০৬:২৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেসিস নিয়ে আব্দুল আজিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

বাংলাদেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবা খাতের বাণিজ্য সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এর কার্যনির্বাহী পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী যাচাই.কম লি.-এর চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ। তিনি বেসিস নির্বাচনে অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরিতে পরিচালক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচন উপলক্ষে তার ঘোষিত ইস্তেহারে বেসিস এর ভবিষ্যৎ রূপরেখা অংকন করে দিয়েছেন।

 

 

প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ বলেন, বেসিস অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির‌ সদস্য প্রতিষ্ঠানসমূহ এবং বেসিসের জন্য নিজেকে একজন নিবেদিত কর্মী হিসেবে আগামী দুই বছর‌ নিয়োজিত রাখতে চাই।

 

তিনি বলেন, আমি এবং আমার প্যানেল ‘টিম সাকসেস’ জয়ী হলে বেসিসের জন্য স্থায়ী এবং নিজস্ব অবকাঠামোতে বেসিস কার্যালয় স্থানান্তর করবো।বেসিসের নিজস্ব তহবিল গঠনের ঘোষণা দিয়ে যাচাই ডট কমের চেয়ারম্যান বলেন, আমার লক্ষ্য স্ট্রার্টআপ ফান্ডিং এবং ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য অর্থায়ন বা ঋণের ব্যবস্থা করা। ২০৪১ সাল পর্যন্ত ট্যাক্স এক্সেম্পশন এর সময় বাড়ানোর মতো মুখ্য বিষয় গুরুত্বের সাথে সম্পন্ন করতে চাই।

 

এছাড়া ই-কমার্স এবং মার্কেটপ্লেস ক্রসবর্ডার ও এবং লজিস্টিকস বিজনেস বান্ধব নীতিমালা প্রণয়নে কাজ করতে তিনি বদ্ধপরিকর বলে জানান। আব্দুল আজিজ বলেন, নতুন উদ্যোক্তাদের ওয়ার্ক অর্ডার বা কাজের অভিজ্ঞতা না থাকায় দেশী বিদেশী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ পাওয়া বা অংশগ্রহণ করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই এমন নীতিমালা তৈরি করতে চাই যাতে বড় বড় প্রতিষ্ঠানের সাথে নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য নূন্যতম ১% থেকে ১০% কাজের যৌথ অংশীদার কোটা বরাদ্দ রাখা হয় এবং যৌথ কাজের অংশীদার হিসেবে নতুন উদ্যোক্তাদের সনদ প্রদানের সুযোগ তৈরি করা যায়।

 

তিনি আরও বলেন, এগ্রোটেক, ফিনটেক, ইন্সুটেক, ট্রেইনিং ইনস্টিটিউট এবং এডটেক, ডিজিটাল মার্কেটিং এবং মিডিয়া, ফ্রিল্যান্সারদের পেমেন্ট সমস্যা সমাধান, সার্ভিস প্লাটফর্ম, OTA, মিউজিক,‌ অনলাইন জব মার্কেটপ্লেস, অনলাইন স্টক মার্কেট, নতুন এজেন্সি এবং ট্রেডিং বিজনেস সহায়ক পলিসি তৈরি করার পরিকল্পনা আছে। তাদের যেকোনো ব্যবসায়িক সংকট দূরীকরণে আমাকে পাশে পাবে বলে কথা দিচ্ছি।

 

তিনি বলেন, অফলাইন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসমূহকে অনলাইন বা ডিজিটাল কমার্স এ রুপান্তরের জন্য আন্তরিকভাবে কাজ করতে চাই এবং তাদের সহায়ক পরিবেশ তৈরি করতে ভূমিকা রাখতে চাই।

 

অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির এ পরিচালক পদপ্রার্থী জানান, বেসিস অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য আমার আলাদা কিছু করার ইচ্ছে আছে।
তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে ক্যাটাগরির বিজনেস পরিচালনার পথে সমস্যাসমূহ চিহ্নিত করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ‘হেল্প ডেস্ক’ স্থাপনের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানে সহযোগিতা করতে চাই।

