০৭:০৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামের বাশখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত শিশু দুই দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছে

 

 

চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী প্রি ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের কেজি শ্রেণীর ছাত্র মোহাম্মদ মাইমুন (৬) নামে এক স্কুল শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। নিহত মাইমুন বাঁশখালী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ জলদী এলাকার দুবাই প্রবাসী আব্দুস সবুরের পুত্র। দুই ভাই দুই বোনের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ মাইমুন বাঁশখালী প্রি ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের কেজি শ্রেণীর ছাত্র।

 

পারিবারিক ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ২২ মার্চ (শুক্রবার) বিকাল চারটার দিকে বাড়ীর সামনে বাঁশখালী প্রধান সড়কে দুর্ঘটনায় কবলিত হয় মাইমুন। রাস্তা পারাপারকালে দ্রুতগতির এক মোটরসাইকেলের সাথে ধাক্কা লেগে মাইমুন রাস্তার পাশের পিলারে ধাক্কা খেয়ে মাথায় মারাত্মকভাবে আঘাত পেয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়েছে। এই সময় মোটরসাইকেল আরোহী পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করে। নগরীর একটি বেসরকারী ক্লিনিকের আইসিইউতে দুইদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে আজ রবিবার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে শিশুটি। ছেলের দুর্ঘটনার খবর পেয়ে দুবাই থেকে ছুটে এসেছেন বাবা আব্দুস সবুর। শিশু মাইমুনের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

চট্টগ্রামের বাশখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত শিশু দুই দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছে

আপডেট সময় : ০৭:৪৫:২৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০২৪

 

 

চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী প্রি ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের কেজি শ্রেণীর ছাত্র মোহাম্মদ মাইমুন (৬) নামে এক স্কুল শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। নিহত মাইমুন বাঁশখালী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ জলদী এলাকার দুবাই প্রবাসী আব্দুস সবুরের পুত্র। দুই ভাই দুই বোনের মধ্যে সর্বকনিষ্ঠ মাইমুন বাঁশখালী প্রি ক্যাডেট স্কুল এন্ড কলেজের কেজি শ্রেণীর ছাত্র।

 

পারিবারিক ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ২২ মার্চ (শুক্রবার) বিকাল চারটার দিকে বাড়ীর সামনে বাঁশখালী প্রধান সড়কে দুর্ঘটনায় কবলিত হয় মাইমুন। রাস্তা পারাপারকালে দ্রুতগতির এক মোটরসাইকেলের সাথে ধাক্কা লেগে মাইমুন রাস্তার পাশের পিলারে ধাক্কা খেয়ে মাথায় মারাত্মকভাবে আঘাত পেয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়েছে। এই সময় মোটরসাইকেল আরোহী পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করে। নগরীর একটি বেসরকারী ক্লিনিকের আইসিইউতে দুইদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে আজ রবিবার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে শিশুটি। ছেলের দুর্ঘটনার খবর পেয়ে দুবাই থেকে ছুটে এসেছেন বাবা আব্দুস সবুর। শিশু মাইমুনের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।