০৫:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাতক্ষীরার ত্রিশমাইলে ফোটা শরতের শুভ্র কাশফুল, বাতাসে জানান দিচ্ছে যেন শীতের আগমনের বার্তা

শাহীন গোলদার,সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ত্রিশমাইল এলাকায় পাশেই বিল। তার পাশে এক খন্ডবালু ভত্তি জমিতে  চারদিকে শরতের শুভ্র কাশফুল দেখতে প্রতিদিন ভিড় বাড়ছে।বিলের ধারে শরীর-মন জুড়িয়ে দেওয়া বাতাস।কেউ কাশফুল বনে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, কেউ বসে গল্প করছেন। কেউবা ফুলের সঙ্গে ছবি তুলছেন। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেকেই আসছেন এই কাশবনে। বিকেল হলেই লোক সমাগমে জমজমাট হয়ে উঠেছে ত্রিশমাইল এলাকা। কাশফুলের সমারোহে বিকেলের বাতাস যেন শীতের আগমনের বার্তা দিচ্ছে।
প্রকৃতিতে শরৎ এর আগমন জানান দেয় কাশফুল। পালকের মতো নরম এবং ধবধবে সাদা রঙের এই সৌন্দর্য্যে মনে পড়ে বর্ষার বিদায়। নীল আকাশে সাদা পেজা মেঘের
সাথে মৃদু মন্দ বাতাসে কাশফুলের দোল খাওয়া প্রকৃতিতে ছড়ায় মুগ্ধতা। সাতক্ষীরার ত্রিশমাইলে তেমনই মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে কাশফুল। কাশফুল দেখতে আসা দশনাথীরা জানান, খুলনা-সাতক্ষীরা সড়কের ত্রিশমাইলে বালু ভরাট এক খন্ড জমিকে প্রকৃতি সাজিয়েছে সাদা পালকের রূপে। কাশবনে ভীড় কিশোর-তরুণসহ সব বয়সীদের। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেকেই আসছেন এই কাশবনে। তারা আরও জানান, কাশফুলের সমারোহ মনে করিয়ে দেয় দুর্গার বাপের ঘরে ফেরা। বিকেলের বাতাসে মিশে থাকে শীতের আগমনের বার্তা বয়ে বেড়াচ্ছে।
খুলনা-সাতক্ষীরা মহসড়কে ত্রিশমাইলে বালু ভরাট এক খন্ড জমিকে প্রকৃতি সাঁজিয়েছে কাশফুলে। সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ অলিউর রহমান রিপন
জানান, তার পরিবার নিয়ে এপযন্ত তিন বার এসেছেন কাশফুল দেখতে। চারদিকে শরতের শুভ্র কাশফুল বিলের ধারে শরীর-মন জুড়িয়ে দেওয়া বাতাস। আকাশে সাদা
মেঘের ভেলা নিচে সবুজ মাঠে বুকে সাদা কাশফুলের সমারোহ  একটি প্রকৃতিক পরিবেশ তৈরি করে।
তিনি আরও জানান, নগর জীবনের কোলাহল ছেড়ে শহরের উপকন্ঠে বিনেরপোতা ও ত্রিশমাইলে এলাকায় মানুষ চায় একটু শান্তির আশায় এই প্রকৃতিক সুন্দরয্য উপভোগ করার জন্য কাশফুল বনে চলে আসে। কাশফুলে নরম ছোয়ায় মনে প্রশান্তির দোলা দেয়। সাতক্ষীরা জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক শেখ মোসফিকুর রহমান মিলটন জানান, বিনোদনের জন্য অনেক স্পট রয়েছে। তারপরও সম্প্রতি  বিনেরপোতা ও ত্রিশমাইলে এলাকায় কাশফুলে বাগান মানুকে খুবই কাছে টানছে।
তিনি আরও জানান, পালকের মতো নরম এবং ধবধবে সাদা রঙের এই সৌন্দর্য্যে মনে পড়ে বর্ষার বিদায়। নীল আকাশে সাদা পেজা মেঘের সাথে মৃদু মন্দ বাতাসে
কাশফুলের দোল খাওয়া প্রকৃতিতে ছড়ায় মুগ্ধতা।
তবে, শরৎ বাংলার ঋতু পরিক্রমায় সবচেয়ে মোহনীয় ঋতু। নরম, কোমল, মায়াবী স্পর্শে দোলা দেয় শরৎ। আশ্বিনের শেষে বিলিন হবে ধবধবে সাদা রঙের এ কাশফুল।

