০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বাধীনতা দিবস উদযাপন স্মৃতিসৌধ এলাকায় ব্যানার-পোস্টার না লাগানোর আহ্বান

 

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে ঢাকার গাবতলী থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত সড়কে তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার না লাগানোর আহ্বান জানিয়েছে সরকার। গতকাল সরকারি এক তথ্যবিবরণীতে এ আহ্বান জানানো হয়েছে।

তথ্যবিবরণীতে বলা হয়, মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে রাজধানীর গাবতলী থেকে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত সড়কে যেকোনো ধরনের তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন এবং পোস্টার লাগানো থেকে বিরত থাকতে সর্বসাধারণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও যথাযোগ্য মর্যাদা এবং উৎসাহ উদ্দীপনার সঙ্গে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত হবে। দিবসটিতে জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।

 

দেশের আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিসহ সাধারণ মানুষও আসবেন। সেই লক্ষ্যে পুরো সাভার উপজেলা, বিশেষ করে স্মৃতিসৌধ এলাকায় কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হবে। এরই অংশ হিসেবে এখন থেকেই নেওয়া হচ্ছে সার্বিক প্রস্তুতি। স্মৃতিসৌধ এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং সৌন্দর্য বর্ধন করা হবে। পাশাপাশি নিরাপত্তা রক্ষায় সিসিটিভি স্থাপনসহ সব ধরনের প্রস্তুতিও নেওয়া হবে প্রতিবারের মতোই। এ সময় টানা একমাস ধরে স্মৃতিসৌধে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ করেন গণপূর্ত অধিদপ্তরের শতাধিক কর্মী।

২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের দিন ভোরে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণ। জাতির বীর সেনানিদের প্রতি সাধারণ মানুষ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাবেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

স্বাধীনতা দিবস উদযাপন স্মৃতিসৌধ এলাকায় ব্যানার-পোস্টার না লাগানোর আহ্বান

আপডেট সময় : ০৭:১২:০১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০২৪

 

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে ঢাকার গাবতলী থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত সড়কে তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার না লাগানোর আহ্বান জানিয়েছে সরকার। গতকাল সরকারি এক তথ্যবিবরণীতে এ আহ্বান জানানো হয়েছে।

তথ্যবিবরণীতে বলা হয়, মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস-২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে রাজধানীর গাবতলী থেকে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত সড়কে যেকোনো ধরনের তোরণ, ব্যানার, ফেস্টুন এবং পোস্টার লাগানো থেকে বিরত থাকতে সর্বসাধারণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও যথাযোগ্য মর্যাদা এবং উৎসাহ উদ্দীপনার সঙ্গে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত হবে। দিবসটিতে জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।

 

দেশের আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিসহ সাধারণ মানুষও আসবেন। সেই লক্ষ্যে পুরো সাভার উপজেলা, বিশেষ করে স্মৃতিসৌধ এলাকায় কয়েক স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হবে। এরই অংশ হিসেবে এখন থেকেই নেওয়া হচ্ছে সার্বিক প্রস্তুতি। স্মৃতিসৌধ এলাকায় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং সৌন্দর্য বর্ধন করা হবে। পাশাপাশি নিরাপত্তা রক্ষায় সিসিটিভি স্থাপনসহ সব ধরনের প্রস্তুতিও নেওয়া হবে প্রতিবারের মতোই। এ সময় টানা একমাস ধরে স্মৃতিসৌধে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ করেন গণপূর্ত অধিদপ্তরের শতাধিক কর্মী।

২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসের দিন ভোরে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণ। জাতির বীর সেনানিদের প্রতি সাধারণ মানুষ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাবেন।