০৯:১৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্থায়ী যুদ্ধবিরতির দাবি ফ্রান্স, মিসর ও জর্ডানের

ইসরায়েলের তেল আবিবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামনে প্রতিবাদ আয়োজন করেছিলেন জিম্মিদের স্বজনেরা। সেখানে জিম্মিদের ছবিসহ প্ল্যাকার্ড নিয়ে হাজির হন অনেকে।

 

 

❖ আল শিফা হাসপাতালে ১৩ দিনে নিহত ৪০০
❖গাজা-ইসরায়েল ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বৈতনীতি
❖ সাইপ্রাস ছেড়েছে ৩ ত্রাণবাহী জাহাজ

 

ফিলিস্তিনের গাজায় অবিরাম ভয়াবহ হামলা চালাচ্ছে দখলদার ইসরায়েল। বর্বর এই আক্রমণের জেরে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে বাড়ছে ক্ষোভ। এ অবস্থায় গাজা উপত্যকায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতির দাবি জানিয়েছে ফ্রান্স, মিসর ও জর্ডান।

 

গতকাল সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত শনিবার মিশরের রাজধানী কায়রোতে তিন কূটনীতিকের বৈঠকের পর মিসর, ফ্রান্স ও জর্ডানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা গাজায় ‘অবিলম্বে স্থায়ী যুদ্ধবিরতি’ এবং হামাসের হাতে আটক সব বন্দিকে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বৈঠকের পর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন সেজোর্নও বলেন, সরকার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে যুদ্ধের ‘রাজনৈতিক’ নিষ্পত্তির জন্য একটি খসড়া প্রস্তাব পেশ করবে। সেই প্রস্তাবে ইসরায়েলি-ফিলিস্তিন সংঘাত নিরসনে ‘দুই-রাষ্ট্র সমাধানের সব মানদণ্ড’ অন্তর্ভুক্ত থাকবে। মূলত ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংকট নিরসনে দীর্ঘকাল ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় দুটি পৃথক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিষয়টিকে সমর্থন করে এলেও প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ইসরায়েলি সরকার-এর বিরোধিতা করছে।

 

এদিকে ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় আল শিফা হাসপাতাল ঘিরে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীর ১৩ দিনের অভিযানে চার শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে রোগী, চিকিৎসাকর্মী এবং যুদ্ধের কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষ রয়েছেন। গতকাল হামাস নিয়ন্ত্রিত গাজার তথ্য দপ্তর একথা জানিয়েছে। ইসরায়েলি বাহিনীর দাবি, হামাসের জ্যেষ্ঠ সন্ত্রাসীরা হাসপাতালটি ব্যবহার করছেন- এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানটি চালানো হচ্ছে। আল শিফা গাজা উপত্যকার সবচেয়ে বড় হাসপাতাল। গত বছরের নভেম্বরেও ইসরায়েলি সেনাবাহিনী ওই হাসপাতাল প্রাঙ্গণে অভিযান চালিয়েছিল। এ নিয়ে তখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ক্ষোভ জানিয়েছিল। চলমান যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত হওয়া কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি ওই হাসপাতাল প্রাঙ্গণে আশ্রয় নিয়েছেন।

 

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে এক আর ভেতরে আরেক। ফিলিস্তিনের রাফায় ইসরায়েলের হামলা নিয়ে প্রকাশ্যে উদ্বেগ জানিয়ে আসছে ওয়াশিংটন। কিন্তু অন্যদিকে একই সময়ে ইসরায়েলের কাছে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার মূল্যের বোমা ও যুদ্ধবিমান পাঠাচ্ছে। ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলকে নতুন যে সামরিক-সহায়তা প্যাকেজ ওয়াশিংটনের পক্ষ থেকে পাঠানো হয়েছে, তাতে দুই হাজার পাউন্ড ওজনের এমকে ৮৪ নামের ১ হাজার ৮০০ বোমা ও ৫০০ পাউন্ড ওজনের এমকে ৮২ মডেলের পাঁচ শতের বেশি বোমা রয়েছে। ইসরায়েল যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের মিত্র হিসেবে পরিচিত। ইসরায়েলকে বার্ষিক সামরিক সহায়তার অংশ হিসেবে সম্প্রতি ৩৮০ কোটি মার্কিন ডলারের সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে ওয়াশিংটন। গাজায় হামলার পাশাপাশি একটানা বোমা হামলা চালিয়ে আন্তর্জাতিক সমালোচনার মুখে তেলাবিবকে এ অস্ত্রসহায়তা দিল যুক্তরাষ্ট্র। এ নিয়ে অবশ্য জো বাইডেনের ডেমোক্রেটিক পার্টি থেকেও সমালোচনা হচ্ছে। দলের কয়েকজন সদস্য ইসরায়েলকে সামরিক সহায়তা বন্ধ করতে বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানান।

