০৮:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দাউদকান্দিতে সরকারী রাস্তার ইট তুলে প্রাচীর নির্মানের অভিযোগ

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর ইউনিয়নের দক্ষিন পেন্নাই গ্রামে ওমান প্রবাসী মো. রুহুল আমিনের বসতবাড়ির চলাচলের রাস্তা বন্ধকরে এবং ওই গ্রামের সরকারী রাস্তার ইট তুলে রাস্তা দখল করে প্রাচীর নির্মান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় প্রবাসী রুহুল আমিনের ছোট ভাই দক্ষিন পেন্নাই গ্রামের মরহুম মজনু মিয়ার ছেল গিয়াস উদ্দিন বাদী হয়ে গৌরীপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

গিয়াস উদ্দিন অভিযোগে উল্লেখ করেন যে, দক্ষিন পেন্নাই গ্রামের মরহুম নুরু মিয়ার ছেলে মো. আলমগীর হোসেন আমার প্রতিবেশী হয়। আমার একই বাড়ীর লোক। তাদের জায়গা জমির সাথে আমার জমি থাকায় আমাদের উভয় পক্ষের বাড়ী হতে বের হওয়া তথা চলাচলের রাস্তা নিয়ে। বিগত অনুমান ৪/৫ বছর যাবৎ আলমগীর হোসেনের সাথে আমার বিরোধ চলে আসতেছে। উক্ত বিষয়ে ইতোপূর্বে আমি আমাদের এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করে স্থানীয় ভাবে আপোস মিমাংসার চেষ্টা করলে আলমগীর স্থানীয়দের বিচার না মেনে। বিভিন্ন ভাবে আমার বাড়ীর মানুষদের চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আমাদেরকে অবরুদ্ধ করার পায়তারা করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গেল ৮ নভেম্বর সকালে জোরপূর্বক আমার বাড়ী হতে বের হওয়ার রাস্তার ইট দ্বারা ওয়াল নির্মান করে আমাদেরকে অবরুদ্ধ করার চেষ্টা করলে ঐ সময় আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে বাধা প্রদান করলে মোঃ আলমগীর হোসেনসহ তার কয়েকজন সহযোগী আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে মারধর করার জন্য দৌড়ে আসে। আক্রমনাত্মক মারমুখী অবস্থা দেখে আমি ডাক চিৎকার করলে আশেপাশের লোকজন ও আমার পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে পড়লে তারা আমাকে মারধর করা হতে বিরত থাকে। এবং আমাকে বলে যে, তার কাছ থেকে আধা শতক জায়গা কিনতে হবে। সেজন্য তাকে ১৫ লাখ টাকা পরিশোধ করতে হবে। না হলে সে আমাদের বাড়ী হতে বের হওয়ার রাস্তায় ইট দ্বারা ওয়াল নির্মান করে স্থায়ী ভাবে আমাদের বাড়ীর লোকজনদের অবরূদ্ধ করে রাখবে। আমি তাদের প্রস্তাবে রাজী না হলে তারা প্রকাশ্যে আমাকে বিভিন্ন প্রকার হুমকী ধমকী প্রদান করে। এবং উক্ত রাস্তার জায়গা নিয়ে প্রয়োজনে আমাকেসহ আমার পরিবারের লোকজনকে খুন জখম করবে। তার এমন কর্মকান্ডে ও হুমকী ধমকীতে আমি বর্তমানে আমার নিজের ও পরিবারের অন্যদের জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সে প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে যেকোন সময় আমাদের যেকোন প্রকার ক্ষতি করতে পারে। এমতাবস্থায় উপরোক্ত ঘটনার আলোকে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করে আমার বাড়ী হতে বের হওয়ার রাস্তাটি অবমুক্ত করার যথাযথ আইনী প্রক্রিয়ায় উদ্ধারের ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

মো. রুহুল আমিন মোবাইল ফোনে জানান, জমিগুলো আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তি।  একটার মধ্যে আমি বসবাস করছি। অপরটি আমার ভাই বিক্রি করে দেয়। এই আলমগীর আমাদের সম্পত্তি ক্রয় করে। সে দুই বছর আগে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে। পরে মামলাটির কোন গ্রহন যোগ্যতা না থাকায় আদালত এটি নিষ্পত্তি করে দেয়। সে আগেও আমাকে হয়রানি করেছে। আমি একজন প্রবাসী। এখন সে আমার রাস্তা বন্ধ করে দিচ্ছে। আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

