইনগত প্রক্রিয়া গ্রহণ করবো।

ফুটপাত থেকে হকার মুক্ত করতে চসিকের ফের অভিযান

ফেনীর ছাগলনাইয়ার ২৩ যুবককে  ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয়  সীমান্তরক্ষীরা

আপডেট সময় : ০৯:৩০:৩৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
২৩ বাংলাদেশিকে ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ।এ ঘটনার পর মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে সীমান্তে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক হলেও কোনো সুরাহা হয়নি।
এর আগে সোমবার (০৫ফেব্রুয়ারি)  দিবাগত রাতে ফেনীর বাংলাদেশ-ভারত  সীমান্তের ৯৯ নং পিলার সংলগ্ন পূর্ব ছাগলনাইয়া এলাকা থেকে তাদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।
এরা হলেন-জেলার পূর্ব ছাগলনাইয়া গ্রামের সাইমুম হোসেন (১৯), রাইসুল ইসলাম (১৯), সামিন (৪০), হারুন (২৩), লিটন (৩০), মাঈন উদ্দিন (২০), রাধানগর এলাকার মহসিন (২৫), কাজী রিপন (৪০), তাজুল ইসলাম সাকিল (২২), হানিফ (৩৫), আবুল হাসান (৩০), ইমরান (২২), রুবেল (২৮), জাফর ইমাম মজুমদার (৪০), মো. ওবায়দুল হক (৪৪), জামাল উদ্দিন (৪০), আরিফ হোসেন (২৪), করিম (২০), ছাগলনাইয়া এলাকার মটুয়া এলাকার খোরশেদ (৩৮), আজাদ হোসেন (২৫), মাহিম (২৫), হারুন (৩২) ও ইমাম হোসেন (২২)।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে পূর্ব ছাগলনাইয়া এলাকায় এক ব্যাক্তিকে বিএসএফ ধরে নিয়ে গেছে এমন গুঞ্জন শুনে স্থানীয়রা খবর নিতে সেখানে ছুটে যায়। এসময় বিএসএফ সদস্যরা তাদের ধাওয়া শুরু করে।এসময় অনেকেই পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও সেখান থেকে ২৩ জনকে ধরে নিয়ে যায় বিএসএফ।
ফেনীস্থ-৪ বিজিবির অধিনায়ক লেফন্যান্ট কর্নেল
শেখ মোহাম্মদ বদরুদ্দোজা বলেন, এ বিষয়ে মঙ্গলবার দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে চোরাকারবারির অভিযোগে ২৩ বাংলাদেশি নাগরিককে আটক করা হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএসএফ।
 ওইসময় আটককৃতদের একটি তালিকাও তাদের পক্ষ থেকে বিজিবিকে সরবরাহ করা হয়েছে।আমরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।এরমধ্যে বাংলাদেশি নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। এ বিষয়ে আমরাও প্রয়োজনীয় আইনগত প্রক্রিয়া গ্রহণ করবো।