 

অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের ব্যবসার প্রসারে ইকো-সিস্টেম তৈরিতে কাজ করার ঘোষণাও তিনি দেন। তিনি বলেন, আমি এই উদ্যোক্তাদের চাওয়া এবং পাওয়ার কন্ঠ হিসেবে কথা বলতে চাই এবং একজন নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে শ্রদ্ধেয় সদস্যদের এডভোকেসি করতে চাই৷ সরকারী বিভিন্ন নীতীমালায় নতুন , ক্ষুদ্র দেশীয় উদ্যোগগুলোর স্বার্থ রক্ষায় সদা সচেষ্ট থাকবো৷

 

ডিজিটাল বিজনেসের ক্ষেত্রে ব্যবসার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ার ও বিজনেস পরিচালনায় উদ্যোক্তারা নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন হয়। এ বিষয়ে আব্দুল আজিজ বলেন, এ ধরনের সমস্যা সমাধানের জন্য অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির সদস্যবৃন্দের জন্য আলাদা ‘ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টার’ প্রতিষ্ঠা করতে চাই। যেখানে ব্যবসার এন্ট্রি পয়েন্ট কে সহজ করা তথা – ট্রেড লাইসেন্স, ট্যাক্স, ভ্যাট, ট্রেড মার্ক, কপিরাইট, ডিবি আইডি ও বিভিন্ন ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন এর জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টেশন সেবা প্রদান করা হবে।

দেশীয় বিভিন্ন সকল উদ্যোগসমূহকে সাস্টেইনেবল (স্থিতিশীল) প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন এসোসিয়েশনের বর্তমান নেতৃবৃন্দের এবং বিগত সময়ের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনাপূর্বক তাদের অভিজ্ঞতার আলোকে দল মত নির্বিশেষে একটি ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ তৈরিতে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চান বলে তিনি জানান।

বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আব্দুল আজিজ একজন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের রেলওয়ের প্রকৌশল বিভাগের কাজ শুরু করেন। পরে পরিবারে সদস্যদের সহযোগিতা নিয়ে ছোট পরিসরে ব্যবসা শুরু করেন। তিনি বলেন, আমি নানা ঘাত প্রতিঘাত, নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে আজকের এই অবস্থানে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছি।

 

দেশের বিশিষ্ট এ শিক্ষানুরাগী নিজ উদ্যোগে স্কুল, কলেজ, টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট, মেডিকেল ইনস্টিটিউট, ইউনিভার্সিটি-সহ প্রায় অর্ধশত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেছেন।

 

এ সমাজসেবক বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে আমার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে আইসিটি সেক্টরের দক্ষ জনশক্তির ঘাটতি পূরণের জন্য বেসিস ট্রেইনিং ইনস্টিটিউটকে নতুনভাবে সাজিয়ে বেসিসের সদস্য প্রতিষ্ঠানের দক্ষ জনশক্তির ঘাটতি পূরণে ভূমিকা রাখতে চাই।

 

 

তিনি নিজ প্যানেল টিম সাকসেস এর সকল প্রার্থীর জন্য বেসিস সদস্যদের ভোট চেয়েছেন। তিনি বলেন, অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরিতে আপনার প্রতিনিধি হিসেবে আপনার জন্য এবং বেসিসের জন্য কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য আপনার মহামূল্যবান ভোট চাই। অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরিতে আমার ব্যালট নম্বর তিন (০৩)। তিনি সকলের সহযোগিতা কামনাপূর্বক দোয়া ও ভালোবাসা চেয়েছেন।

ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবেলায় কতটুকু প্রস্তুত পবিপ্রবি?

