০৮:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হজযাত্রীমুখর হচ্ছে আশকোনা ক্যাম্প

➤আজ হজ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
➤সৌদি যাওয়ার হজ ফ্লাইট শুরু কাল
➤হজ ভিসা আবেদনের সময় ১১ মে পর্যন্ত বাড়ল

চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধন হচ্ছে আজ। বেলা ১১টায় রাজধানীর আশকোনায় হজক্যাম্পে আনুষ্ঠানিকভাবে হজ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ এক বছর পর ফের হজযাত্রীমুখর হবে রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্প।

 

গতকাল মঙ্গলবার হজ অফিসের পরিচালক মুহম্মদ কামরুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, আশকোনা হজ ক্যাম্পে চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ধর্মমন্ত্রী, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ অন্যান্যরা থাকবেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী হজ কার্যক্রম শুরুর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবেন। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী হজযাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

 

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৬ জুন পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। ২০২৪ সালের হজে বাংলাদেশ থেকে ৮৫ হাজার ২৫৭ জন হজযাত্রী হজ পালন করবেন। আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর কাল বৃহস্পতিবার থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হবে।

 

এ বিষয়ে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, হজ ক্যাম্পের সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ ও হজ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কার্যক্রম চলছে। মূলত, ফ্লাইট শিডিউল অনুযায়ী আনুষঙ্গিক বিভিন্ন কাজ সম্পন্ন করতে হজযাত্রীরা আগে থেকেই আশকোনা ক্যাম্পে অবস্থান গ্রহণ করেন। সেখানে তাদের থাকা, খাওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হয়। এছাড়া সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্সের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম ছাড়াও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ অফিস, বিভিন্ন ব্যাংক, হাব ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বুথ বসানো হয় হজ ক্যাম্পে। হজযাত্রীদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকেন আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা। সেখান থেকে এয়ারপোর্টে যাতায়াতের জন্য বিশেষ যানবাহনেরও ব্যবস্থা করা হয়। হজযাত্রী ছাড়াও তাদের স্বজনদের ভিড় হয় ক্যাম্প এলাকায়। দীর্ঘ এক মাস ধরে ফ্লাইট শেষ হওয়া পর্যন্ত জমজমাট থাকবে হজক্যাম্প এলাকা।

 

ভিসার আবেদনের সময় বাড়ল : ফের বাড়ানো হলো হজের ভিসার আবেদনের শেষ সময়। প্রথম দফা ২৯ এপ্রিল ভিসা আবেদনের শেষ সময় থাকলেও সেটি বাড়িয়ে ৭ মে পর্যন্ত বাড়ায় সৌদি সরকার। এর মধ্যে সব ভিসা আবেদন শেষ না হওয়ায় নতুন করে আগামী ১১ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে সময়। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ সময় বাড়ানো হয়েছে। ফলে চলতি বছর হজে যেতে চূড়ান্ত নিবন্ধনকারী হজযাত্রীরা আগামী ১১ মে পর্যন্ত হজ ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

 

হজ এজেন্সি অ্যাসোসিয়েশনের বাংলাদেশের (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসেন তসলিম বলেন, ধর্মমন্ত্রীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় বাংলাদেশি হাজিদের জন্য হজের ভিসা আবেদনের সময় বাড়িয়েছে।

 

এদিকে নানা জটিলতায় গত ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত ৮০ শতাংশ হজযাত্রীই ভিসার জন্য আবেদন করেননি। এ জন্য হজের ভিসা আবেদনের সময় আরও বাড়ানোর আবেদন করে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

 

এর আগে ধর্মসচিব মু. আবদুল হামিদ জমাদ্দার বলেন, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাওয়া হজযাত্রীদের বেশিরভাগ এখনো ভিসার আবেদন করতে পারেননি। বাড়ি ভাড়া করতে না পারা অন্যতম কারণ। অল্প কয়েকদিনে এতসংখ্যক হজযাত্রীর ভিসার আবেদন করাও সম্ভব নয়। পুরো বিষয়ে সংকটের কথা উল্লেখ করে সৌদি সরকার ও দূতাবাসকে হজের ভিসার আবেদনের সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করা হয়েছিল।

 

চলতি বছর ৮৩ হাজার হজযাত্রীকে বহন করার জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইন্স (সৌদিয়া) ও সৌদির বেসরকারি এয়ারলাইন্স ফ্লাইনাস মোট ২২৮ হজ ফ্লাইট পরিচালনা করবে। সে অনুযায়ী শিডিউল ঘোষণা করেছে এয়ারলাইন্সগুলো। চুক্তি অনুযায়ী, মোট হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং বাকি অর্ধেক বহন করে সৌদিয়া ও ফ্লাইনাস এয়ার।

 

চুক্তি অনুযায়ী, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স মোট ১১৮টি ফ্লাইটে ৪৮ হাজার ৮৩৫ জন হজযাত্রী বহন করবে। সৌদি এয়ারলাইন্স এবং ফ্লাইনাস এয়ার বাকি হজযাত্রী বহন করবে।

 

হজযাত্রীদের সঠিক সময়ে ভিসা হবে : সব হজযাত্রীর সঠিক সময়ে ভিসা হবে এবং তারা যথাসময়ে সৌদি আরবে যাবেন বলে জানিয়েছেন ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

 

গতকাল সচিবালয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। ধর্মমন্ত্রী বলেন, ভিসা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। এটা যে যেভাবে বলুক, আমাদের ফ্লাইট যখন যেটা চালু হচ্ছে, আমাদের হজযাত্রীরা টিকিট নিচ্ছেন, ভিসা নিচ্ছেন, কোনো সমস্যা নেই। আপনারা নিশ্চিত থাকুন, এটা কোনো সমস্যা হবে না। আমরা নির্দ্বিধায় এটা চালিয়ে নিতে পারব, সে সুযোগ আমাদের আছে। তিনি বলেন, সমস্যার চিন্তা তো আপনাদের চাইতে আমাদের বেশি। আমরা সমস্যা অনুভব করছি না। আমরা সঠিক সময় আমাদের সব কাজই করতে পারব ইনশাআল্লাহ। এতে কোনো সন্দেহ নেই।

 

মন্ত্রী বলেন, হজযাত্রী নেওয়ার দায়িত্ব সৌদি আরব সরকারের। ভিসা দেওয়ার দায়িত্বও তাদের। তারা যদি হজযাত্রী না নিতে পারে ব্যর্থতা তাদের। তবে আমি এটুকু বলতে পারি, আমাদের পক্ষ থেকে এবং সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে, সব হজযাত্রী সঠিক সময়ে যাবে, সঠিক সময়ে ভিসা হবে ইনশাআল্লাহ।

 

হজ ভিসায় যাওয়া যাবে শুধু জেদ্দা, মদিনা ও মক্কায় : হজ ভিসা-সংক্রান্ত নতুন বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে সৌদি আরব। নতুন বিধিতে বলা হয়েছে, হজ ভিসায় শুধু জেদ্দা, মদিনা ও মক্কায় যাওয়া যাবে। এ ছাড়াও এই ভিসা শুধু হজ মৌসুমের জন্য বৈধ এবং হজযাত্রীরা শুধু পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে পারবেন।

অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সহযোগীতার আহ্বান এডিসি তৌহিদুল ইসলামের

হজযাত্রীমুখর হচ্ছে আশকোনা ক্যাম্প

আপডেট সময় : ০৭:৩৫:৫৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ মে ২০২৪

➤আজ হজ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
➤সৌদি যাওয়ার হজ ফ্লাইট শুরু কাল
➤হজ ভিসা আবেদনের সময় ১১ মে পর্যন্ত বাড়ল

চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধন হচ্ছে আজ। বেলা ১১টায় রাজধানীর আশকোনায় হজক্যাম্পে আনুষ্ঠানিকভাবে হজ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ এক বছর পর ফের হজযাত্রীমুখর হবে রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্প।

 

গতকাল মঙ্গলবার হজ অফিসের পরিচালক মুহম্মদ কামরুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, আশকোনা হজ ক্যাম্পে চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ধর্মমন্ত্রী, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ অন্যান্যরা থাকবেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী হজ কার্যক্রম শুরুর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবেন। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী হজযাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

 

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৬ জুন পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। ২০২৪ সালের হজে বাংলাদেশ থেকে ৮৫ হাজার ২৫৭ জন হজযাত্রী হজ পালন করবেন। আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর কাল বৃহস্পতিবার থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হবে।

 

এ বিষয়ে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, হজ ক্যাম্পের সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ ও হজ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কার্যক্রম চলছে। মূলত, ফ্লাইট শিডিউল অনুযায়ী আনুষঙ্গিক বিভিন্ন কাজ সম্পন্ন করতে হজযাত্রীরা আগে থেকেই আশকোনা ক্যাম্পে অবস্থান গ্রহণ করেন। সেখানে তাদের থাকা, খাওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হয়। এছাড়া সংশ্লিষ্ট এয়ারলাইন্সের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম ছাড়াও ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ অফিস, বিভিন্ন ব্যাংক, হাব ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বুথ বসানো হয় হজ ক্যাম্পে। হজযাত্রীদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকেন আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা। সেখান থেকে এয়ারপোর্টে যাতায়াতের জন্য বিশেষ যানবাহনেরও ব্যবস্থা করা হয়। হজযাত্রী ছাড়াও তাদের স্বজনদের ভিড় হয় ক্যাম্প এলাকায়। দীর্ঘ এক মাস ধরে ফ্লাইট শেষ হওয়া পর্যন্ত জমজমাট থাকবে হজক্যাম্প এলাকা।

 

