০৫:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গ্রাহকের ৫০ লাখ টাকা নিয়ে উধাও পোস্টমাস্টার!

রাজশাহীতে গ্রাহকের সঞ্চয়পত্রের অর্ধ কোটি টাকা তুলে আত্মসাতের অভিযোগ  উঠেছে এক পোস্টমাস্টারের বিরুদ্ধে। গত সপ্তাহে বিষয়টি নজরে আসে ডাক বিভাগের।
এরপরই বিষয়টি গ্রাহকদের নজরে আনেন তারা। ৩০ জন গ্রাহকের অর্ধ কোটি টাকার উপরে হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় তাকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছে ডাক কতৃর্পক্ষ। রাজশাহীর ডেপুটি পোস্টমাস্টার জেনারেল (তদন্ত) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, রাজশাহীর তানোর পৌর শহরের কুঠিপাড়াস্থ উপজেলা কেন্দ্রীয় পোস্ট অফিসের পোস্টমাস্টার মুখছেদ আলীর বিরুদ্ধে বহু গ্রাহকের লাখ লাখ টাকা সঞ্চয়পত্র তুলে নেওয়ার অভিযোগ পাই। আমরা তদন্ত কমিটি সেটির প্রমাণ পাই। এরপর মাইকিং করা হয় গ্রামে গ্রামে। এটি জানার পর মানুষ তাদের কাগজপত্র নিয়ে অফিসে আসছে। এসব কাগজপত্রের পেমেন্টে অবস্থায় পাওয়া যাচ্ছে। বাস্তবে গ্রাহক কোনো টাকা পায়নি। আমরা এখন পর্যন্ত প্রায় ৩০ জনের গ্রাহকের অর্ধকোটি টাকা বিষয়ে জানতে পেরেছি। তিনি বলেন, পোস্টমাস্টার মুখছেদ আলী কৌশলে গ্রাহকদের সই করিয়ে নিজে টাকা তুলে নিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, এই ঘটনায় পোস্টমাস্টার মুখছেদ আলীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তাকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। তবে তাকে এখানে থাকতে বলা হয়েছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় তিনি আজ অফিসে আসেননি। আমরা থানায় একটি জিডি করেছি। যেহেতু তিনি সরকারি কর্মচারী তার বিরুদ্ধে সরাসরি মামলা করা যায় না। তাই এটি দুদকে অভিযোগ হবে। সেখানেই তার মামলা দায়ের করা হবে। তানোরের কুঠিপাড়া গ্রামের আব্দুর রাকিব বলেন, আমি সবশেষ যখন টাকা জমা দেই তখন আমার জমার বইয়ের একটি জায়গায় সই করতে বলেন মুখছেদ আলী। আমি তার দেখানো জায়গায় সই করে বাড়ি চলে যাই। পরে গত মাসে আমি টাকা তোলার জন্য গিয়ে জানতে পারি যে আমার হিসাবে টাকা নাই।
এ বিষয়ে পোস্টমাস্টার জেনারেলের কার্যালয় উত্তরাঞ্চল রাজশাহীর পোস্টমাস্টার জেনারেল কাজী আসাদুল ইসলাম বলেন, আমি দিনাজপুর থেকে ফিরছি। আমি শুনেছি এক পোস্টমাস্টার গ্রাহকের টাকা তুলে নিয়েছেন। আমরা তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছি। এই ঘটনায় দুদকে মামলাও দেওয়া হয়েছে।
তানোরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। এই ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেনি। তারপরও আমরা বিষয়টি দেখছি। দুদক রাজশাহী জেলা কার্যালয়ের উপ পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান বলেন, আমাদের মৌখিকভাবে ডাক বিভাগ থেকে ঘটনাটি জানানো হয়েছে। তবে অভিযোগের কপি এখনও পৌঁছায়নি। অভিযোগ পেলে সেটি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অভিযুক্ত পোস্টমাস্টারের যোগাযোগ করা চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহিম জানান, বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জনপ্রিয় সংবাদ

গ্রাহকের ৫০ লাখ টাকা নিয়ে উধাও পোস্টমাস্টার!