বেসিস নিয়ে আব্দুল আজিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

আপডেট সময় : ০৫:৪১:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মে ২০২৪

বাংলাদেশের সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবা খাতের বাণিজ্য সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এর কার্যনির্বাহী পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী যাচাই.কম লি.-এর চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ। তিনি বেসিস নির্বাচনে অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরিতে পরিচালক প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচন উপলক্ষে তার ঘোষিত ইস্তেহারে বেসিস এর ভবিষ্যৎ রূপরেখা অংকন করে দিয়েছেন।

 

 

প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ বলেন, বেসিস অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির‌ সদস্য প্রতিষ্ঠানসমূহ এবং বেসিসের জন্য নিজেকে একজন নিবেদিত কর্মী হিসেবে আগামী দুই বছর‌ নিয়োজিত রাখতে চাই।

 

তিনি বলেন, আমি এবং আমার প্যানেল ‘টিম সাকসেস’ জয়ী হলে বেসিসের জন্য স্থায়ী এবং নিজস্ব অবকাঠামোতে বেসিস কার্যালয় স্থানান্তর করবো।বেসিসের নিজস্ব তহবিল গঠনের ঘোষণা দিয়ে যাচাই ডট কমের চেয়ারম্যান বলেন, আমার লক্ষ্য স্ট্রার্টআপ ফান্ডিং এবং ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য অর্থায়ন বা ঋণের ব্যবস্থা করা। ২০৪১ সাল পর্যন্ত ট্যাক্স এক্সেম্পশন এর সময় বাড়ানোর মতো মুখ্য বিষয় গুরুত্বের সাথে সম্পন্ন করতে চাই।

 

এছাড়া ই-কমার্স এবং মার্কেটপ্লেস ক্রসবর্ডার ও এবং লজিস্টিকস বিজনেস বান্ধব নীতিমালা প্রণয়নে কাজ করতে তিনি বদ্ধপরিকর বলে জানান। আব্দুল আজিজ বলেন, নতুন উদ্যোক্তাদের ওয়ার্ক অর্ডার বা কাজের অভিজ্ঞতা না থাকায় দেশী বিদেশী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ পাওয়া বা অংশগ্রহণ করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই এমন নীতিমালা তৈরি করতে চাই যাতে বড় বড় প্রতিষ্ঠানের সাথে নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য নূন্যতম ১% থেকে ১০% কাজের যৌথ অংশীদার কোটা বরাদ্দ রাখা হয় এবং যৌথ কাজের অংশীদার হিসেবে নতুন উদ্যোক্তাদের সনদ প্রদানের সুযোগ তৈরি করা যায়।

 

তিনি আরও বলেন, এগ্রোটেক, ফিনটেক, ইন্সুটেক, ট্রেইনিং ইনস্টিটিউট এবং এডটেক, ডিজিটাল মার্কেটিং এবং মিডিয়া, ফ্রিল্যান্সারদের পেমেন্ট সমস্যা সমাধান, সার্ভিস প্লাটফর্ম, OTA, মিউজিক,‌ অনলাইন জব মার্কেটপ্লেস, অনলাইন স্টক মার্কেট, নতুন এজেন্সি এবং ট্রেডিং বিজনেস সহায়ক পলিসি তৈরি করার পরিকল্পনা আছে। তাদের যেকোনো ব্যবসায়িক সংকট দূরীকরণে আমাকে পাশে পাবে বলে কথা দিচ্ছি।

 

তিনি বলেন, অফলাইন বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসমূহকে অনলাইন বা ডিজিটাল কমার্স এ রুপান্তরের জন্য আন্তরিকভাবে কাজ করতে চাই এবং তাদের সহায়ক পরিবেশ তৈরি করতে ভূমিকা রাখতে চাই।

 

অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির এ পরিচালক পদপ্রার্থী জানান, বেসিস অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য আমার আলাদা কিছু করার ইচ্ছে আছে।
তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে ক্যাটাগরির বিজনেস পরিচালনার পথে সমস্যাসমূহ চিহ্নিত করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ‘হেল্প ডেস্ক’ স্থাপনের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানে সহযোগিতা করতে চাই।

