০৯:১০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পুরলো আগুনে.

  • সবুজ বাংলা
  • আপডেট সময় : ০৮:০৯:০৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩
  • 41

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি 

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মুজিব শত বর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে।গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নের আওতাধীন গোয়ালগাঁও গ্রামে সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১১টায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।এতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরটির ব্যাস অনেকটা অংশ আগুন লাগার কারনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।আগুন লাগার বিষয়ে ঘরটিতে বসবাস করা সুমি বেগম দাবি করে পরিকল্পিতভাবে লাগানো হয়েছে।এ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা রফিক মিয়া জানায় গতকাল রাত আনুমানিক ১১টায় সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পে আগুন দেখতে পায়। ঘরটির সামনের অংশের বারান্দার দিকে তারা আগুন দেখতে পেয়েছে।রাস্তার নিকটে ঘরটি হওয়ায় আশপাশে লোকজন ছিল সেজন্য আগুন বেশি বাড়তে পারে নাই। স্থানীয়দের ২০/২৫ মিনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।ঘরের মালিক বিধবা সুমি বেগম জানায়,তার বাবা অসুস্থ,অসুস্থ বাবার সঙ্গে হাসপাতালে থাকেন তিনি।তার দুই সন্তান বাবার বাড়িতে রেখে হাসপাতালে ছিলেন তিনি।

কয়েক দিন আগেও তার বাসার সামনে কারা যেনো আগুন লাগিয়ে ছিল।পরে স্থানীয়রা সেটি নিভিয়ে ফেলেছিল। তবে আজ রাত ১১টার সময় তিনি জানতে পারে তার ঘরের বারান্দায় আগুন দেয়া হয়েছে। বিষয়টি পরিকল্পিত উল্লেখ করে এ ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবি করেন সুমি বেগম।এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন,ঘটনা সত্যি দুঃখ জনক।তবে বিষয়টি আমি আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নিবে।এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মাহফু্জের জানায়,মঙ্গলবার সকাল প্রায় ১০টার আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।আগুনে পুরা ঘরটি রাস্তার পাশে হওয়ায়।এখন কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে আগুন লাগিয়েছে না কি,কোনো উৎস থেকে আগুন লেগেছে বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখব।

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পুরলো আগুনে.

আপডেট সময় : ০৮:০৯:০৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর ২০২৩

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি 

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মুজিব শত বর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে।গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নের আওতাধীন গোয়ালগাঁও গ্রামে সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১১টায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।এতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরটির ব্যাস অনেকটা অংশ আগুন লাগার কারনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।আগুন লাগার বিষয়ে ঘরটিতে বসবাস করা সুমি বেগম দাবি করে পরিকল্পিতভাবে লাগানো হয়েছে।এ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় বাসিন্দা রফিক মিয়া জানায় গতকাল রাত আনুমানিক ১১টায় সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পে আগুন দেখতে পায়। ঘরটির সামনের অংশের বারান্দার দিকে তারা আগুন দেখতে পেয়েছে।রাস্তার নিকটে ঘরটি হওয়ায় আশপাশে লোকজন ছিল সেজন্য আগুন বেশি বাড়তে পারে নাই। স্থানীয়দের ২০/২৫ মিনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।ঘরের মালিক বিধবা সুমি বেগম জানায়,তার বাবা অসুস্থ,অসুস্থ বাবার সঙ্গে হাসপাতালে থাকেন তিনি।তার দুই সন্তান বাবার বাড়িতে রেখে হাসপাতালে ছিলেন তিনি।

কয়েক দিন আগেও তার বাসার সামনে কারা যেনো আগুন লাগিয়ে ছিল।পরে স্থানীয়রা সেটি নিভিয়ে ফেলেছিল। তবে আজ রাত ১১টার সময় তিনি জানতে পারে তার ঘরের বারান্দায় আগুন দেয়া হয়েছে। বিষয়টি পরিকল্পিত উল্লেখ করে এ ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবি করেন সুমি বেগম।এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন,ঘটনা সত্যি দুঃখ জনক।তবে বিষয়টি আমি আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নিবে।এ বিষয়ে গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মাহফু্জের জানায়,মঙ্গলবার সকাল প্রায় ১০টার আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।আগুনে পুরা ঘরটি রাস্তার পাশে হওয়ায়।এখন কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে আগুন লাগিয়েছে না কি,কোনো উৎস থেকে আগুন লেগেছে বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখব।