০৭:৩৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে রাজধানীতে তীব্র যানজট

 

সপ্তাহের শুরু ও শেষ কর্মদিবসে রাজধানীতে যানজট যেন স্বাভাবিক নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবারও রাজধানীর সড়কে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে। একদিকে ইফতারের আগে চাকরিজীবীদের ঘরে ফেরার তাড়া, অন্যদিকে ঈদের কেনাকাটা করতে বের হওয়া মানুষের চাপ। সব মিলে অফিস শেষে রাজধানীজুড়ে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট।

 

দীর্ঘ সময় যানজটে আটকে থেকে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে কর্মজীবীদের। সময়মতো গন্তব্যে পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়েছে রাজধানীবাসীর। অফিস শুরু ও শেষের সময় সাধারণত পুরো রাজধানীজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। সপ্তাহের শুরু ও শেষ কর্মদিবসে তা কয়েকগুণ তীব্র রূপ ধারণ করে। সাধারণত বিকালের যানজট শুরু হতো ৫টার পর থেকে। কিন্তু রমজানে সকাল ৯টা থেকে বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত অফিস সময়সূচি নির্ধারণ করায় এখন বিকাল ৩টা থেকেই যানজট সৃষ্টি হয়।
গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক ঘুরে যানজটের এমন চিত্র দেখা যায়।

 

সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীর নিউমার্কেট, নীলক্ষেত, সায়েন্সল্যাব, জিগাতলা, মোহাম্মদপুর, আসাদগেট, আড়ং, ধানমন্ডি ২৭, ধানমন্ডি ৩২, কলাবাগান, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, বাংলামোটর, বনানী, মহাখালী, তেজগাঁও, শান্তিনগর, কাকরাইল, নাইটিঙ্গেল মোড়, গুলিস্তান, ওয়ারি, সায়দাবাদ, যাত্রাবাড়ী, কুড়িল, নতুনবাজার, বাড্ডা, প্রগতি সরণি, রামপুরা, মিন্টুরোড, গুলশান-১, গুলশান-২ এলাকার সড়কগুলোতে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। একেকটি সিগন্যাল পার হতে যানবাহনগুলোকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। এমনকি যানজট সামাল দিতে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদেরও হিমশিম খেতে হয়।

 

বৃষ্টি আর কেনাকাটা করতে আসা মানুষজনের বাড়তি চাপের কারণে কিছুটা যানজট তৈরি হয়েছে। পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ এবং অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা সড়কে আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন বলে ট্রাফিক পুলিশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে রাজধানীতে তীব্র যানজট

আপডেট সময় : ০৪:৪৯:৩২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০২৪

 

সপ্তাহের শুরু ও শেষ কর্মদিবসে রাজধানীতে যানজট যেন স্বাভাবিক নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবারও রাজধানীর সড়কে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে। একদিকে ইফতারের আগে চাকরিজীবীদের ঘরে ফেরার তাড়া, অন্যদিকে ঈদের কেনাকাটা করতে বের হওয়া মানুষের চাপ। সব মিলে অফিস শেষে রাজধানীজুড়ে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট।

 

দীর্ঘ সময় যানজটে আটকে থেকে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে কর্মজীবীদের। সময়মতো গন্তব্যে পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়েছে রাজধানীবাসীর। অফিস শুরু ও শেষের সময় সাধারণত পুরো রাজধানীজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। সপ্তাহের শুরু ও শেষ কর্মদিবসে তা কয়েকগুণ তীব্র রূপ ধারণ করে। সাধারণত বিকালের যানজট শুরু হতো ৫টার পর থেকে। কিন্তু রমজানে সকাল ৯টা থেকে বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত অফিস সময়সূচি নির্ধারণ করায় এখন বিকাল ৩টা থেকেই যানজট সৃষ্টি হয়।
গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক ঘুরে যানজটের এমন চিত্র দেখা যায়।

 

সরেজমিনে দেখা যায়, রাজধানীর নিউমার্কেট, নীলক্ষেত, সায়েন্সল্যাব, জিগাতলা, মোহাম্মদপুর, আসাদগেট, আড়ং, ধানমন্ডি ২৭, ধানমন্ডি ৩২, কলাবাগান, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, বাংলামোটর, বনানী, মহাখালী, তেজগাঁও, শান্তিনগর, কাকরাইল, নাইটিঙ্গেল মোড়, গুলিস্তান, ওয়ারি, সায়দাবাদ, যাত্রাবাড়ী, কুড়িল, নতুনবাজার, বাড্ডা, প্রগতি সরণি, রামপুরা, মিন্টুরোড, গুলশান-১, গুলশান-২ এলাকার সড়কগুলোতে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। একেকটি সিগন্যাল পার হতে যানবাহনগুলোকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। এমনকি যানজট সামাল দিতে ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদেরও হিমশিম খেতে হয়।

 

বৃষ্টি আর কেনাকাটা করতে আসা মানুষজনের বাড়তি চাপের কারণে কিছুটা যানজট তৈরি হয়েছে। পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ এবং অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা সড়কে আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন বলে ট্রাফিক পুলিশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।