০৮:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সারাদেশে ২০ হাজার কৃষি উদ্যোক্তা তৈরি করবে সরকার

সারাদেশে ২০ হাজার কৃষি উদ্যোক্তা তৈরি করবে সরকার। এজন্য তাদেরকে অন দ্যা জব প্রশিক্ষণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং ইনকিউবেশন সাপোর্টের মাধ্যমে ৫টি কৃষি পণ্যের প্রক্রিয়াজাত ও রফতানি নিশ্চিতে ৭৬০ কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ শুরু করেছে কৃষি বিপনন বিভাগ। আজ মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) রংপুর পর্যটন মোটেলে কৃষি বিপনন অধিদপ্তর আয়োজিত প্রোগ্রাম অন এগ্রিকালচালাল অ্যান্ড রুরাল ট্রান্সফরমেশন ফর নিউট্রিশন, এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স ইন বাংলাদেশ (পার্টনার-ডিএএম অঙ্গ) প্রকল্পের আ লিক বিপনন কর্মশালায় এ তথ্য জানানো হয়। কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের পার্টনার-ডিএম অঙ্গ-এর এজেন্সি প্রোগ্রাম ডিরেক্টর ড. মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল ফারুকের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংস্থার মহাপরিচালক মাসুদ করিম। কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর অ লের অতিরিক্ত পরিচালক ওবায়দুর রহমান মন্ডল, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান, বিএডিসি বীজ প্রক্রিয়াজাত কেন্দ্রের যুগ্ম পরিচালক আ ফ ম সাইফুল ইসলাম, কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় উপ-পরিচালক এনএম আলমগীর বাদশা।

 

 

স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিপনন অধিদপ্তরের রংপুর অ লের সিনিয়র বিপনন কর্মকর্তা শাহীন আহম্মেদ। কর্মশালায় প্রবন্ধের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে দুটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পার্টনার (ডিএএম অঙ্গ) এর সিনিয়র মনিটরিং অফিসার রশিদুল ইসলাম ও ডেপুটি প্রোগ্রাম ডিরেক্টর মাসুদ রানা।

 

 

কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, এই প্রকল্পের আওতায় ক্রমহ্রাসমান কৃষি জমি, ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা ও তার চাহিদার বিপরীতে জিডিপিতে ধনাত্বক ধারা অব্যাহত রাখতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর মাধ্যমে কৃষি উদ্যোক্তা তৈরি, প্রণোদনা ও অনুপ্রেরণা প্রদান, মনিটরিং আম, কাঁঠাল, আলু, টমেটো ও সুগন্ধি চালসহ বিভিন্ন কৃষিপন্যের স্টোকহোল্ডারদের সমন্বয়ে ভ্যালু চেইন প্রমোশোনাল প্লাটফর্ম গঠন করা হবে। এছাড়াও সে অনুযায়ী সেবা প্রদান, দেশে লাভজনক ও পুস্টিকর অপরিচিক ফসল সমূহ উৎপাদন প্রচারণার মাধ্যমে কৃষকদের উৎসাহ প্রদান এবং এলাকাভিত্তিক কৃষক, প্রশিক্ষক ও অংশীজনতের নিয়ে প্রশিক্ষণ সেমিনার, কর্মশালা, এবং সভা আয়োজনসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত হবে।

 

 

মহাপরিচালক মাসুদ করিম আরও বলেন, ৫ বছর ব্যাপী প্রকল্পের মেয়াদে কৃষি ব্যবসায় যুবক ও নারীদের উৎসাহিত করতে ১২ হাজার নারী ও ৮ হাজার যুবকে অন দা জব প্রশিক্ষণ প্রদান এবং কর্মংস্থান তৈরি ও ইউকিউবেশন সাপোর্টের আওতায় আসবে। উদ্যোক্তাদের ব্যবসা নিশ্চিতে যন্ত্রপাতি ও উপকরণ ক্রয়ের জন্য ৭০শতাংশ অর্থ প্রকল্প থেকে অনুদান দেয়া হবে। এছাড়াও ২০০ উপজেলায় ইনপুটে সেবা, পণ্য কালেকশকন পয়েন্ট, প্যাকেজিং ওয়াশিং, পরার্শ সুবিধাসহ পার্টনার ফার্মার্স হাব তৈরি করা হবে। কৃষিপণ্য সংশ্লিষ্ট বাজার কারবারিদের জন্য ৫০০ স্টেকহোল্ডার অর্গানাইজেশন গঠন, আম, কাঁঠাল, আলু টমেটো স্টেকহোল্ডারদের সমন্বয়ে মাল্টি স্টেকহোল্ডার প্লাটফর্ম গঠন ও পরিচালনা করা হবে। প্রকল্পের আওতায় সারাদেশে ৮১ টি শস্য গুড়াম ও ৬০ টি পাইকারী বাজার মেরামত-সংস্কারও ৬টি অফিস কাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের মাধ্যমে বাজার অবকাঠানো উন্নয়ন করা হবে। প্রকল্পের আওতায় রংপুর কৃষি অ লে ৫ জেলার ১৬ উপজেলার ১ হাজার ৩০ জন উদ্যোক্তা তৈরি করা হবে। কর্মশালায় রংপুর কৃষি অ লের কর্মকর্তা, উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