ভিসার আবেদনের সময় বাড়ল : ফের বাড়ানো হলো হজের ভিসার আবেদনের শেষ সময়। প্রথম দফা ২৯ এপ্রিল ভিসা আবেদনের শেষ সময় থাকলেও সেটি বাড়িয়ে ৭ মে পর্যন্ত বাড়ায় সৌদি সরকার। এর মধ্যে সব ভিসা আবেদন শেষ না হওয়ায় নতুন করে আগামী ১১ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে সময়। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ সময় বাড়ানো হয়েছে। ফলে চলতি বছর হজে যেতে চূড়ান্ত নিবন্ধনকারী হজযাত্রীরা আগামী ১১ মে পর্যন্ত হজ ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

 

হজ এজেন্সি অ্যাসোসিয়েশনের বাংলাদেশের (হাব) সভাপতি এম শাহাদাত হোসেন তসলিম বলেন, ধর্মমন্ত্রীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয় বাংলাদেশি হাজিদের জন্য হজের ভিসা আবেদনের সময় বাড়িয়েছে।

 

এদিকে নানা জটিলতায় গত ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত ৮০ শতাংশ হজযাত্রীই ভিসার জন্য আবেদন করেননি। এ জন্য হজের ভিসা আবেদনের সময় আরও বাড়ানোর আবেদন করে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

 

এর আগে ধর্মসচিব মু. আবদুল হামিদ জমাদ্দার বলেন, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় যাওয়া হজযাত্রীদের বেশিরভাগ এখনো ভিসার আবেদন করতে পারেননি। বাড়ি ভাড়া করতে না পারা অন্যতম কারণ। অল্প কয়েকদিনে এতসংখ্যক হজযাত্রীর ভিসার আবেদন করাও সম্ভব নয়। পুরো বিষয়ে সংকটের কথা উল্লেখ করে সৌদি সরকার ও দূতাবাসকে হজের ভিসার আবেদনের সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করা হয়েছিল।

 

চলতি বছর ৮৩ হাজার হজযাত্রীকে বহন করার জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইন্স (সৌদিয়া) ও সৌদির বেসরকারি এয়ারলাইন্স ফ্লাইনাস মোট ২২৮ হজ ফ্লাইট পরিচালনা করবে। সে অনুযায়ী শিডিউল ঘোষণা করেছে এয়ারলাইন্সগুলো। চুক্তি অনুযায়ী, মোট হজযাত্রীর অর্ধেক বহন করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং বাকি অর্ধেক বহন করে সৌদিয়া ও ফ্লাইনাস এয়ার।

 

চুক্তি অনুযায়ী, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স মোট ১১৮টি ফ্লাইটে ৪৮ হাজার ৮৩৫ জন হজযাত্রী বহন করবে। সৌদি এয়ারলাইন্স এবং ফ্লাইনাস এয়ার বাকি হজযাত্রী বহন করবে।

 

হজযাত্রীদের সঠিক সময়ে ভিসা হবে : সব হজযাত্রীর সঠিক সময়ে ভিসা হবে এবং তারা যথাসময়ে সৌদি আরবে যাবেন বলে জানিয়েছেন ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

 

গতকাল সচিবালয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। ধর্মমন্ত্রী বলেন, ভিসা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। এটা যে যেভাবে বলুক, আমাদের ফ্লাইট যখন যেটা চালু হচ্ছে, আমাদের হজযাত্রীরা টিকিট নিচ্ছেন, ভিসা নিচ্ছেন, কোনো সমস্যা নেই। আপনারা নিশ্চিত থাকুন, এটা কোনো সমস্যা হবে না। আমরা নির্দ্বিধায় এটা চালিয়ে নিতে পারব, সে সুযোগ আমাদের আছে। তিনি বলেন, সমস্যার চিন্তা তো আপনাদের চাইতে আমাদের বেশি। আমরা সমস্যা অনুভব করছি না। আমরা সঠিক সময় আমাদের সব কাজই করতে পারব ইনশাআল্লাহ। এতে কোনো সন্দেহ নেই।

 

মন্ত্রী বলেন, হজযাত্রী নেওয়ার দায়িত্ব সৌদি আরব সরকারের। ভিসা দেওয়ার দায়িত্বও তাদের। তারা যদি হজযাত্রী না নিতে পারে ব্যর্থতা তাদের। তবে আমি এটুকু বলতে পারি, আমাদের পক্ষ থেকে এবং সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে, সব হজযাত্রী সঠিক সময়ে যাবে, সঠিক সময়ে ভিসা হবে ইনশাআল্লাহ।

 

হজ ভিসায় যাওয়া যাবে শুধু জেদ্দা, মদিনা ও মক্কায় : হজ ভিসা-সংক্রান্ত নতুন বিধিনিষেধ ঘোষণা করেছে সৌদি আরব। নতুন বিধিতে বলা হয়েছে, হজ ভিসায় শুধু জেদ্দা, মদিনা ও মক্কায় যাওয়া যাবে। এ ছাড়াও এই ভিসা শুধু হজ মৌসুমের জন্য বৈধ এবং হজযাত্রীরা শুধু পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা পালন করতে পারবেন।