১১:৪০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রেমিট্যান্সের পর রপ্তানি আয়েও রেকর্ড

২০২৪ সালের প্রথম মাস জানুয়ারিতে প্রবাসী আয়ের পর নতুন রেকর্ড গড়েছে রপ্তানি আয়ও। জানুয়ারিতে বাংলাদেশের পণ্যদ্রব্য রপ্তানি আয় হয়েছে ৫ দশমিক ৭২ বিলিয়ন ডলার। আর আগের মাস ডিসেম্বরে রপ্তানি আয় হয়েছিল ৫ দশমিক ৩১ বিলিয়ন ডলার। গতকাল মঙ্গলবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। ইপিবির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি সাত মাসে রপ্তানি ছিল ৩২ দশমিক ৪৪ বিলিয়ন ডলার। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের একই সময়ে তা দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৬ বিলিয়ন ডলারে। অর্থাৎ সাত মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২ দশমিক ৫২ শতাংশ। ইপিবির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় রপ্তানি ১১ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়েছে।
গত অর্থবছরের ডিসেম্বরে রপ্তানি হয়েছে ৫ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন ডলার, যা ছিল গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ কম। এদিকে প্রবাসীরা জানুয়ারিতে দেশে গত সাত মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ ২ দশমিক ১০ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। ২০২৩ সালের একই সময়ের তুলনায় এ অর্থ ৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেশি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে বাংলাদেশ রেমিট্যান্স হিসেবে ১ দশমিক ৯৮ বিলিয়ন ডলার পেয়েছিল। গত বছরের জুনে দেশে কোনো একক মাসে সর্বোচ্চ ২ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স আসে। এ বৃদ্ধির একটি কারণ ছিল কিছু ব্যাংকের নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে ডলার সংগ্রহ করা।

 

 

 

স/ম

জনপ্রিয় সংবাদ

টিউশনের নামে প্রতারণার ফাঁদ

রেমিট্যান্সের পর রপ্তানি আয়েও রেকর্ড

আপডেট সময় : ১১:৫৫:৫৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

২০২৪ সালের প্রথম মাস জানুয়ারিতে প্রবাসী আয়ের পর নতুন রেকর্ড গড়েছে রপ্তানি আয়ও। জানুয়ারিতে বাংলাদেশের পণ্যদ্রব্য রপ্তানি আয় হয়েছে ৫ দশমিক ৭২ বিলিয়ন ডলার। আর আগের মাস ডিসেম্বরে রপ্তানি আয় হয়েছিল ৫ দশমিক ৩১ বিলিয়ন ডলার। গতকাল মঙ্গলবার রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত সর্বশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। ইপিবির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত অর্থবছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি সাত মাসে রপ্তানি ছিল ৩২ দশমিক ৪৪ বিলিয়ন ডলার। চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের একই সময়ে তা দাঁড়িয়েছে ৩৩ দশমিক ২৬ বিলিয়ন ডলারে। অর্থাৎ সাত মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ২ দশমিক ৫২ শতাংশ। ইপিবির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় রপ্তানি ১১ দশমিক ৪৫ শতাংশ বেড়েছে।
গত অর্থবছরের ডিসেম্বরে রপ্তানি হয়েছে ৫ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন ডলার, যা ছিল গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ কম। এদিকে প্রবাসীরা জানুয়ারিতে দেশে গত সাত মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ ২ দশমিক ১০ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। ২০২৩ সালের একই সময়ের তুলনায় এ অর্থ ৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ বেশি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, ২০২৩ সালের ডিসেম্বরে বাংলাদেশ রেমিট্যান্স হিসেবে ১ দশমিক ৯৮ বিলিয়ন ডলার পেয়েছিল। গত বছরের জুনে দেশে কোনো একক মাসে সর্বোচ্চ ২ দশমিক ১৯ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স আসে। এ বৃদ্ধির একটি কারণ ছিল কিছু ব্যাংকের নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে ডলার সংগ্রহ করা।

 

 

 

স/ম