 

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ইসরায়েলকে অনেকটাই তড়িঘড়ি করে আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ও অন্যান্য যুদ্ধসরঞ্জাম সরবরাহ করা হয়েছে। তবে ডেমোক্র্যাট দলের কয়েকজন সদস্য ও আরব-আমেরিকান গ্রুপের পক্ষ থেকে দ্রুত ইসরায়েলকে এমন অস্ত্র দেওয়ার সমালোচনা করা হয়। তাদের অভিযোগ, এর মাধ্যমে ইসরায়েলকে দায়মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। সম্প্রতি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়ে একটি প্রস্তাব পাস হয়। তাতে ভেটো দেওয়া থেকে বিরত থাকে যুক্তরাষ্ট্র। রাফায় অভিযান থেকে ইসরায়েলকে বিরত থাকতে আহ্বান জানান মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনও। কিন্তু সে আহ্বান প্রত্যাখ্যান করে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেন, প্রয়োজনে একাই রাফায় হামলা চালাবে ইসরায়েল। এ নিয়ে নেতানিয়াহু ও বাইডেনের মধ্যে বাহ্যিক একটা দূরত্ব তৈরি হয়। কিন্তু তারপরও ইসরায়েলকে সমর্থন চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন বাইডেন। তবে ইসরায়েলকে অস্ত্র দেওয়া নিয়ে হোয়াইট হাউস বা ওয়াশিংটনে ইসরায়েল দূতাবাস থেকে কিছু জানানো হয়নি। চলতি সপ্তাহে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী গ্যালান্টের ওয়াশিংটন সফরের পর এই অস্ত্র পাঠানোর বিষয়টি সামনে এল। গ্যালান্ট তার সফরে ওয়াশিংটনের কাছে অস্ত্র চান।

 

অন্যদিকে গাজার উদ্দেশে সাইপ্রাস বন্দর ছেড়েছে তিনটি জাহাজ। গত শনিবার প্রায় ৩৩২ টন খাবার ও অন্যান্য ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে লারনাকা বন্দর ছাড়ে জাহাজগুলো। সমুদ্রপথে প্রায় ৬০ ঘণ্টা চলার পর আগামী সপ্তাহের শুরুর দিকে জাহাজগুলো অবরুদ্ধ গাজায় পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে। মার্কিন দাতব্য সংস্থা ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রাল কিচেন (ডব্লিউসিকে) জানিয়েছে, জাহাজগুলোতে চাল, পাস্তা, ময়দা, লেবু, টিনজাত শাকসবজি এবং প্রোটিনজাত খাবার রয়েছে যা অন্তত ১০ লাখের বেশি খাবার প্রস্তুত করা জন্য যথেষ্ট। এছাড়া পবিত্র রমজান মাসে রোজা ভাঙার জন্য রয়েছে পর্যাপ্ত খেজুর। গাজার উপত্যকায় সাহায্য পৌঁছানোর জন্য পশ্চিমা চাপের মুখে প্রায় ১৭ বছরের নৌ অবরোধ শিথিল করার পর এই মাসে দ্বিতীয়বারের মতো ত্রাণ ভর্তি জাহাজ এলো। মার্চের শুরুর দিকে প্রায় ২০০ টন ত্রাণ নিয়ে প্রথমবারের মতো গাজার উপকূলে আসে স্পেনের ওপেন আর্মস জাহাজটি। গাজাবাসীর জন্য ত্রাণ দিতে অর্থায়ন করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। আর একে জাহাজ দিয়ে সাহায্য করেছে স্পেনের দাতব্য সংস্থা ওপেন আর্মস। সমুদ্রপথে ত্রাণ সহায়তাকে স্বাগত জানালেও, তা অপ্রতুল বলে মন্তব্য করেছে ত্রাণ সংস্থাগুলো। তারা ইসরায়েলকে স্থলপথে আরো সাহায্য পৌঁছানোর অনুমতি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

 

