১১:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্যতিক্রমী সংসদের যাত্রা শুরু

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ

✔ সবচেয়ে ছোট বিরোধী দল সর্বোচ্চ সংখ্যক স্বতন্ত্র এমপি

✔ টানা চতুর্থবার স্পিকার হলেন ড. শিরীন শারমিন

✔ পাঁচ সদস্যের সভাপতিমণ্ডলীর মনোনয়ন

✔ প্রধানমন্ত্রীকে স্যালুট কল্যাণ পার্টির নেতার

✔ মুলতবি অধিবেশন বসবে ৪ ফেব্রুয়ারি

 

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ঐতিহাসিক যাত্রা শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে প্রথম অধিবেশনের মধ্যদিয়ে এ সংসদের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। ইতিহাসের সর্বোচ্চ সংখ্যক ৬২ জন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য নিয়ে প্রথমবারের মতো এই যাত্রা শুরু হলো। এবারই রয়েছে ইতিহাসের সবচেয়ে ছোট বিরোধী দল। সংসদের প্রথম অধিবেশনে ভাষণ দেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে দ্বাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। এরপর প্রথমে ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে টানা চতুর্থবারের মতো সব সদস্যের সর্বসম্মতিক্রমে এই সংসদের স্পিকার নির্বাচন করা হয়। এরপর সব সংসদ সদস্যের সম্মতিক্রমে ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত করা হয়।
রীতি অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন সংসদের প্রথম বৈঠকে তার দিকনির্দেশনামূলক ভাষণ প্রদান করেন। প্রথম অধিবেশন সংসদ থেকে সরাসরি দেখার জন্য বিদেশি কূটনীতিকসহ বিশিষ্টজনদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। সংসদের এই অধিবেশনে দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের পাশাপাশি বিদেশি কূটনীতিকদের অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়।
ঘিয়ে রঙের জমিনে বেগুনি আঁচল ও পাড়ের জামদানি শাড়ি পরে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে সংসদ অধিবেশনকক্ষে প্রবেশ করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় আসনে বসার আগে প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরে জড়ো হন এমপিরা। তারা সবাই সংসদ নেতাকে সালাম দেন। কয়েকজন এমপিকে দেখা যায় প্রধানমন্ত্রীকে পায়ে হাত দিয়ে সালাম করতে। নির্বাচনের আগে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে এমপি নির্বাচিত হওয়া শাহজাহান ওমরকে কুশল বিনিময় করতে দেখা যায়। পরে প্রধানমন্ত্রীর সামনে দাঁড়িয়ে স্যালুট জানান কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক সেনা কর্মকর্তা সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম। প্রধানমন্ত্রীকে সরকারদলীয় এমপি ছাড়াও স্বতন্ত্র এমপিরা পায়ে হাত দিয়ে সালাম করেন। ভিড়ের কারণে যারা কাছে এসে সালাম করতে পারেননি, তারাও দূরে দাঁড়িয়ে সালাম দেন। বিকাল ৩টায় ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকু অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করলে এমপিরা নিজ নিজ আসনের দিকে চলে যান। প্রথমবারের মতো নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের সংসদের কার্যক্রম বিষয়ে দুদিনের ‘ওরিয়েন্টশন’ দেওয়া হয়েছে। নতুন সংসদের সদস্যদের আসন বিন্যাস করা হয়েছে আগেই। সামনের সারিতে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম সারির প্রথম আসনে বসেন। এর পরের আসনেই ছিলেন সংসদ উপনেতা মতিয়া চৌধুরী। তার পরের আসনটিতে ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম। এরপর প্রথম সারিতে দেখা যায় আমির হোসেন আমু, আ ক ম মোজাম্মেল হক, অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং তোফায়েল আহমেদ। সংসদ নেতার পেছনের সারির প্রথম আসনে সরকারি দলের চিফ হুইপ নুর-ই-আলম চৌধুরী বসেন। স্পিকারের বিপরীত দিকে সামনের সারিতে বসেন বিরোধী দলের নেতা জিএম কাদের ও উপনেতা ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ বসেন মো. মুজিবুল হক চুন্নু বিরোধী দলের নেতার পেছনের আসনে। এরপর পাশের আসনটি জাপার রুহুল আমিন হাওলাদার এবং তার পরের তিনটি আসন বরাদ্দ ছিল কল্যাণ পার্টির মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, স্বতন্ত্র হুসাম উদ্দিন, স্বতন্ত্র আবদুল লতিফ সিদ্দিকী ও ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, শাহজাহান খান, এমএ মান্নান ও রমেশ চন্দ্র সেন। শুধু সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্যদের আসনের সিটগুলো ছাড়া পুরো সংসদ ছিল কানায় কানায় পূর্ণ। সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদ নেতা ও দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী দ্বাদশ সংসদের সংসদ উপনেতার দায়িত্ব পালন করেন। রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন নূর-ই আলম চৌধুরীকে দ্বাদশ সংসদের চিফ হুইপ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম, জয়পুরহাট-২ এর সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. নজরুল ইসলাম বাবু, কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল এবং নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজাকে (নড়াইল-২) হুইপ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। গত ১৫ জানুয়ারি এই অধিবেশন আহ্বান করেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। অধিবেশনকে কেন্দ্র করে সংসদ ভবন ও আশপাশের এলাকায় নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ। এক বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ, এই এলাকায় যান চলাচল সীমিত করেছে। গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পাওয়া আওয়ামী লীগ এবার টানা চতুর্থ মেয়াদে সরকারে। এবারের সংসদে এ পর্যন্ত ভোট হওয়া ২৯৯ আসনের মধ্যে ২২৩টিতে জয় পায় আওয়ামী লীগ। এছাড়া গত দুই সংসদে প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টি ১১টি, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে জাসদ একটি ও ওয়ার্কার্স পার্টি একটি এবং কল্যাণ পার্টি একটি আসনে জয় পায়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আসন পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬২ আসনে।

 

 

 

 

স/ম

ব্যতিক্রমী সংসদের যাত্রা শুরু

আপডেট সময় : ১২:০৭:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ

✔ সবচেয়ে ছোট বিরোধী দল সর্বোচ্চ সংখ্যক স্বতন্ত্র এমপি

✔ টানা চতুর্থবার স্পিকার হলেন ড. শিরীন শারমিন

✔ পাঁচ সদস্যের সভাপতিমণ্ডলীর মনোনয়ন

✔ প্রধানমন্ত্রীকে স্যালুট কল্যাণ পার্টির নেতার

✔ মুলতবি অধিবেশন বসবে ৪ ফেব্রুয়ারি

 

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ঐতিহাসিক যাত্রা শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে প্রথম অধিবেশনের মধ্যদিয়ে এ সংসদের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। ইতিহাসের সর্বোচ্চ সংখ্যক ৬২ জন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য নিয়ে প্রথমবারের মতো এই যাত্রা শুরু হলো। এবারই রয়েছে ইতিহাসের সবচেয়ে ছোট বিরোধী দল। সংসদের প্রথম অধিবেশনে ভাষণ দেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে দ্বাদশ সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। এরপর প্রথমে ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে টানা চতুর্থবারের মতো সব সদস্যের সর্বসম্মতিক্রমে এই সংসদের স্পিকার নির্বাচন করা হয়। এরপর সব সংসদ সদস্যের সম্মতিক্রমে ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত করা হয়।
রীতি অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন সংসদের প্রথম বৈঠকে তার দিকনির্দেশনামূলক ভাষণ প্রদান করেন। প্রথম অধিবেশন সংসদ থেকে সরাসরি দেখার জন্য বিদেশি কূটনীতিকসহ বিশিষ্টজনদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। সংসদের এই অধিবেশনে দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের পাশাপাশি বিদেশি কূটনীতিকদের অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়।
ঘিয়ে রঙের জমিনে বেগুনি আঁচল ও পাড়ের জামদানি শাড়ি পরে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে সংসদ অধিবেশনকক্ষে প্রবেশ করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় আসনে বসার আগে প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরে জড়ো হন এমপিরা। তারা সবাই সংসদ নেতাকে সালাম দেন। কয়েকজন এমপিকে দেখা যায় প্রধানমন্ত্রীকে পায়ে হাত দিয়ে সালাম করতে। নির্বাচনের আগে বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে এমপি নির্বাচিত হওয়া শাহজাহান ওমরকে কুশল বিনিময় করতে দেখা যায়। পরে প্রধানমন্ত্রীর সামনে দাঁড়িয়ে স্যালুট জানান কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক সেনা কর্মকর্তা সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম। প্রধানমন্ত্রীকে সরকারদলীয় এমপি ছাড়াও স্বতন্ত্র এমপিরা পায়ে হাত দিয়ে সালাম করেন। ভিড়ের কারণে যারা কাছে এসে সালাম করতে পারেননি, তারাও দূরে দাঁড়িয়ে সালাম দেন। বিকাল ৩টায় ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকু অধিবেশন কক্ষে প্রবেশ করলে এমপিরা নিজ নিজ আসনের দিকে চলে যান। প্রথমবারের মতো নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের সংসদের কার্যক্রম বিষয়ে দুদিনের ‘ওরিয়েন্টশন’ দেওয়া হয়েছে। নতুন সংসদের সদস্যদের আসন বিন্যাস করা হয়েছে আগেই। সামনের সারিতে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম সারির প্রথম আসনে বসেন। এর পরের আসনেই ছিলেন সংসদ উপনেতা মতিয়া চৌধুরী। তার পরের আসনটিতে ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম। এরপর প্রথম সারিতে দেখা যায় আমির হোসেন আমু, আ ক ম মোজাম্মেল হক, অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং তোফায়েল আহমেদ। সংসদ নেতার পেছনের সারির প্রথম আসনে সরকারি দলের চিফ হুইপ নুর-ই-আলম চৌধুরী বসেন। স্পিকারের বিপরীত দিকে সামনের সারিতে বসেন বিরোধী দলের নেতা জিএম কাদের ও উপনেতা ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ বসেন মো. মুজিবুল হক চুন্নু বিরোধী দলের নেতার পেছনের আসনে। এরপর পাশের আসনটি জাপার রুহুল আমিন হাওলাদার এবং তার পরের তিনটি আসন বরাদ্দ ছিল কল্যাণ পার্টির মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, স্বতন্ত্র হুসাম উদ্দিন, স্বতন্ত্র আবদুল লতিফ সিদ্দিকী ও ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, শাহজাহান খান, এমএ মান্নান ও রমেশ চন্দ্র সেন। শুধু সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্যদের আসনের সিটগুলো ছাড়া পুরো সংসদ ছিল কানায় কানায় পূর্ণ। সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদ নেতা ও দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী দ্বাদশ সংসদের সংসদ উপনেতার দায়িত্ব পালন করেন। রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন নূর-ই আলম চৌধুরীকে দ্বাদশ সংসদের চিফ হুইপ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিম, জয়পুরহাট-২ এর সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. নজরুল ইসলাম বাবু, কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল এবং নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজাকে (নড়াইল-২) হুইপ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। গত ১৫ জানুয়ারি এই অধিবেশন আহ্বান করেন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। অধিবেশনকে কেন্দ্র করে সংসদ ভবন ও আশপাশের এলাকায় নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ। এক বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ, এই এলাকায় যান চলাচল সীমিত করেছে। গত ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পাওয়া আওয়ামী লীগ এবার টানা চতুর্থ মেয়াদে সরকারে। এবারের সংসদে এ পর্যন্ত ভোট হওয়া ২৯৯ আসনের মধ্যে ২২৩টিতে জয় পায় আওয়ামী লীগ। এছাড়া গত দুই সংসদে প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টি ১১টি, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে জাসদ একটি ও ওয়ার্কার্স পার্টি একটি এবং কল্যাণ পার্টি একটি আসনে জয় পায়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আসন পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬২ আসনে।

 

 

 

 

স/ম