আপডেট সময় : ০২:২০:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪

রাজশাহীতে গ্রাহকের সঞ্চয়পত্রের অর্ধ কোটি টাকা তুলে আত্মসাতের অভিযোগ  উঠেছে এক পোস্টমাস্টারের বিরুদ্ধে। গত সপ্তাহে বিষয়টি নজরে আসে ডাক বিভাগের।
এরপরই বিষয়টি গ্রাহকদের নজরে আনেন তারা। ৩০ জন গ্রাহকের অর্ধ কোটি টাকার উপরে হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় তাকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও করেছে ডাক কতৃর্পক্ষ। রাজশাহীর ডেপুটি পোস্টমাস্টার জেনারেল (তদন্ত) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, রাজশাহীর তানোর পৌর শহরের কুঠিপাড়াস্থ উপজেলা কেন্দ্রীয় পোস্ট অফিসের পোস্টমাস্টার মুখছেদ আলীর বিরুদ্ধে বহু গ্রাহকের লাখ লাখ টাকা সঞ্চয়পত্র তুলে নেওয়ার অভিযোগ পাই। আমরা তদন্ত কমিটি সেটির প্রমাণ পাই। এরপর মাইকিং করা হয় গ্রামে গ্রামে। এটি জানার পর মানুষ তাদের কাগজপত্র নিয়ে অফিসে আসছে। এসব কাগজপত্রের পেমেন্টে অবস্থায় পাওয়া যাচ্ছে। বাস্তবে গ্রাহক কোনো টাকা পায়নি। আমরা এখন পর্যন্ত প্রায় ৩০ জনের গ্রাহকের অর্ধকোটি টাকা বিষয়ে জানতে পেরেছি। তিনি বলেন, পোস্টমাস্টার মুখছেদ আলী কৌশলে গ্রাহকদের সই করিয়ে নিজে টাকা তুলে নিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, এই ঘটনায় পোস্টমাস্টার মুখছেদ আলীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তাকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। তবে তাকে এখানে থাকতে বলা হয়েছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় তিনি আজ অফিসে আসেননি। আমরা থানায় একটি জিডি করেছি। যেহেতু তিনি সরকারি কর্মচারী তার বিরুদ্ধে সরাসরি মামলা করা যায় না। তাই এটি দুদকে অভিযোগ হবে। সেখানেই তার মামলা দায়ের করা হবে। তানোরের কুঠিপাড়া গ্রামের আব্দুর রাকিব বলেন, আমি সবশেষ যখন টাকা জমা দেই তখন আমার জমার বইয়ের একটি জায়গায় সই করতে বলেন মুখছেদ আলী। আমি তার দেখানো জায়গায় সই করে বাড়ি চলে যাই। পরে গত মাসে আমি টাকা তোলার জন্য গিয়ে জানতে পারি যে আমার হিসাবে টাকা নাই।
এ বিষয়ে পোস্টমাস্টার জেনারেলের কার্যালয় উত্তরাঞ্চল রাজশাহীর পোস্টমাস্টার জেনারেল কাজী আসাদুল ইসলাম বলেন, আমি দিনাজপুর থেকে ফিরছি। আমি শুনেছি এক পোস্টমাস্টার গ্রাহকের টাকা তুলে নিয়েছেন। আমরা তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছি। এই ঘটনায় দুদকে মামলাও দেওয়া হয়েছে।
তানোরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। এই ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেনি। তারপরও আমরা বিষয়টি দেখছি। দুদক রাজশাহী জেলা কার্যালয়ের উপ পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান বলেন, আমাদের মৌখিকভাবে ডাক বিভাগ থেকে ঘটনাটি জানানো হয়েছে। তবে অভিযোগের কপি এখনও পৌঁছায়নি। অভিযোগ পেলে সেটি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অভিযুক্ত পোস্টমাস্টারের যোগাযোগ করা চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহিম জানান, বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।