০৫:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাটখিল টিসিবির পন্য নিয়ে অনিয়ম ও বহিরাগতদের দাপটে পরিষদ চলার অভিযোগ।

  • সবুজ বাংলা
  • আপডেট সময় : ১২:৫৬:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • 29

নোয়াখালীর জেলার চাটখিল উপজেলায় ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্য বিক্রি ও বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

৫ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়,ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন কক্ষে টিসিবি পণ্যের ব্যাগ পড়ে আছে। এবং ইউপি সদস্যের সাথে তর্কে করছে বহিরাগত একজন।

জানা যায়, ইউনিয়ন পরিষদের টিসিবির পণ্য বিতরণের করা হয় সেখানে টিসিবির কার্ডধারী আট-নয় জন কাস্টমার পণ্য না পেয়ে স্থানীয় ৮ নং ওর্য়াডের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানকে জানালে তিনি ইউনিয়ন পরিষদের ভিতর গিয়ে জাকির নামের একজনকে বিষয়টি অবগত করার পরপরই তর্কে জড়ায়। পণ্য না পাওয়ার এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের। আবার অনেকেই হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এ ছাড়া যোগসাজসে ও কৌশলে অনেক কার্ডধারী গ্রাহকদের কাছে পণ্য বিক্রি না করে পরবর্তী সময়ে সেই পণ্য চেয়ারম্যানের শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সিল সংবলিত একটি টোকেনও ছড়িয়ে পড়েন। এতে লেখা আছে দেখা যায়
প্রতি গ্রাহকের মাঝে ৪৭০ টাকার বিনিময়ে ৫ কেজি চাল ২ কেজি মুশুরি ডাল ও ২ লিটার ভোজ্য তেল।

টিসিবি পণ্য বিক্রির দায়িত্বপ্রাপ্ত তদারকি (ট্যাগ) অফিসারের নিকট এ অনিয়মের দীর্ঘদিনের গুরুতর অভিযোগের বিষয় জানতে যোগাযোগ করেও পাওয়া যায় নি।

ইউপি চেয়ারম্যান হারুন আর রশিদ বাহার জানান,টিসিবির পণ্য বিতরণের দায়িত্ব আমাদের না। এটা ডিলারের কাজ , আমরা শুধু সহযোগীতা করতে পারি।আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যে বানোয়াট।ইউনিয়ন উপস্থিত থাকা কার্ডধারীদের পণ্য বিতরণের পরে বাড়তি পন্য আইডি কার্ড নিয়ে উপস্থিত ব্যক্তিদের টোকেনের মাধ্যমে বিতরণ করি।আর আগে টিসিবি কার্ডধারী কাস্টমাররা ইউনিয়নের আসতে সমস্যা হয় এ কথা বলে আমাকে দিয়ে ইউপি সদস্য মিজান টিসিবির পণ্যের গাড়ি নিয়ে গিয়ে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের রেখে সঠিকভাবে বিতরণ না করে অনিয়ম করেছে।জাকির পরিষদের কেউ না।সে আমাদের পরিচিত তাই আমাদের কাজে সহযোগিতা করে।

অভিযোগের বিষয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান জানান,ইউনিয়নে টিসিবির পণ্য বিতরণ হচ্ছে তখন আমার ওয়ার্ডের ৮-৯ জন টিসিবি কার্ডধারী পণ্য না পেয়ে আমার কাছে অভিযোগ করেন, বিষয়টি আমি ইউনিয়নের ভিতরে গিয়ে চেয়ারম্যানের দালাল জাকিরকে জানালে সে আমার তর্কে জড়ায় এবং চেয়ারম্যানকে তৎক্ষনাৎ জানালে তিনি বলেন আপনি কি বুঝাতে চান। নিজ প্রতিষ্ঠানের টিসিবির পণ্য রেখে বিতরণ ও অনিয়মের বিষয়টি অশিকার করেন বলেন চেয়ারম্যান নিজে বাঁচতে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা রটাচ্ছে।

এ বিষয় চাটখিল উপজেলা নির্বাহীকর্মকর্তা ইমরানুল হক ভুঁইয়া জানান,আমি এ বিষয় অবগত নই,কেউ অভিযোগ করেনি আমার কাছে,লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে নোয়াখালীতে বিক্ষোভ মিছিল