 

অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের ব্যবসার প্রসারে ইকো-সিস্টেম তৈরিতে কাজ করার ঘোষণাও তিনি দেন। তিনি বলেন, আমি এই উদ্যোক্তাদের চাওয়া এবং পাওয়ার কন্ঠ হিসেবে কথা বলতে চাই এবং একজন নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে শ্রদ্ধেয় সদস্যদের এডভোকেসি করতে চাই৷ সরকারী বিভিন্ন নীতীমালায় নতুন , ক্ষুদ্র দেশীয় উদ্যোগগুলোর স্বার্থ রক্ষায় সদা সচেষ্ট থাকবো৷

 

ডিজিটাল বিজনেসের ক্ষেত্রে ব্যবসার রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়ার ও বিজনেস পরিচালনায় উদ্যোক্তারা নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন হয়। এ বিষয়ে আব্দুল আজিজ বলেন, এ ধরনের সমস্যা সমাধানের জন্য অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরির সদস্যবৃন্দের জন্য আলাদা ‘ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টার’ প্রতিষ্ঠা করতে চাই। যেখানে ব্যবসার এন্ট্রি পয়েন্ট কে সহজ করা তথা – ট্রেড লাইসেন্স, ট্যাক্স, ভ্যাট, ট্রেড মার্ক, কপিরাইট, ডিবি আইডি ও বিভিন্ন ফাইনান্সিয়াল ইনক্লুশন এর জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টেশন সেবা প্রদান করা হবে।

দেশীয় বিভিন্ন সকল উদ্যোগসমূহকে সাস্টেইনেবল (স্থিতিশীল) প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন এসোসিয়েশনের বর্তমান নেতৃবৃন্দের এবং বিগত সময়ের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনাপূর্বক তাদের অভিজ্ঞতার আলোকে দল মত নির্বিশেষে একটি ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ তৈরিতে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চান বলে তিনি জানান।

বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আব্দুল আজিজ একজন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। কর্মজীবনে তিনি বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের রেলওয়ের প্রকৌশল বিভাগের কাজ শুরু করেন। পরে পরিবারে সদস্যদের সহযোগিতা নিয়ে ছোট পরিসরে ব্যবসা শুরু করেন। তিনি বলেন, আমি নানা ঘাত প্রতিঘাত, নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে আজকের এই অবস্থানে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছি।

 

দেশের বিশিষ্ট এ শিক্ষানুরাগী নিজ উদ্যোগে স্কুল, কলেজ, টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট, মেডিকেল ইনস্টিটিউট, ইউনিভার্সিটি-সহ প্রায় অর্ধশত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেছেন।

 

এ সমাজসেবক বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে আমার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে আইসিটি সেক্টরের দক্ষ জনশক্তির ঘাটতি পূরণের জন্য বেসিস ট্রেইনিং ইনস্টিটিউটকে নতুনভাবে সাজিয়ে বেসিসের সদস্য প্রতিষ্ঠানের দক্ষ জনশক্তির ঘাটতি পূরণে ভূমিকা রাখতে চাই।

 

 

তিনি নিজ প্যানেল টিম সাকসেস এর সকল প্রার্থীর জন্য বেসিস সদস্যদের ভোট চেয়েছেন। তিনি বলেন, অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরিতে আপনার প্রতিনিধি হিসেবে আপনার জন্য এবং বেসিসের জন্য কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য আপনার মহামূল্যবান ভোট চাই। অ্যাফিলিয়েট ক্যাটাগরিতে আমার ব্যালট নম্বর তিন (০৩)। তিনি সকলের সহযোগিতা কামনাপূর্বক দোয়া ও ভালোবাসা চেয়েছেন।