০৮:১৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মিয়ানমারে সংঘাত টেকনাফ সীমান্তে গভীর রাতে গোলাগুলির শব্দ

 

টেকনাফের হ্নীলা সীমান্তে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সশস্ত্রবাহিনী ও বিদ্রোহী আরাকান আর্মির (এএ) সংঘাতের কারণে গত সোমবার রাত ১২টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত আবার গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে। তবে রাতের থেকে গতকাল দুপুর পর্যন্ত কোনো গুলির শব্দ ভেসে আসেনি।

সীমান্তের বাসিন্দা ওয়াব্রাং এলাকার কামাল হোসাইন জানান, রাত ১২টার থেকে ওপার থেকে গুলির বিকট শব্দ ভেসে আসে। গোলার বিকট শব্দে বাড়ির শিশুদের ঘুম ভেঙ্গে যায়।

ফুলের ডেইল ও স্লুইস পাড়ার বাসিন্দা মুহাম্মদ আমিন জানান, রোববার রাত সাড়ে ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত প্রায় ২০টি বিকট শব্দ শোনা গেছে। সবগুলো মর্টারশেল বিস্ফোরণের শব্দ হতে পারে। এরপর গত সোমবার রাত পর্যন্ত কোনো শব্দ শোনা যায়নি। কিন্তু গভীর রাত থেকে সাহরির আগ পর্যন্ত আবারও থেমে থেমে গুলির শব্দ ভেসে আসে। ফলে একটু আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

হ্নীলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী জানান, ওপারে সংঘাতের কারণে গত রাত ১২টার পর থেকে ইউনিয়নের ওয়াব্রাং, ফুলের ডেইল, স্লুইসগেইটসহ আশপাশের সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা গোলাগুলি শব্দ শুনতে পেয়েছেন।

এতে আতঙ্কের কিছু নেই জানিয়ে এই জনপ্রতিনিধি জানান, লোকজনকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ওপারের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। বিশেষ করে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নাফ নদী ও সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

মিয়ানমারে সংঘাত টেকনাফ সীমান্তে গভীর রাতে গোলাগুলির শব্দ

আপডেট সময় : ০৭:২২:০১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২০ মার্চ ২০২৪

 

টেকনাফের হ্নীলা সীমান্তে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সশস্ত্রবাহিনী ও বিদ্রোহী আরাকান আর্মির (এএ) সংঘাতের কারণে গত সোমবার রাত ১২টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত আবার গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে। তবে রাতের থেকে গতকাল দুপুর পর্যন্ত কোনো গুলির শব্দ ভেসে আসেনি।

সীমান্তের বাসিন্দা ওয়াব্রাং এলাকার কামাল হোসাইন জানান, রাত ১২টার থেকে ওপার থেকে গুলির বিকট শব্দ ভেসে আসে। গোলার বিকট শব্দে বাড়ির শিশুদের ঘুম ভেঙ্গে যায়।

ফুলের ডেইল ও স্লুইস পাড়ার বাসিন্দা মুহাম্মদ আমিন জানান, রোববার রাত সাড়ে ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত প্রায় ২০টি বিকট শব্দ শোনা গেছে। সবগুলো মর্টারশেল বিস্ফোরণের শব্দ হতে পারে। এরপর গত সোমবার রাত পর্যন্ত কোনো শব্দ শোনা যায়নি। কিন্তু গভীর রাত থেকে সাহরির আগ পর্যন্ত আবারও থেমে থেমে গুলির শব্দ ভেসে আসে। ফলে একটু আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

হ্নীলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী জানান, ওপারে সংঘাতের কারণে গত রাত ১২টার পর থেকে ইউনিয়নের ওয়াব্রাং, ফুলের ডেইল, স্লুইসগেইটসহ আশপাশের সীমান্ত এলাকার বাসিন্দারা গোলাগুলি শব্দ শুনতে পেয়েছেন।

এতে আতঙ্কের কিছু নেই জানিয়ে এই জনপ্রতিনিধি জানান, লোকজনকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। টেকনাফ-২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ওপারের পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। বিশেষ করে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে নাফ নদী ও সীমান্তে বিজিবির টহল বাড়ানো হয়েছে।