জনপ্রিয় সংবাদ

সারাদেশে ২০ হাজার কৃষি উদ্যোক্তা তৈরি করবে সরকার

আপডেট সময় : ০৮:১৫:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ এপ্রিল ২০২৪

সারাদেশে ২০ হাজার কৃষি উদ্যোক্তা তৈরি করবে সরকার। এজন্য তাদেরকে অন দ্যা জব প্রশিক্ষণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং ইনকিউবেশন সাপোর্টের মাধ্যমে ৫টি কৃষি পণ্যের প্রক্রিয়াজাত ও রফতানি নিশ্চিতে ৭৬০ কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ শুরু করেছে কৃষি বিপনন বিভাগ। আজ মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) রংপুর পর্যটন মোটেলে কৃষি বিপনন অধিদপ্তর আয়োজিত প্রোগ্রাম অন এগ্রিকালচালাল অ্যান্ড রুরাল ট্রান্সফরমেশন ফর নিউট্রিশন, এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স ইন বাংলাদেশ (পার্টনার-ডিএএম অঙ্গ) প্রকল্পের আ লিক বিপনন কর্মশালায় এ তথ্য জানানো হয়। কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের পার্টনার-ডিএম অঙ্গ-এর এজেন্সি প্রোগ্রাম ডিরেক্টর ড. মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল ফারুকের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংস্থার মহাপরিচালক মাসুদ করিম। কর্মশালায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রংপুর অ লের অতিরিক্ত পরিচালক ওবায়দুর রহমান মন্ডল, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান, বিএডিসি বীজ প্রক্রিয়াজাত কেন্দ্রের যুগ্ম পরিচালক আ ফ ম সাইফুল ইসলাম, কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় উপ-পরিচালক এনএম আলমগীর বাদশা।

 

 

স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিপনন অধিদপ্তরের রংপুর অ লের সিনিয়র বিপনন কর্মকর্তা শাহীন আহম্মেদ। কর্মশালায় প্রবন্ধের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে দুটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পার্টনার (ডিএএম অঙ্গ) এর সিনিয়র মনিটরিং অফিসার রশিদুল ইসলাম ও ডেপুটি প্রোগ্রাম ডিরেক্টর মাসুদ রানা।

 

 

কৃষি বিপনন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, এই প্রকল্পের আওতায় ক্রমহ্রাসমান কৃষি জমি, ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা ও তার চাহিদার বিপরীতে জিডিপিতে ধনাত্বক ধারা অব্যাহত রাখতে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর মাধ্যমে কৃষি উদ্যোক্তা তৈরি, প্রণোদনা ও অনুপ্রেরণা প্রদান, মনিটরিং আম, কাঁঠাল, আলু, টমেটো ও সুগন্ধি চালসহ বিভিন্ন কৃষিপন্যের স্টোকহোল্ডারদের সমন্বয়ে ভ্যালু চেইন প্রমোশোনাল প্লাটফর্ম গঠন করা হবে। এছাড়াও সে অনুযায়ী সেবা প্রদান, দেশে লাভজনক ও পুস্টিকর অপরিচিক ফসল সমূহ উৎপাদন প্রচারণার মাধ্যমে কৃষকদের উৎসাহ প্রদান এবং এলাকাভিত্তিক কৃষক, প্রশিক্ষক ও অংশীজনতের নিয়ে প্রশিক্ষণ সেমিনার, কর্মশালা, এবং সভা আয়োজনসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়িত হবে।

 

 

মহাপরিচালক মাসুদ করিম আরও বলেন, ৫ বছর ব্যাপী প্রকল্পের মেয়াদে কৃষি ব্যবসায় যুবক ও নারীদের উৎসাহিত করতে ১২ হাজার নারী ও ৮ হাজার যুবকে অন দা জব প্রশিক্ষণ প্রদান এবং কর্মংস্থান তৈরি ও ইউকিউবেশন সাপোর্টের আওতায় আসবে। উদ্যোক্তাদের ব্যবসা নিশ্চিতে যন্ত্রপাতি ও উপকরণ ক্রয়ের জন্য ৭০শতাংশ অর্থ প্রকল্প থেকে অনুদান দেয়া হবে। এছাড়াও ২০০ উপজেলায় ইনপুটে সেবা, পণ্য কালেকশকন পয়েন্ট, প্যাকেজিং ওয়াশিং, পরার্শ সুবিধাসহ পার্টনার ফার্মার্স হাব তৈরি করা হবে। কৃষিপণ্য সংশ্লিষ্ট বাজার কারবারিদের জন্য ৫০০ স্টেকহোল্ডার অর্গানাইজেশন গঠন, আম, কাঁঠাল, আলু টমেটো স্টেকহোল্ডারদের সমন্বয়ে মাল্টি স্টেকহোল্ডার প্লাটফর্ম গঠন ও পরিচালনা করা হবে। প্রকল্পের আওতায় সারাদেশে ৮১ টি শস্য গুড়াম ও ৬০ টি পাইকারী বাজার মেরামত-সংস্কারও ৬টি অফিস কাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের মাধ্যমে বাজার অবকাঠানো উন্নয়ন করা হবে। প্রকল্পের আওতায় রংপুর কৃষি অ লে ৫ জেলার ১৬ উপজেলার ১ হাজার ৩০ জন উদ্যোক্তা তৈরি করা হবে। কর্মশালায় রংপুর কৃষি অ লের কর্মকর্তা, উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।