চাটখিল টিসিবির পন্য নিয়ে অনিয়ম ও বহিরাগতদের দাপটে পরিষদ চলার অভিযোগ।

আপডেট সময় : ১২:৫৬:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

নোয়াখালীর জেলার চাটখিল উপজেলায় ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্য বিক্রি ও বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

৫ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়,ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন কক্ষে টিসিবি পণ্যের ব্যাগ পড়ে আছে। এবং ইউপি সদস্যের সাথে তর্কে করছে বহিরাগত একজন।

জানা যায়, ইউনিয়ন পরিষদের টিসিবির পণ্য বিতরণের করা হয় সেখানে টিসিবির কার্ডধারী আট-নয় জন কাস্টমার পণ্য না পেয়ে স্থানীয় ৮ নং ওর্য়াডের ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানকে জানালে তিনি ইউনিয়ন পরিষদের ভিতর গিয়ে জাকির নামের একজনকে বিষয়টি অবগত করার পরপরই তর্কে জড়ায়। পণ্য না পাওয়ার এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের। আবার অনেকেই হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এ ছাড়া যোগসাজসে ও কৌশলে অনেক কার্ডধারী গ্রাহকদের কাছে পণ্য বিক্রি না করে পরবর্তী সময়ে সেই পণ্য চেয়ারম্যানের শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সিল সংবলিত একটি টোকেনও ছড়িয়ে পড়েন। এতে লেখা আছে দেখা যায়
প্রতি গ্রাহকের মাঝে ৪৭০ টাকার বিনিময়ে ৫ কেজি চাল ২ কেজি মুশুরি ডাল ও ২ লিটার ভোজ্য তেল।

টিসিবি পণ্য বিক্রির দায়িত্বপ্রাপ্ত তদারকি (ট্যাগ) অফিসারের নিকট এ অনিয়মের দীর্ঘদিনের গুরুতর অভিযোগের বিষয় জানতে যোগাযোগ করেও পাওয়া যায় নি।

ইউপি চেয়ারম্যান হারুন আর রশিদ বাহার জানান,টিসিবির পণ্য বিতরণের দায়িত্ব আমাদের না। এটা ডিলারের কাজ , আমরা শুধু সহযোগীতা করতে পারি।আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যে বানোয়াট।ইউনিয়ন উপস্থিত থাকা কার্ডধারীদের পণ্য বিতরণের পরে বাড়তি পন্য আইডি কার্ড নিয়ে উপস্থিত ব্যক্তিদের টোকেনের মাধ্যমে বিতরণ করি।আর আগে টিসিবি কার্ডধারী কাস্টমাররা ইউনিয়নের আসতে সমস্যা হয় এ কথা বলে আমাকে দিয়ে ইউপি সদস্য মিজান টিসিবির পণ্যের গাড়ি নিয়ে গিয়ে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের রেখে সঠিকভাবে বিতরণ না করে অনিয়ম করেছে।জাকির পরিষদের কেউ না।সে আমাদের পরিচিত তাই আমাদের কাজে সহযোগিতা করে।

অভিযোগের বিষয় ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান জানান,ইউনিয়নে টিসিবির পণ্য বিতরণ হচ্ছে তখন আমার ওয়ার্ডের ৮-৯ জন টিসিবি কার্ডধারী পণ্য না পেয়ে আমার কাছে অভিযোগ করেন, বিষয়টি আমি ইউনিয়নের ভিতরে গিয়ে চেয়ারম্যানের দালাল জাকিরকে জানালে সে আমার তর্কে জড়ায় এবং চেয়ারম্যানকে তৎক্ষনাৎ জানালে তিনি বলেন আপনি কি বুঝাতে চান। নিজ প্রতিষ্ঠানের টিসিবির পণ্য রেখে বিতরণ ও অনিয়মের বিষয়টি অশিকার করেন বলেন চেয়ারম্যান নিজে বাঁচতে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা রটাচ্ছে।

এ বিষয় চাটখিল উপজেলা নির্বাহীকর্মকর্তা ইমরানুল হক ভুঁইয়া জানান,আমি এ বিষয় অবগত নই,কেউ অভিযোগ করেনি আমার কাছে,লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।