জনপ্রিয় সংবাদ

স্থায়ী যুদ্ধবিরতির দাবি ফ্রান্স, মিসর ও জর্ডানের

আপডেট সময় : ০৭:৩৩:৪৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

ইসরায়েলের তেল আবিবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সামনে প্রতিবাদ আয়োজন করেছিলেন জিম্মিদের স্বজনেরা। সেখানে জিম্মিদের ছবিসহ প্ল্যাকার্ড নিয়ে হাজির হন অনেকে।

 

 

❖ আল শিফা হাসপাতালে ১৩ দিনে নিহত ৪০০
❖গাজা-ইসরায়েল ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বৈতনীতি
❖ সাইপ্রাস ছেড়েছে ৩ ত্রাণবাহী জাহাজ

 

ফিলিস্তিনের গাজায় অবিরাম ভয়াবহ হামলা চালাচ্ছে দখলদার ইসরায়েল। বর্বর এই আক্রমণের জেরে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে বাড়ছে ক্ষোভ। এ অবস্থায় গাজা উপত্যকায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতির দাবি জানিয়েছে ফ্রান্স, মিসর ও জর্ডান।

 

গতকাল সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত শনিবার মিশরের রাজধানী কায়রোতে তিন কূটনীতিকের বৈঠকের পর মিসর, ফ্রান্স ও জর্ডানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা গাজায় ‘অবিলম্বে স্থায়ী যুদ্ধবিরতি’ এবং হামাসের হাতে আটক সব বন্দিকে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বৈঠকের পর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্টিফেন সেজোর্নও বলেন, সরকার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে যুদ্ধের ‘রাজনৈতিক’ নিষ্পত্তির জন্য একটি খসড়া প্রস্তাব পেশ করবে। সেই প্রস্তাবে ইসরায়েলি-ফিলিস্তিন সংঘাত নিরসনে ‘দুই-রাষ্ট্র সমাধানের সব মানদণ্ড’ অন্তর্ভুক্ত থাকবে। মূলত ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংকট নিরসনে দীর্ঘকাল ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় দুটি পৃথক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিষয়টিকে সমর্থন করে এলেও প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ইসরায়েলি সরকার-এর বিরোধিতা করছে।

 

এদিকে ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় আল শিফা হাসপাতাল ঘিরে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীর ১৩ দিনের অভিযানে চার শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে রোগী, চিকিৎসাকর্মী এবং যুদ্ধের কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষ রয়েছেন। গতকাল হামাস নিয়ন্ত্রিত গাজার তথ্য দপ্তর একথা জানিয়েছে। ইসরায়েলি বাহিনীর দাবি, হামাসের জ্যেষ্ঠ সন্ত্রাসীরা হাসপাতালটি ব্যবহার করছেন- এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানটি চালানো হচ্ছে। আল শিফা গাজা উপত্যকার সবচেয়ে বড় হাসপাতাল। গত বছরের নভেম্বরেও ইসরায়েলি সেনাবাহিনী ওই হাসপাতাল প্রাঙ্গণে অভিযান চালিয়েছিল। এ নিয়ে তখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ক্ষোভ জানিয়েছিল। চলমান যুদ্ধে বাস্তুচ্যুত হওয়া কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি ওই হাসপাতাল প্রাঙ্গণে আশ্রয় নিয়েছেন।

 

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে এক আর ভেতরে আরেক। ফিলিস্তিনের রাফায় ইসরায়েলের হামলা নিয়ে প্রকাশ্যে উদ্বেগ জানিয়ে আসছে ওয়াশিংটন। কিন্তু অন্যদিকে একই সময়ে ইসরায়েলের কাছে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার মূল্যের বোমা ও যুদ্ধবিমান পাঠাচ্ছে। ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসরায়েলকে নতুন যে সামরিক-সহায়তা প্যাকেজ ওয়াশিংটনের পক্ষ থেকে পাঠানো হয়েছে, তাতে দুই হাজার পাউন্ড ওজনের এমকে ৮৪ নামের ১ হাজার ৮০০ বোমা ও ৫০০ পাউন্ড ওজনের এমকে ৮২ মডেলের পাঁচ শতের বেশি বোমা রয়েছে। ইসরায়েল যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘদিনের মিত্র হিসেবে পরিচিত। ইসরায়েলকে বার্ষিক সামরিক সহায়তার অংশ হিসেবে সম্প্রতি ৩৮০ কোটি মার্কিন ডলারের সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহ করেছে ওয়াশিংটন। গাজায় হামলার পাশাপাশি একটানা বোমা হামলা চালিয়ে আন্তর্জাতিক সমালোচনার মুখে তেলাবিবকে এ অস্ত্রসহায়তা দিল যুক্তরাষ্ট্র। এ নিয়ে অবশ্য জো বাইডেনের ডেমোক্রেটিক পার্টি থেকেও সমালোচনা হচ্ছে। দলের কয়েকজন সদস্য ইসরায়েলকে সামরিক সহায়তা বন্ধ করতে বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানান।

