০১:১৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের জুতা দিয়ে পেটানোর অভিযোগ

মো: মাসুদ রানা.সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণীর বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে জুতা দিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষিকা রাশিদা খাতুনের বিরুদ্ধে।

এঘটনায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা রোববার (১২ নভেম্বর) দুপুরে বিদ্যালয়ের প্রধান সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।

কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মজিবুর রহমান আজ রোববার রাতে বলেন, অভিযোগের কপি আমি পেয়েছি। দু-একদিনের মধ্যে বিষয়টি লিখিত আকারে উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানাবো। তিনি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

ছাত্র অভিভাবক শফিকুল ইসলাম শফি তার অভিযোগে বলেছেন, আমরা কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র অভিভাবক। আমার ছেলে এবং অন্য অভিভাবক এর ছেলেরা নিয়মিত তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র। কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রাশিদা খাতুন গত ৭ নভেম্বর ক্লাস চলাকালে অহেতুক কারনে ছাত্রদের জুতা দিয়ে মারধর করেন। এধরনের প্রধান শিক্ষিকাকে তার খাম খেয়ালী আচারনের জন্য অতিশীঘ্রই আইন গত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

এবিষয়ে কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রাশিদা খাতুন বলেন, আমি মানুষ গড়ার কারিগর। আমি ছাত্রদের জুতা দিয়ে পেটাতে পারি না। অভিযোগ সত্য নয়। যিনি অভিযোগ করেছেন তার চাচা জালাল উদ্দিন শিক্ষকদের নির্বাচনে সভাপতি পদে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন। তার অভিযোগ আমি তাকে ভোট দেইনি। এর পর থেকে সে আমার উপর ক্ষুব্ধ। আর যে দিন ঘটনার তারিখ উল্লেখ করেছে সে দিন বা তার পরের দিন অভিযোগ দেয়নি। আজ হঠাৎ করে কেন অভিযোগ করলেন। এটি ষড়যন্ত্র।

জনপ্রিয় সংবাদ

টিউশনের নামে প্রতারণার ফাঁদ

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের জুতা দিয়ে পেটানোর অভিযোগ

আপডেট সময় : ১২:৪৮:৪৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ নভেম্বর ২০২৩

মো: মাসুদ রানা.সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণীর বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে জুতা দিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষিকা রাশিদা খাতুনের বিরুদ্ধে।

এঘটনায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা রোববার (১২ নভেম্বর) দুপুরে বিদ্যালয়ের প্রধান সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।

কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মজিবুর রহমান আজ রোববার রাতে বলেন, অভিযোগের কপি আমি পেয়েছি। দু-একদিনের মধ্যে বিষয়টি লিখিত আকারে উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানাবো। তিনি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।

ছাত্র অভিভাবক শফিকুল ইসলাম শফি তার অভিযোগে বলেছেন, আমরা কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র অভিভাবক। আমার ছেলে এবং অন্য অভিভাবক এর ছেলেরা নিয়মিত তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র। কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রাশিদা খাতুন গত ৭ নভেম্বর ক্লাস চলাকালে অহেতুক কারনে ছাত্রদের জুতা দিয়ে মারধর করেন। এধরনের প্রধান শিক্ষিকাকে তার খাম খেয়ালী আচারনের জন্য অতিশীঘ্রই আইন গত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

এবিষয়ে কুন্দইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রাশিদা খাতুন বলেন, আমি মানুষ গড়ার কারিগর। আমি ছাত্রদের জুতা দিয়ে পেটাতে পারি না। অভিযোগ সত্য নয়। যিনি অভিযোগ করেছেন তার চাচা জালাল উদ্দিন শিক্ষকদের নির্বাচনে সভাপতি পদে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন। তার অভিযোগ আমি তাকে ভোট দেইনি। এর পর থেকে সে আমার উপর ক্ষুব্ধ। আর যে দিন ঘটনার তারিখ উল্লেখ করেছে সে দিন বা তার পরের দিন অভিযোগ দেয়নি। আজ হঠাৎ করে কেন অভিযোগ করলেন। এটি ষড়যন্ত্র।