০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নাগেশ্বরীতে চরাঞ্চলে চিনার বাম্পার ফলনের আশায় কৃষক

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার নারায়নপুর, নুনখাওয়া, কেদার, বেরুবাড়ী বল্লভেরখাস ও কচাকাটা এলাকার চরাঞ্চলে বেশি চাষাবাদ হচ্ছে চিনার। গত
বারের তুলনায় এবারে বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন কৃষকরা। কৃষকরা আরো জানায় নদীর পানি যখন থাকেনা এই সময়টাতে চিনার চাষাবাদ হয়।
কম খরচে ভাল ফলন হয় বিঘায় ৬ থেকে ৭ মন করে চিনা পাওয়া যায় যা মন প্রতি বেঁচা বিক্রী হয় ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। এ সব দিয়ে বিভিন্ন সু-সাধু খাবার তৈরীসহ পশু পাখির খাদ্য হিসেবেও কাজে লাগে। দেখতে কাউনের মত ছোট ছোট দানা। কৃষকরা বলছেন আর কিছুদিন গেলেই কাঁটা মারি শুরু হবে। অল্প খরচে কম সময়ে ভাল ফলন হওয়ায় কারনে আগামীতে তারা বেশি করে চাষাবাদ করবে বলে জানিয়েছে কৃষকরা। বিশেষ করে পরিত্যাক্তা বালু চরেই এসব চিনা বেশি হচ্ছে চরাঞ্চলে। দিনদিন চিনার চাষাবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে কৃষি অফিস থেকে চিনা চাষীদের পাশে থেকে ভাল ফলনের জন্য পরার্মশ প্রদান করা হচ্ছে বলে জানান নাগেশ্বরী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শাহরিয়ার হোসেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

নাগেশ্বরীতে চরাঞ্চলে চিনার বাম্পার ফলনের আশায় কৃষক

আপডেট সময় : ০৩:২৩:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ ২০২৪

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার নারায়নপুর, নুনখাওয়া, কেদার, বেরুবাড়ী বল্লভেরখাস ও কচাকাটা এলাকার চরাঞ্চলে বেশি চাষাবাদ হচ্ছে চিনার। গত
বারের তুলনায় এবারে বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন কৃষকরা। কৃষকরা আরো জানায় নদীর পানি যখন থাকেনা এই সময়টাতে চিনার চাষাবাদ হয়।
কম খরচে ভাল ফলন হয় বিঘায় ৬ থেকে ৭ মন করে চিনা পাওয়া যায় যা মন প্রতি বেঁচা বিক্রী হয় ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। এ সব দিয়ে বিভিন্ন সু-সাধু খাবার তৈরীসহ পশু পাখির খাদ্য হিসেবেও কাজে লাগে। দেখতে কাউনের মত ছোট ছোট দানা। কৃষকরা বলছেন আর কিছুদিন গেলেই কাঁটা মারি শুরু হবে। অল্প খরচে কম সময়ে ভাল ফলন হওয়ায় কারনে আগামীতে তারা বেশি করে চাষাবাদ করবে বলে জানিয়েছে কৃষকরা। বিশেষ করে পরিত্যাক্তা বালু চরেই এসব চিনা বেশি হচ্ছে চরাঞ্চলে। দিনদিন চিনার চাষাবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে কৃষি অফিস থেকে চিনা চাষীদের পাশে থেকে ভাল ফলনের জন্য পরার্মশ প্রদান করা হচ্ছে বলে জানান নাগেশ্বরী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ শাহরিয়ার হোসেন।