০৫:২৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি

পদায়নের বৈষম্য সহ বিভিন্ন দাবীতে সারাদেশের ন্যায় ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যানারে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা সচল রেখে কর্মবিরতি সোমবার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মবিরতি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ফেনী সদর দপ্তরের ডিজিএম  ইউসুফ আলী, দাগনভূঞা জোনাল অফিসের ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলম, সোনাগাজী জোনাল অফিসের ডিজিএম বলাই মিত্র, ছাগলনাইয়া জোনাল অফিসের ডিজিএম জানে আলম, পরশুরাম জোনাল অফিসের ডিজিএম সনৎ কুমার ঘোষ, ফুলগাজী জোনাল অফিসের ডিজিএম ইকবাল মাহদী।

এসময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সহকারি জেনারেল ম্যানেজার রাজিব সরকার, আবু তৈয়ব,  আকাশ কুসুম বড়ুয়া, আহসান হাবীব, রাসেদুল ইসলাম, মোঃ ইলিয়াস, মবিনুল হক, মনিরুজ্জামান, আনিছুর রহমান সহ সকল এজিএম (প্রশাসন), এজিএম (অর্থ-হিসাব), সকল এজিএম (ওএন্ডএম), এজিএম(ইএন্ডসি), সকল সহ এনফোর্সমেন্ট কো-অর্ডিনেটর,সকল ডিপ্লোমা প্রকৌশলীবৃন্দ, ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর, জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার, সকল পিউসি, সকল লাইনক্রুগণ , বিলিং সহকারী ও বিলিং সুপার ভাইজার এবং সকল মিটার রিডার কাম মেসেঞ্জার (পিসিএম/এমসিএম) প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির (পবিস) মধ্যকার বৈষম্য দূরীকরণসহ অভিন্ন চাকরিবিধি বাস্তবায়নের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতিতে গেছেন সারাদেশে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় ৪০ হাজার কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

সোমবার সকাল ৯টা থেকে দেশের ৮০টি পবিসের সদর কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। তাদের সাথে একাত্মতা পোষণ করে আমরা ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সকল কর্মকর্তা কর্মচারীরা অনির্দিষ্ট কালের জন্য কর্ম বিরতি পালন করছি।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানায়, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি দেশের প্রায় ৪ কোটি গ্রাহককে (৮০ শতাংশ) বিদ্যুৎ সরবরাহ কাজে নিয়োজিত রয়েছে। বিআরইবি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এসব সমিতির কর্মকর্তা ও কর্মচারী প্রতিনিয়ত নানান বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন।

একই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করলেও পদ, পদবি, পদোন্নতি, বেতন গ্রেড, সাপ্তাহিক ছুটি, একই প্রতিষ্ঠানে একই পদে নিয়মিত এবং চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ, লোকবলের স্বল্পতাসহ সব ক্ষেত্রেই বৈষম্যের শিকার সমিতির কর্মকর্তা হবং কর্মচারীগন। এসব বৈষম্যের বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ জানানো হলেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। বরং এসব ন্যায় সংগত অধিকারের কথা বললেই নানাভানে হয়রানি করা হয়।

বিদ্যমান বৈষম্যগুলো দূর করে বাপবিবো এবং পবিস একই সার্ভিস কোড পরিচালনা করা, ৫ শতাংশ প্রনোদনা জুলাই-২৩ হতে কার্যকর, ২০১৫ সালের পে- জুলাই-১৫ হতে সমধাপে কার্যকর, ৪০০ ইউনিট বিদ্যুৎ বিল ভাতা, ২ দিন সাপ্তাহিক ছুটি, নির্ধারিত কর্মঘণ্টা, অতিরিক্ত কাজের জন্য ওভারটাইম/ডিষ্টারবেন্স এলাউন্স, চিকিৎসা ভাতা, অডিটের নামে হয়রানি না করাসহ সরকার প্রদত্ত সকল সুযোগ-সুবিধা বিআরইবির ন্যায় সমিতির জন্যও বাস্তবায়ন চান তারা।

ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবেলায় কতটুকু প্রস্তুত পবিপ্রবি?

ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি

আপডেট সময় : ০৬:২১:০০ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ মে ২০২৪

পদায়নের বৈষম্য সহ বিভিন্ন দাবীতে সারাদেশের ন্যায় ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ব্যানারে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা সচল রেখে কর্মবিরতি সোমবার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত হয়।

কর্মবিরতি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ফেনী সদর দপ্তরের ডিজিএম  ইউসুফ আলী, দাগনভূঞা জোনাল অফিসের ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলম, সোনাগাজী জোনাল অফিসের ডিজিএম বলাই মিত্র, ছাগলনাইয়া জোনাল অফিসের ডিজিএম জানে আলম, পরশুরাম জোনাল অফিসের ডিজিএম সনৎ কুমার ঘোষ, ফুলগাজী জোনাল অফিসের ডিজিএম ইকবাল মাহদী।

এসময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সহকারি জেনারেল ম্যানেজার রাজিব সরকার, আবু তৈয়ব,  আকাশ কুসুম বড়ুয়া, আহসান হাবীব, রাসেদুল ইসলাম, মোঃ ইলিয়াস, মবিনুল হক, মনিরুজ্জামান, আনিছুর রহমান সহ সকল এজিএম (প্রশাসন), এজিএম (অর্থ-হিসাব), সকল এজিএম (ওএন্ডএম), এজিএম(ইএন্ডসি), সকল সহ এনফোর্সমেন্ট কো-অর্ডিনেটর,সকল ডিপ্লোমা প্রকৌশলীবৃন্দ, ওয়্যারিং ইন্সপেক্টর, জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার, সকল পিউসি, সকল লাইনক্রুগণ , বিলিং সহকারী ও বিলিং সুপার ভাইজার এবং সকল মিটার রিডার কাম মেসেঞ্জার (পিসিএম/এমসিএম) প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির (পবিস) মধ্যকার বৈষম্য দূরীকরণসহ অভিন্ন চাকরিবিধি বাস্তবায়নের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতিতে গেছেন সারাদেশে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় ৪০ হাজার কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

সোমবার সকাল ৯টা থেকে দেশের ৮০টি পবিসের সদর কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। তাদের সাথে একাত্মতা পোষণ করে আমরা ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সকল কর্মকর্তা কর্মচারীরা অনির্দিষ্ট কালের জন্য কর্ম বিরতি পালন করছি।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানায়, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি দেশের প্রায় ৪ কোটি গ্রাহককে (৮০ শতাংশ) বিদ্যুৎ সরবরাহ কাজে নিয়োজিত রয়েছে। বিআরইবি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এসব সমিতির কর্মকর্তা ও কর্মচারী প্রতিনিয়ত নানান বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন।

একই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করলেও পদ, পদবি, পদোন্নতি, বেতন গ্রেড, সাপ্তাহিক ছুটি, একই প্রতিষ্ঠানে একই পদে নিয়মিত এবং চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ, লোকবলের স্বল্পতাসহ সব ক্ষেত্রেই বৈষম্যের শিকার সমিতির কর্মকর্তা হবং কর্মচারীগন। এসব বৈষম্যের বিষয়ে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ জানানো হলেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। বরং এসব ন্যায় সংগত অধিকারের কথা বললেই নানাভানে হয়রানি করা হয়।

বিদ্যমান বৈষম্যগুলো দূর করে বাপবিবো এবং পবিস একই সার্ভিস কোড পরিচালনা করা, ৫ শতাংশ প্রনোদনা জুলাই-২৩ হতে কার্যকর, ২০১৫ সালের পে- জুলাই-১৫ হতে সমধাপে কার্যকর, ৪০০ ইউনিট বিদ্যুৎ বিল ভাতা, ২ দিন সাপ্তাহিক ছুটি, নির্ধারিত কর্মঘণ্টা, অতিরিক্ত কাজের জন্য ওভারটাইম/ডিষ্টারবেন্স এলাউন্স, চিকিৎসা ভাতা, অডিটের নামে হয়রানি না করাসহ সরকার প্রদত্ত সকল সুযোগ-সুবিধা বিআরইবির ন্যায় সমিতির জন্যও বাস্তবায়ন চান তারা।