০৮:১১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের সহযোগীতায় অজ্ঞাত ও অসুস্থ বৃদ্ধ আশ্রয় পেলেন বাঙ্গালহালিয়া সনাতন ঋষি আশ্রমে

গত বেশ কয়েকদিন ধরে নগরীর চকবাজারস্থ বাদুরতলা মুন্সীপুকুর পাড় এলাকায় রাস্তার ধারে পড়ে থাকা একজন অজ্ঞাত ও অসুস্থ বৃদ্ধের ছবি বিভিন্ন সোশাল মিডিয়া ও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।বিষয়টি গতকাল ২৯ই মার্চ ২০২৪ ইংরেজি রোজ শুক্রবার সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের স্বেচ্ছাসেবকদের নজরে আসলে,তৎক্ষনাৎ চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের স্বেচ্ছাসেবকরা উক্ত বৃদ্ধ লোকটির ছবি সংগ্রহ করে উনার পরিচয় খোঁজ করার চেষ্টা করে।কোন সন্ধ্যান না পেয়ে পরবর্তীতে প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি পার্বত্য চট্টগ্রাম রাঙামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার তিন নং বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়নের যৌথখামার এলাকার সনাতন ঋষি অনাথ আশ্রমের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ সনাতন ঋষি মহারাজের সাথে মুটোফোনে কথা হয়,রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বৃদ্ধ লোকটির সম্বন্ধে সন্ধান দিতে চাইলে,নাম শুনে আমাদের সাথে যোগাযোগ করেন এবং বৃদ্ধ লোকটির পরিচয় আমাদের অবগত করেন।
সনাতন ঋষি মহারাজের তথ্যমতে,”এই বৃদ্ধ লোকটির নাম গৌরপদ চক্রবর্ত্তী।লোকটি বিগত ২বছর ধরেই সনাতন ঋষি মহারাজ কর্তৃক পরিচালিত সনাতন ঋষি আশ্রমের বৃদ্ধাশ্রমে থাকতেন।সনাতন ঋষি গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর যাবতীয় ভরণপোষণের ব্যবস্থা করে আসছিলেন।গত ৩মাস আগে গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর পরিবার উনাকে আশ্রম থেকে উনার বাসায় নিয়ে আসেন।এরপর থেকে গৌরপদ চক্রবর্ত্তী উনার যোগাযোগের বাইরে ছিলেন।”
সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিম প্রধান সবুজ দাশগুপ্ত যখন গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর বর্তমান করুন পরিস্থিতি সম্পর্কে সনাতন ঋষি আশ্রমের মহারাজকে জানান,তখন মহারাজ মানবিক দিক বিবেচনা করে গৌরপদ চক্রবর্ত্তীকে পুনরায় উনার আশ্রমের নিয়ে যেতে বলেন।এবং সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন পরিবারকে আশ্বত করেন,গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর যাবতীয় ভরনপোষণ উনি এবং আশ্রম কর্তৃপক্ষ বহন করবে।
তারই পরিপ্রেক্ষিতে,গত ৩০ই মার্চ রোজ শনিবার ২০২৪ ইংরেজি সকাল ১০ঘটিকায়,সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন,চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিম লিডার সবুজ দাশগুপ্ত শুভ’র নেতৃত্বে একটা স্বেচ্ছাসেবক টিম নগরীর বাদুরতলা হতে রাস্তার ধারে পড়ে থাকা গৌরপদ চক্রবর্ত্তীকে উদ্ধার করেন। এবং উনার প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।এরপর গৌরপদ চক্রবর্ত্তীকে সনাতন ঋষি আশ্রমে নিয়ে আসেন।
সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন,চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের পক্ষ থেকে সনাতন ঋষি এবং সনাতন ঋষি আশ্রম কর্তৃপক্ষের প্রতি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান,এবং গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর যথাযথ সুবিধাসহ থাকার ব্যবস্থা নিশ্চিত করার অনুরোধ করা হয়।
উক্ত এই মানবিক কার্যক্রমে আরো উপস্থিত ছিলেন সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের উপ-টিমের প্রধান প্রভাত মজুমদার।সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবকবৃন্দ,সাংবাদিকবৃন্দ -বিশিষ্ট গীতা পাঠক জগদীশ দেবনাথ পূজন, সুমন কান্তি দে,রনি কুমার লৌধ, তূর্য রুদ্র,জনি দাশ,অর্ণব রয়, অনিক দেব নাথ প্রমুখ।
জনপ্রিয় সংবাদ

সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের সহযোগীতায় অজ্ঞাত ও অসুস্থ বৃদ্ধ আশ্রয় পেলেন বাঙ্গালহালিয়া সনাতন ঋষি আশ্রমে

আপডেট সময় : ০১:৪০:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ মার্চ ২০২৪
গত বেশ কয়েকদিন ধরে নগরীর চকবাজারস্থ বাদুরতলা মুন্সীপুকুর পাড় এলাকায় রাস্তার ধারে পড়ে থাকা একজন অজ্ঞাত ও অসুস্থ বৃদ্ধের ছবি বিভিন্ন সোশাল মিডিয়া ও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।বিষয়টি গতকাল ২৯ই মার্চ ২০২৪ ইংরেজি রোজ শুক্রবার সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের স্বেচ্ছাসেবকদের নজরে আসলে,তৎক্ষনাৎ চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের স্বেচ্ছাসেবকরা উক্ত বৃদ্ধ লোকটির ছবি সংগ্রহ করে উনার পরিচয় খোঁজ করার চেষ্টা করে।কোন সন্ধ্যান না পেয়ে পরবর্তীতে প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি পার্বত্য চট্টগ্রাম রাঙামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার তিন নং বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়নের যৌথখামার এলাকার সনাতন ঋষি অনাথ আশ্রমের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ সনাতন ঋষি মহারাজের সাথে মুটোফোনে কথা হয়,রাস্তার পাশে পড়ে থাকা বৃদ্ধ লোকটির সম্বন্ধে সন্ধান দিতে চাইলে,নাম শুনে আমাদের সাথে যোগাযোগ করেন এবং বৃদ্ধ লোকটির পরিচয় আমাদের অবগত করেন।
সনাতন ঋষি মহারাজের তথ্যমতে,”এই বৃদ্ধ লোকটির নাম গৌরপদ চক্রবর্ত্তী।লোকটি বিগত ২বছর ধরেই সনাতন ঋষি মহারাজ কর্তৃক পরিচালিত সনাতন ঋষি আশ্রমের বৃদ্ধাশ্রমে থাকতেন।সনাতন ঋষি গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর যাবতীয় ভরণপোষণের ব্যবস্থা করে আসছিলেন।গত ৩মাস আগে গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর পরিবার উনাকে আশ্রম থেকে উনার বাসায় নিয়ে আসেন।এরপর থেকে গৌরপদ চক্রবর্ত্তী উনার যোগাযোগের বাইরে ছিলেন।”
সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিম প্রধান সবুজ দাশগুপ্ত যখন গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর বর্তমান করুন পরিস্থিতি সম্পর্কে সনাতন ঋষি আশ্রমের মহারাজকে জানান,তখন মহারাজ মানবিক দিক বিবেচনা করে গৌরপদ চক্রবর্ত্তীকে পুনরায় উনার আশ্রমের নিয়ে যেতে বলেন।এবং সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন পরিবারকে আশ্বত করেন,গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর যাবতীয় ভরনপোষণ উনি এবং আশ্রম কর্তৃপক্ষ বহন করবে।
তারই পরিপ্রেক্ষিতে,গত ৩০ই মার্চ রোজ শনিবার ২০২৪ ইংরেজি সকাল ১০ঘটিকায়,সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন,চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিম লিডার সবুজ দাশগুপ্ত শুভ’র নেতৃত্বে একটা স্বেচ্ছাসেবক টিম নগরীর বাদুরতলা হতে রাস্তার ধারে পড়ে থাকা গৌরপদ চক্রবর্ত্তীকে উদ্ধার করেন। এবং উনার প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।এরপর গৌরপদ চক্রবর্ত্তীকে সনাতন ঋষি আশ্রমে নিয়ে আসেন।
সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশন,চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের পক্ষ থেকে সনাতন ঋষি এবং সনাতন ঋষি আশ্রম কর্তৃপক্ষের প্রতি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান,এবং গৌরপদ চক্রবর্ত্তীর যথাযথ সুবিধাসহ থাকার ব্যবস্থা নিশ্চিত করার অনুরোধ করা হয়।
উক্ত এই মানবিক কার্যক্রমে আরো উপস্থিত ছিলেন সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিমের উপ-টিমের প্রধান প্রভাত মজুমদার।সনাতনী স্বেচ্ছাসেবী ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবকবৃন্দ,সাংবাদিকবৃন্দ -বিশিষ্ট গীতা পাঠক জগদীশ দেবনাথ পূজন, সুমন কান্তি দে,রনি কুমার লৌধ, তূর্য রুদ্র,জনি দাশ,অর্ণব রয়, অনিক দেব নাথ প্রমুখ।