 

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ইসরায়েলকে অনেকটাই তড়িঘড়ি করে আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা ও অন্যান্য যুদ্ধসরঞ্জাম সরবরাহ করা হয়েছে। তবে ডেমোক্র্যাট দলের কয়েকজন সদস্য ও আরব-আমেরিকান গ্রুপের পক্ষ থেকে দ্রুত ইসরায়েলকে এমন অস্ত্র দেওয়ার সমালোচনা করা হয়। তাদের অভিযোগ, এর মাধ্যমে ইসরায়েলকে দায়মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। সম্প্রতি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়ে একটি প্রস্তাব পাস হয়। তাতে ভেটো দেওয়া থেকে বিরত থাকে যুক্তরাষ্ট্র। রাফায় অভিযান থেকে ইসরায়েলকে বিরত থাকতে আহ্বান জানান মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনও। কিন্তু সে আহ্বান প্রত্যাখ্যান করে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু বলেন, প্রয়োজনে একাই রাফায় হামলা চালাবে ইসরায়েল। এ নিয়ে নেতানিয়াহু ও বাইডেনের মধ্যে বাহ্যিক একটা দূরত্ব তৈরি হয়। কিন্তু তারপরও ইসরায়েলকে সমর্থন চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন বাইডেন। তবে ইসরায়েলকে অস্ত্র দেওয়া নিয়ে হোয়াইট হাউস বা ওয়াশিংটনে ইসরায়েল দূতাবাস থেকে কিছু জানানো হয়নি। চলতি সপ্তাহে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী গ্যালান্টের ওয়াশিংটন সফরের পর এই অস্ত্র পাঠানোর বিষয়টি সামনে এল। গ্যালান্ট তার সফরে ওয়াশিংটনের কাছে অস্ত্র চান।

 

অন্যদিকে গাজার উদ্দেশে সাইপ্রাস বন্দর ছেড়েছে তিনটি জাহাজ। গত শনিবার প্রায় ৩৩২ টন খাবার ও অন্যান্য ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে লারনাকা বন্দর ছাড়ে জাহাজগুলো। সমুদ্রপথে প্রায় ৬০ ঘণ্টা চলার পর আগামী সপ্তাহের শুরুর দিকে জাহাজগুলো অবরুদ্ধ গাজায় পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে। মার্কিন দাতব্য সংস্থা ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রাল কিচেন (ডব্লিউসিকে) জানিয়েছে, জাহাজগুলোতে চাল, পাস্তা, ময়দা, লেবু, টিনজাত শাকসবজি এবং প্রোটিনজাত খাবার রয়েছে যা অন্তত ১০ লাখের বেশি খাবার প্রস্তুত করা জন্য যথেষ্ট। এছাড়া পবিত্র রমজান মাসে রোজা ভাঙার জন্য রয়েছে পর্যাপ্ত খেজুর। গাজার উপত্যকায় সাহায্য পৌঁছানোর জন্য পশ্চিমা চাপের মুখে প্রায় ১৭ বছরের নৌ অবরোধ শিথিল করার পর এই মাসে দ্বিতীয়বারের মতো ত্রাণ ভর্তি জাহাজ এলো। মার্চের শুরুর দিকে প্রায় ২০০ টন ত্রাণ নিয়ে প্রথমবারের মতো গাজার উপকূলে আসে স্পেনের ওপেন আর্মস জাহাজটি। গাজাবাসীর জন্য ত্রাণ দিতে অর্থায়ন করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। আর একে জাহাজ দিয়ে সাহায্য করেছে স্পেনের দাতব্য সংস্থা ওপেন আর্মস। সমুদ্রপথে ত্রাণ সহায়তাকে স্বাগত জানালেও, তা অপ্রতুল বলে মন্তব্য করেছে ত্রাণ সংস্থাগুলো। তারা ইসরায়েলকে স্থলপথে আরো সাহায্য পৌঁছানোর অনুমতি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।