দাউদকান্দিতে সরকারী রাস্তার ইট তুলে প্রাচীর নির্মানের অভিযোগ

আপডেট সময় : ০১:৫৬:৩২ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ নভেম্বর ২০২৩

দাউদকান্দি (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর ইউনিয়নের দক্ষিন পেন্নাই গ্রামে ওমান প্রবাসী মো. রুহুল আমিনের বসতবাড়ির চলাচলের রাস্তা বন্ধকরে এবং ওই গ্রামের সরকারী রাস্তার ইট তুলে রাস্তা দখল করে প্রাচীর নির্মান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় প্রবাসী রুহুল আমিনের ছোট ভাই দক্ষিন পেন্নাই গ্রামের মরহুম মজনু মিয়ার ছেল গিয়াস উদ্দিন বাদী হয়ে গৌরীপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

গিয়াস উদ্দিন অভিযোগে উল্লেখ করেন যে, দক্ষিন পেন্নাই গ্রামের মরহুম নুরু মিয়ার ছেলে মো. আলমগীর হোসেন আমার প্রতিবেশী হয়। আমার একই বাড়ীর লোক। তাদের জায়গা জমির সাথে আমার জমি থাকায় আমাদের উভয় পক্ষের বাড়ী হতে বের হওয়া তথা চলাচলের রাস্তা নিয়ে। বিগত অনুমান ৪/৫ বছর যাবৎ আলমগীর হোসেনের সাথে আমার বিরোধ চলে আসতেছে। উক্ত বিষয়ে ইতোপূর্বে আমি আমাদের এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের অবহিত করে স্থানীয় ভাবে আপোস মিমাংসার চেষ্টা করলে আলমগীর স্থানীয়দের বিচার না মেনে। বিভিন্ন ভাবে আমার বাড়ীর মানুষদের চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আমাদেরকে অবরুদ্ধ করার পায়তারা করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় গেল ৮ নভেম্বর সকালে জোরপূর্বক আমার বাড়ী হতে বের হওয়ার রাস্তার ইট দ্বারা ওয়াল নির্মান করে আমাদেরকে অবরুদ্ধ করার চেষ্টা করলে ঐ সময় আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে বাধা প্রদান করলে মোঃ আলমগীর হোসেনসহ তার কয়েকজন সহযোগী আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে মারধর করার জন্য দৌড়ে আসে। আক্রমনাত্মক মারমুখী অবস্থা দেখে আমি ডাক চিৎকার করলে আশেপাশের লোকজন ও আমার পরিবারের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে পড়লে তারা আমাকে মারধর করা হতে বিরত থাকে। এবং আমাকে বলে যে, তার কাছ থেকে আধা শতক জায়গা কিনতে হবে। সেজন্য তাকে ১৫ লাখ টাকা পরিশোধ করতে হবে। না হলে সে আমাদের বাড়ী হতে বের হওয়ার রাস্তায় ইট দ্বারা ওয়াল নির্মান করে স্থায়ী ভাবে আমাদের বাড়ীর লোকজনদের অবরূদ্ধ করে রাখবে। আমি তাদের প্রস্তাবে রাজী না হলে তারা প্রকাশ্যে আমাকে বিভিন্ন প্রকার হুমকী ধমকী প্রদান করে। এবং উক্ত রাস্তার জায়গা নিয়ে প্রয়োজনে আমাকেসহ আমার পরিবারের লোকজনকে খুন জখম করবে। তার এমন কর্মকান্ডে ও হুমকী ধমকীতে আমি বর্তমানে আমার নিজের ও পরিবারের অন্যদের জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সে প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে যেকোন সময় আমাদের যেকোন প্রকার ক্ষতি করতে পারে। এমতাবস্থায় উপরোক্ত ঘটনার আলোকে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করে আমার বাড়ী হতে বের হওয়ার রাস্তাটি অবমুক্ত করার যথাযথ আইনী প্রক্রিয়ায় উদ্ধারের ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

মো. রুহুল আমিন মোবাইল ফোনে জানান, জমিগুলো আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তি।  একটার মধ্যে আমি বসবাস করছি। অপরটি আমার ভাই বিক্রি করে দেয়। এই আলমগীর আমাদের সম্পত্তি ক্রয় করে। সে দুই বছর আগে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে। পরে মামলাটির কোন গ্রহন যোগ্যতা না থাকায় আদালত এটি নিষ্পত্তি করে দেয়। সে আগেও আমাকে হয়রানি করেছে। আমি একজন প্রবাসী। এখন সে আমার রাস্তা বন্ধ করে দিচ্ছে। আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।