০১:১৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ডেঙ্গুতে আরো একজনের মৃত্যু

১৩ দিন পর দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। সবশেষ গত ২১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর একজনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল, তিনি ঢাকায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। এছাড়া নতুন করে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে আরও ১০ জন ভর্তি হয়েছেন। গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গু বিষয়ক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ১০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকাতে ছয়জন এবং ঢাকার বাইরে চার জন। একই সময় দেশে মোট ১০ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে চার জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে থেকে ছয় জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ ও পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণের আহ্বান
নিজস্ব প্রতিবেদক
অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার এম আল্লামা সিদ্দীকী প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের পাশাপাশি বিদেশিদেরও এ ক্ষেত্রে উৎসাহিত করার আহ্বান করেন। এ সময় তিনি প্রবাসী বাংলাদেশিদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণেরও আহ্বান জানান।
অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় বাংলাদেশ হাইকমিশন আয়োজিত সর্বজনীন পেনশন স্কিম ও বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণ বিষয়ক এক সেমিনারে শনিবার হাইকমিশনার এ আহ্বান করেন।
হাইকমিশনার বলেন, দীর্ঘ মেয়াদে এই স্কিমের মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশিসহ দেশ উপকৃত হবে। এক্ষেত্রে রাষ্ট্র এ স্কিমে অংশগ্রহণকারীদের বিনিয়োগকৃত অর্থের যথাযথ ব্যবহারসহ নিদিষ্ট মেয়াদ শেষে মাসিক পেনশনের নিশ্চয়তা প্রদান করবে। তিনি বলেন, প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিট্যান্স দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। আল্লামা সিদ্দীকী উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের সক্ষমতা অনেকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। অবকাঠামো উন্নয়ন এবং দারিদ্র্য বিমোচনসহ সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে। সেমিনারে উপস্থিত বক্তারা সর্বজনীন পেনশন স্কিমে প্রবাসীদের জন্য পৃথক স্কিম চালু
করায় সরকারকে ধন্যবাদ জানান। তারা বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ব্যাংকিং পদ্ধতিকে সহজতর করারও অনুরোধ করেন। সেমিনারে বীর মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, চিকিৎসকসহ বিভিন্ন পেশার প্রবাসী বাংলাদেশিসহ হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে হাইকমিশনের কাউন্সেলর (শ্রম ও কল্যাণ) মোঃ সালাহউদ্দিন সর্বজনীন পেনশন স্কিম ও বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণের ওপর একটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন।

 

 

 

 

স/ম

ডেঙ্গুতে আরো একজনের মৃত্যু

আপডেট সময় : ১১:৪৮:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

১৩ দিন পর দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। সবশেষ গত ২১ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর একজনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল, তিনি ঢাকায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। এছাড়া নতুন করে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে আরও ১০ জন ভর্তি হয়েছেন। গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গু বিষয়ক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ১০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকাতে ছয়জন এবং ঢাকার বাইরে চার জন। একই সময় দেশে মোট ১০ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে চার জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে থেকে ছয় জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ ও পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণের আহ্বান
নিজস্ব প্রতিবেদক
অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার এম আল্লামা সিদ্দীকী প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের পাশাপাশি বিদেশিদেরও এ ক্ষেত্রে উৎসাহিত করার আহ্বান করেন। এ সময় তিনি প্রবাসী বাংলাদেশিদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অংশগ্রহণেরও আহ্বান জানান।
অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় বাংলাদেশ হাইকমিশন আয়োজিত সর্বজনীন পেনশন স্কিম ও বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণ বিষয়ক এক সেমিনারে শনিবার হাইকমিশনার এ আহ্বান করেন।
হাইকমিশনার বলেন, দীর্ঘ মেয়াদে এই স্কিমের মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশিসহ দেশ উপকৃত হবে। এক্ষেত্রে রাষ্ট্র এ স্কিমে অংশগ্রহণকারীদের বিনিয়োগকৃত অর্থের যথাযথ ব্যবহারসহ নিদিষ্ট মেয়াদ শেষে মাসিক পেনশনের নিশ্চয়তা প্রদান করবে। তিনি বলেন, প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিট্যান্স দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। আল্লামা সিদ্দীকী উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের সক্ষমতা অনেকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। অবকাঠামো উন্নয়ন এবং দারিদ্র্য বিমোচনসহ সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে। সেমিনারে উপস্থিত বক্তারা সর্বজনীন পেনশন স্কিমে প্রবাসীদের জন্য পৃথক স্কিম চালু
করায় সরকারকে ধন্যবাদ জানান। তারা বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ব্যাংকিং পদ্ধতিকে সহজতর করারও অনুরোধ করেন। সেমিনারে বীর মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ী, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, চিকিৎসকসহ বিভিন্ন পেশার প্রবাসী বাংলাদেশিসহ হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে হাইকমিশনের কাউন্সেলর (শ্রম ও কল্যাণ) মোঃ সালাহউদ্দিন সর্বজনীন পেনশন স্কিম ও বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রেরণের ওপর একটি পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন।

 

 

 

 

স/ম