০৬:৩৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজারহাটে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অপরাধে শ্রীঘরে ঘাতক স্বামী

রবিবার দুপুরে স্বামী সুধাংশু চন্দ্রের থাকার ঘর থেকে নিহত স্ত্রী গায়ত্রী রানী বাতাসি’র লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে রাজারহাট থানা পুলিশ।  সুধাংশু পেশায় ইজিবাইক চালক ও রাজারহাট সদর ইউনিয়নের পোদ্দার পাড় নাটুয়া মহল দক্ষিণ প্রাণপতি গ্রামের মৃত  খোকার একমাত্র ছেলে। শনিবার ২০ এপ্রিল রাত আটটার দিকে স্বামী স্ত্রীর মাঝে কলহের সূত্র ধরে রাতভর মারধরের শিকার হয়ে ভোর রাতে মারা যান স্ত্রী গায়ত্রী রানী।

ঘাতক সুধাংশু চন্দ্র রায়ের মা বুলবুলি রানী জানায় শনিবার দিবাগত রাতে সুধাংশু বাজার থেকে তার নিজের জন্য লুঙ্গী ও জামা কিনে আনে। তার স্ত্রীর জন্য কাপড় না আনায় তা নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বাঁধে। এক পর্যায়ে সুধাংশু অতি উত্তেজিত হয়ে তার স্ত্রীকে অতিরিক্ত মারধর করতে থাকে। তার মা বুলবুলি রানী এগিয়ে এলে তাকেও মারধর করে দূরে তাড়িয়ে দেয়। তারপর শুরু করে বেদম প্রহার। গায়ত্রী রানী’র আর্ত চিৎকারে ঘরে ঘুমিয়ে থাকা বারো বছরের মেয়ে সুচিত্রা  তার মাকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তাকেও মারতে উদ্যত হলে সেও পাশের বাড়িতে গিয়ে লুকায়। এরপর সুধাংশু বাড়ির গেট লাগিয়ে পৈশাচিক উন্মাদনায় প্রহার করতে থাকলে একপর্যায়ে মারা যান গায়ত্রী রানী। স্ত্রীর মৃত্যু নিশ্চিত হলে সুধাংশু বাড়ি থেকে পালিয়ে গেলে ২১ এপ্রিল রবিবার দুপুরে  রাজারহাট থানা পুলিশের একটি চৌকস দল তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও স্থানীয় সোর্সকে কাজে লাগিয়ে সিঙ্গারডাবড়ী হাট এলাকা থেকে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। গায়ত্রী রানীর নির্মম মৃত্যুতে শ্বাশুড়ি বুলবুলি ও মেয়ে সুচিত্রা শোকে বিহ্বল। তিন বছরের অবুঝ ছেলে তার মাকে খুঁজছে চারপাশে। এ ঘটনায় এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

রাজারহাট থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তা জানান গায়ত্রী হত্যার দায়ে তার পিতা বাদী হয়ে থানায় এজাহার দায়ের সাপেক্ষে মামলা ঋজু প্রক্রিয়াধীন।

রাজারহাটে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অপরাধে শ্রীঘরে ঘাতক স্বামী

আপডেট সময় : ০৯:৫২:৪৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

রবিবার দুপুরে স্বামী সুধাংশু চন্দ্রের থাকার ঘর থেকে নিহত স্ত্রী গায়ত্রী রানী বাতাসি’র লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে রাজারহাট থানা পুলিশ।  সুধাংশু পেশায় ইজিবাইক চালক ও রাজারহাট সদর ইউনিয়নের পোদ্দার পাড় নাটুয়া মহল দক্ষিণ প্রাণপতি গ্রামের মৃত  খোকার একমাত্র ছেলে। শনিবার ২০ এপ্রিল রাত আটটার দিকে স্বামী স্ত্রীর মাঝে কলহের সূত্র ধরে রাতভর মারধরের শিকার হয়ে ভোর রাতে মারা যান স্ত্রী গায়ত্রী রানী।

ঘাতক সুধাংশু চন্দ্র রায়ের মা বুলবুলি রানী জানায় শনিবার দিবাগত রাতে সুধাংশু বাজার থেকে তার নিজের জন্য লুঙ্গী ও জামা কিনে আনে। তার স্ত্রীর জন্য কাপড় না আনায় তা নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া বাঁধে। এক পর্যায়ে সুধাংশু অতি উত্তেজিত হয়ে তার স্ত্রীকে অতিরিক্ত মারধর করতে থাকে। তার মা বুলবুলি রানী এগিয়ে এলে তাকেও মারধর করে দূরে তাড়িয়ে দেয়। তারপর শুরু করে বেদম প্রহার। গায়ত্রী রানী’র আর্ত চিৎকারে ঘরে ঘুমিয়ে থাকা বারো বছরের মেয়ে সুচিত্রা  তার মাকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তাকেও মারতে উদ্যত হলে সেও পাশের বাড়িতে গিয়ে লুকায়। এরপর সুধাংশু বাড়ির গেট লাগিয়ে পৈশাচিক উন্মাদনায় প্রহার করতে থাকলে একপর্যায়ে মারা যান গায়ত্রী রানী। স্ত্রীর মৃত্যু নিশ্চিত হলে সুধাংশু বাড়ি থেকে পালিয়ে গেলে ২১ এপ্রিল রবিবার দুপুরে  রাজারহাট থানা পুলিশের একটি চৌকস দল তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় ও স্থানীয় সোর্সকে কাজে লাগিয়ে সিঙ্গারডাবড়ী হাট এলাকা থেকে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। গায়ত্রী রানীর নির্মম মৃত্যুতে শ্বাশুড়ি বুলবুলি ও মেয়ে সুচিত্রা শোকে বিহ্বল। তিন বছরের অবুঝ ছেলে তার মাকে খুঁজছে চারপাশে। এ ঘটনায় এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

রাজারহাট থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তা জানান গায়ত্রী হত্যার দায়ে তার পিতা বাদী হয়ে থানায় এজাহার দায়ের সাপেক্ষে মামলা ঋজু প্রক্রিয়াধীন।