শিক্ষার্থীদের উপর হামলার প্রতিবাদে নোয়াখালীতে বিক্ষোভ মিছিল

সাতক্ষীরার ত্রিশমাইলে ফোটা শরতের শুভ্র কাশফুল, বাতাসে জানান দিচ্ছে যেন শীতের আগমনের বার্তা

আপডেট সময় : ১১:১১:১০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ অক্টোবর ২০২৩

শাহীন গোলদার,সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরার তালা উপজেলার ত্রিশমাইল এলাকায় পাশেই বিল। তার পাশে এক খন্ডবালু ভত্তি জমিতে  চারদিকে শরতের শুভ্র কাশফুল দেখতে প্রতিদিন ভিড় বাড়ছে।বিলের ধারে শরীর-মন জুড়িয়ে দেওয়া বাতাস।কেউ কাশফুল বনে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, কেউ বসে গল্প করছেন। কেউবা ফুলের সঙ্গে ছবি তুলছেন। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেকেই আসছেন এই কাশবনে। বিকেল হলেই লোক সমাগমে জমজমাট হয়ে উঠেছে ত্রিশমাইল এলাকা। কাশফুলের সমারোহে বিকেলের বাতাস যেন শীতের আগমনের বার্তা দিচ্ছে।
প্রকৃতিতে শরৎ এর আগমন জানান দেয় কাশফুল। পালকের মতো নরম এবং ধবধবে সাদা রঙের এই সৌন্দর্য্যে মনে পড়ে বর্ষার বিদায়। নীল আকাশে সাদা পেজা মেঘের
সাথে মৃদু মন্দ বাতাসে কাশফুলের দোল খাওয়া প্রকৃতিতে ছড়ায় মুগ্ধতা। সাতক্ষীরার ত্রিশমাইলে তেমনই মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে কাশফুল। কাশফুল দেখতে আসা দশনাথীরা জানান, খুলনা-সাতক্ষীরা সড়কের ত্রিশমাইলে বালু ভরাট এক খন্ড জমিকে প্রকৃতি সাজিয়েছে সাদা পালকের রূপে। কাশবনে ভীড় কিশোর-তরুণসহ সব বয়সীদের। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেকেই আসছেন এই কাশবনে। তারা আরও জানান, কাশফুলের সমারোহ মনে করিয়ে দেয় দুর্গার বাপের ঘরে ফেরা। বিকেলের বাতাসে মিশে থাকে শীতের আগমনের বার্তা বয়ে বেড়াচ্ছে।
খুলনা-সাতক্ষীরা মহসড়কে ত্রিশমাইলে বালু ভরাট এক খন্ড জমিকে প্রকৃতি সাঁজিয়েছে কাশফুলে। সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ অলিউর রহমান রিপন
জানান, তার পরিবার নিয়ে এপযন্ত তিন বার এসেছেন কাশফুল দেখতে। চারদিকে শরতের শুভ্র কাশফুল বিলের ধারে শরীর-মন জুড়িয়ে দেওয়া বাতাস। আকাশে সাদা
মেঘের ভেলা নিচে সবুজ মাঠে বুকে সাদা কাশফুলের সমারোহ  একটি প্রকৃতিক পরিবেশ তৈরি করে।
তিনি আরও জানান, নগর জীবনের কোলাহল ছেড়ে শহরের উপকন্ঠে বিনেরপোতা ও ত্রিশমাইলে এলাকায় মানুষ চায় একটু শান্তির আশায় এই প্রকৃতিক সুন্দরয্য উপভোগ করার জন্য কাশফুল বনে চলে আসে। কাশফুলে নরম ছোয়ায় মনে প্রশান্তির দোলা দেয়। সাতক্ষীরা জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক শেখ মোসফিকুর রহমান মিলটন জানান, বিনোদনের জন্য অনেক স্পট রয়েছে। তারপরও সম্প্রতি  বিনেরপোতা ও ত্রিশমাইলে এলাকায় কাশফুলে বাগান মানুকে খুবই কাছে টানছে।
তিনি আরও জানান, পালকের মতো নরম এবং ধবধবে সাদা রঙের এই সৌন্দর্য্যে মনে পড়ে বর্ষার বিদায়। নীল আকাশে সাদা পেজা মেঘের সাথে মৃদু মন্দ বাতাসে
কাশফুলের দোল খাওয়া প্রকৃতিতে ছড়ায় মুগ্ধতা।
তবে, শরৎ বাংলার ঋতু পরিক্রমায় সবচেয়ে মোহনীয় ঋতু। নরম, কোমল, মায়াবী স্পর্শে দোলা দেয় শরৎ। আশ্বিনের শেষে বিলিন হবে ধবধবে সাদা রঙের এ কাশফুল।