০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সিন্ডিকেট সদস্য পদ থেকে কুবি শিক্ষকের  পদত্যাগ 

সিন্ডিকেট সভায় ‘এজেন্ডা বহির্ভূত ও বেআইনীভাবে ডিন নিয়োগ’ দেয়ার কারণ দেখিয়ে সিন্ডিকেট সদস্যর পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. শেখ মকছেদুর রহমান।
মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর এ পদত্যাগ পত্রটি পাঠান অধ্যাপক ড. শেখ মকছেদুর রহমান।
পদত্যাগ পত্রে উল্লেখ করা হয়, ‘আমার জানামতে গত ১৪ মার্চ অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় এজেন্ডা বহির্ভূত ও বেআইনীভাবে ডিন নিয়োগ দেয়া হয়েছে। একাধিক সিন্ডিকেট সদস্যের আপত্তি সত্ত্বেও কোন বিশেষ ব্যক্তিকে সুবিধা প্রদানের জন্য পরিকল্পিতভাবে ডিন মনোনয়ন দেয়া হয়েছে যা শুধু দুঃখজনকই নয় বিধি-বহির্ভূতও বটে।’
পদত্যাগ পত্রে তিনি আরও উল্লেখ করেন, ‘সিন্ডিকেট সভায় মতামত প্রদানের সুযোগ খুবই সীমিত অধিকাংশ ক্ষেত্রে মতামত প্রদানের কোন সুযোগ নেই, এখানে সদস্য হিসেবে থাকা বা না-থাকা একই অর্থ বহন করে। মূলতঃ আমাদেরকে সভার কোরাম পূর্ণ করার জন্য রাখা হয়েছে। সচেতন নাগরিক হিসেবে যেটা অস্বস্তিকর।’
এ ব্যাপারে অধ্যাপক ড. শেখ মকছেদুর রহমান বলেন, ‘আমার দায়িত্ব চলমান অবস্থায় আমি পদত্যাগ করেছি। সিন্ডিকেট সদস্য হিসেবে আমাদের কথা বলার সুযোগ খুব কম দেওয়া হয়। আমাদের মতামত গ্রহণ করা হয় না। এতোদিন পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি প্রয়োজনীয়তা নেই। তাই পদত্যাগ করেছি।’
এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন বলেন, ‘সিন্ডিকেট সভায় প্রায় ২০ জনের মতো সিন্ডিকেট সদস্য থাকে। সবাইকে কথা বলার জন্য সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। সিন্ডিকেট সভায় সবাই স্বাধীন, সবাইকে মত প্রকাশের সুযোগ দেওয়া হয়। উনার এটা লাস্ট সিন্ডিকেট সভা ছিল।’
উল্লেখ্য, গত ০৬ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক তোফায়েল হোসেন মজুমদার, ০৭ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণমাধ্যম উপদেষ্টা মাহবুবুল হক ভূঁইয়া, ১৮ ফেব্রুয়ারি সহকারী প্রক্টর মাহমুদুল হাসান এবং ২০ ফেব্রুয়ারি সহকারী প্রক্টর মো: কামরুল হাসান ও শেখ হাসিনা হলের আবাসিক শিক্ষক কুলছুম আক্তার স্বপ্না পদত্যাগ করেন।
এর আগে সাবেক রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের ২০২২ সালের ২২ মার্চ দায়িত্ব পালনে উপাচার্যের সঙ্গে সমন্বয়হীনতা ও অস্বস্তিবোধের কথা বলে পদত্যাগপত্র জমা দেন।
জনপ্রিয় সংবাদ

সিন্ডিকেট সদস্য পদ থেকে কুবি শিক্ষকের  পদত্যাগ 

আপডেট সময় : ০৭:২৮:১৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪
সিন্ডিকেট সভায় ‘এজেন্ডা বহির্ভূত ও বেআইনীভাবে ডিন নিয়োগ’ দেয়ার কারণ দেখিয়ে সিন্ডিকেট সদস্যর পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. শেখ মকছেদুর রহমান।
মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর এ পদত্যাগ পত্রটি পাঠান অধ্যাপক ড. শেখ মকছেদুর রহমান।
পদত্যাগ পত্রে উল্লেখ করা হয়, ‘আমার জানামতে গত ১৪ মার্চ অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় এজেন্ডা বহির্ভূত ও বেআইনীভাবে ডিন নিয়োগ দেয়া হয়েছে। একাধিক সিন্ডিকেট সদস্যের আপত্তি সত্ত্বেও কোন বিশেষ ব্যক্তিকে সুবিধা প্রদানের জন্য পরিকল্পিতভাবে ডিন মনোনয়ন দেয়া হয়েছে যা শুধু দুঃখজনকই নয় বিধি-বহির্ভূতও বটে।’
পদত্যাগ পত্রে তিনি আরও উল্লেখ করেন, ‘সিন্ডিকেট সভায় মতামত প্রদানের সুযোগ খুবই সীমিত অধিকাংশ ক্ষেত্রে মতামত প্রদানের কোন সুযোগ নেই, এখানে সদস্য হিসেবে থাকা বা না-থাকা একই অর্থ বহন করে। মূলতঃ আমাদেরকে সভার কোরাম পূর্ণ করার জন্য রাখা হয়েছে। সচেতন নাগরিক হিসেবে যেটা অস্বস্তিকর।’
এ ব্যাপারে অধ্যাপক ড. শেখ মকছেদুর রহমান বলেন, ‘আমার দায়িত্ব চলমান অবস্থায় আমি পদত্যাগ করেছি। সিন্ডিকেট সদস্য হিসেবে আমাদের কথা বলার সুযোগ খুব কম দেওয়া হয়। আমাদের মতামত গ্রহণ করা হয় না। এতোদিন পর্যবেক্ষণ করে দেখেছি প্রয়োজনীয়তা নেই। তাই পদত্যাগ করেছি।’
এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈন বলেন, ‘সিন্ডিকেট সভায় প্রায় ২০ জনের মতো সিন্ডিকেট সদস্য থাকে। সবাইকে কথা বলার জন্য সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। সিন্ডিকেট সভায় সবাই স্বাধীন, সবাইকে মত প্রকাশের সুযোগ দেওয়া হয়। উনার এটা লাস্ট সিন্ডিকেট সভা ছিল।’
উল্লেখ্য, গত ০৬ ফেব্রুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক তোফায়েল হোসেন মজুমদার, ০৭ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণমাধ্যম উপদেষ্টা মাহবুবুল হক ভূঁইয়া, ১৮ ফেব্রুয়ারি সহকারী প্রক্টর মাহমুদুল হাসান এবং ২০ ফেব্রুয়ারি সহকারী প্রক্টর মো: কামরুল হাসান ও শেখ হাসিনা হলের আবাসিক শিক্ষক কুলছুম আক্তার স্বপ্না পদত্যাগ করেন।
এর আগে সাবেক রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের ২০২২ সালের ২২ মার্চ দায়িত্ব পালনে উপাচার্যের সঙ্গে সমন্বয়হীনতা ও অস্বস্তিবোধের কথা বলে পদত্যাগপত্র জমা দেন।