০৭:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খুলনায় দুদক আইনজীবী নওরোজ হত্যাকান্ড : চতুর্থ স্ত্রী চুমকি রিমান্ডে 

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) খুলনার আইনজীবী লুৎফুল কবির নওরোজ হত্যা মামলায় তার চতুর্থ স্ত্রী সুলতানা পারভীন চুমকিকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পিবিআই।মঙ্গলবার (০৩ অক্টোবর) খুলনার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করা হলে বিচারক সুনন্দ বাগচী শুনানি শেষে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

পিবিআইয়ের উপ-পরিদর্শক পলাশ অধিকারী ও দুদকের আইনজীবী খন্দকার মজিবর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মামলার বাদী নিহত আইনজীবীর দ্বিতীয় স্ত্রী জেসমিন আক্তার।

পুলিশ জানায়, ১৬ জুলাই বটিয়াঘাটার কাজিবাছা নদী সংযুক্ত হ্যাচারির সংযোগ খাল থেকে আইনজীবী নওরোজের মরদেহ উদ্ধার হয়। সে সময় তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বিআইয়ের উপ-পরিদর্শক পলাশ অধিকারী জানান, মামলাটি নৌ-পুলিশ প্রাথমিকভাবে তদন্ত করে। তারাই চুমকির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নওরোজের লেখা ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’ চিরকুট একজন আইনজীবীর কক্ষ থেকে উদ্ধার করেন। বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৮ সেপ্টেম্বর পিবিআইকে তদন্তভার দেন আদালত। মরদেহ উদ্ধারের ১৪ দিন আগে চুমকিকে বিয়ে করেন নওরোজ। তদন্তে কয়েকটি বিষয় সামনে এসেছে। অভিযুক্তকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অনেক বিষয় পরিষ্কার হয়ে যাবে বলে আশা করছেন তিনি।

মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

খুলনায় দুদক আইনজীবী নওরোজ হত্যাকান্ড : চতুর্থ স্ত্রী চুমকি রিমান্ডে 

আপডেট সময় : ০৯:৫১:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর ২০২৩

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) খুলনার আইনজীবী লুৎফুল কবির নওরোজ হত্যা মামলায় তার চতুর্থ স্ত্রী সুলতানা পারভীন চুমকিকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পিবিআই।মঙ্গলবার (০৩ অক্টোবর) খুলনার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করা হলে বিচারক সুনন্দ বাগচী শুনানি শেষে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

পিবিআইয়ের উপ-পরিদর্শক পলাশ অধিকারী ও দুদকের আইনজীবী খন্দকার মজিবর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মামলার বাদী নিহত আইনজীবীর দ্বিতীয় স্ত্রী জেসমিন আক্তার।

পুলিশ জানায়, ১৬ জুলাই বটিয়াঘাটার কাজিবাছা নদী সংযুক্ত হ্যাচারির সংযোগ খাল থেকে আইনজীবী নওরোজের মরদেহ উদ্ধার হয়। সে সময় তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বিআইয়ের উপ-পরিদর্শক পলাশ অধিকারী জানান, মামলাটি নৌ-পুলিশ প্রাথমিকভাবে তদন্ত করে। তারাই চুমকির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী নওরোজের লেখা ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়’ চিরকুট একজন আইনজীবীর কক্ষ থেকে উদ্ধার করেন। বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৮ সেপ্টেম্বর পিবিআইকে তদন্তভার দেন আদালত। মরদেহ উদ্ধারের ১৪ দিন আগে চুমকিকে বিয়ে করেন নওরোজ। তদন্তে কয়েকটি বিষয় সামনে এসেছে। অভিযুক্তকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অনেক বিষয় পরিষ্কার হয়ে যাবে বলে আশা করছেন তিনি।