০৭:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গরমে অসুস্থ রোগীর চিকিৎসায় হাসপাতাল প্রস্তুতের নির্দেশ

সারা দেশে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ। তীব্র গরমে ডায়রিয়া, সর্দি-কাশিসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। এসব রোগীর সেবায় সারা দেশের হাসপাতালগুলো প্রস্তুত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। একইসঙ্গে খুব প্রয়োজন ছাড়া অন্য রোগে আক্রান্তদের ভর্তি না করার অনুরোধ করা হয়েছে।

আজ রোববার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ নির্দেশ দেন তিনি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, গরমে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে। এই রোগী ব্যবস্থাপনায় নতুন নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে এবং হাসপাতালগুলোতে এ নীতিমালা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। স্যালাইন ও ওষুধ পর্যাপ্ত মজুদ আছে। দাবদাহের কারণে কোল্ড কেস (যাদের এখন ভর্তি হওয়ার দরকার নেই) রোগীদের এই মুহূর্তে হাসপাতালে ভর্তি না করা ও এখনই অস্ত্রোপচার প্রয়োজন নয় এমন রোগী হাসপাতালে না রাখার পরামর্শ দেন তিনি।

গরমে বাচ্চা ও বয়স্কদের প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, পরিস্থিতি বুঝে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হবে। আমরা বাচ্চাদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলব না। গরম আবহাওয়ায় যদি ঘাম বন্ধ হয়ে যায়, বমি বমি ভাব দেখা দেয়, তীব্র মাথাব্যথা হয়, শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়, প্রস্রাব কমে যায়, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হয়, খিঁচুনি এবং অজ্ঞান হওয়ার মতো কোনো লক্ষণ দেখা দেয়, তাহলে অবিলম্বে হাসপাতালে যান এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়ে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা বলেন, গরমের কারণে অসুস্থ রোগী ব্যবস্থাপনায় সারা দেশের হাসপাতালের পাশাপাশি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালকে প্রস্তুত রাখতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা হয়েছে। আমরা এরই মধ্যে ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছি। পরিচালক নির্দেশনা পেয়ে প্রস্তুতির কাজ শুরু করছেন।

গরমে অসুস্থ রোগীর চিকিৎসায় হাসপাতাল প্রস্তুতের নির্দেশ

আপডেট সময় : ০৩:৫৯:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

সারা দেশে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ। তীব্র গরমে ডায়রিয়া, সর্দি-কাশিসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। এসব রোগীর সেবায় সারা দেশের হাসপাতালগুলো প্রস্তুত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। একইসঙ্গে খুব প্রয়োজন ছাড়া অন্য রোগে আক্রান্তদের ভর্তি না করার অনুরোধ করা হয়েছে।

আজ রোববার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ নির্দেশ দেন তিনি। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, গরমে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি থাকে। এই রোগী ব্যবস্থাপনায় নতুন নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে এবং হাসপাতালগুলোতে এ নীতিমালা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। স্যালাইন ও ওষুধ পর্যাপ্ত মজুদ আছে। দাবদাহের কারণে কোল্ড কেস (যাদের এখন ভর্তি হওয়ার দরকার নেই) রোগীদের এই মুহূর্তে হাসপাতালে ভর্তি না করা ও এখনই অস্ত্রোপচার প্রয়োজন নয় এমন রোগী হাসপাতালে না রাখার পরামর্শ দেন তিনি।

গরমে বাচ্চা ও বয়স্কদের প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে না যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, পরিস্থিতি বুঝে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হবে। আমরা বাচ্চাদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলব না। গরম আবহাওয়ায় যদি ঘাম বন্ধ হয়ে যায়, বমি বমি ভাব দেখা দেয়, তীব্র মাথাব্যথা হয়, শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যায়, প্রস্রাব কমে যায়, প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হয়, খিঁচুনি এবং অজ্ঞান হওয়ার মতো কোনো লক্ষণ দেখা দেয়, তাহলে অবিলম্বে হাসপাতালে যান এবং চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়ে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা বলেন, গরমের কারণে অসুস্থ রোগী ব্যবস্থাপনায় সারা দেশের হাসপাতালের পাশাপাশি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালকে প্রস্তুত রাখতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা হয়েছে। আমরা এরই মধ্যে ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছি। পরিচালক নির্দেশনা পেয়ে প্রস্তুতির কাজ শুরু করছেন।