০৮:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল শিশুসহ ৫ জন

রাজবাড়ীতে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে শিশুসহ ৫জন ফেঁসে গেছে। রবিবার (২৮ এপ্রিল) সকাল ৭টার দিকে পুলিশ এ ঘটনার সাথে জড়িত ৪জনকে গ্রেপ্তার করেছে। এসময় একটি লোহার তৈরী দেশীয় ওয়ান শ্যুটার গান উদ্ধার করা হয়।

 

 

 

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, রাজবাড়ী সদর উপজেলার বড় চরবেনীনগর গ্রামের মৃত আঃ আজিজ শেখের ছেলে মিরাজ শেখ (২৭), দয়ালনগর গ্রামের আঃ কাদের শেখের ছেলে মোঃ শাকিল শেখ (২৮), রেল কলোনী ভবানীপুরের মোঃ ছালাম মোল্লার ছেলে রানা মোল্লা (২৯) ও বড় চরবেনীনগর গ্রামের মোঃ লিটন বিশ্বাসের ছেলে আইনের সহিত সংঘাতে জড়িত শিশু মোঃ রনি বিশ্বাস (১৭)।

 

 

রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান খান বলেন, রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর গ্রামের সাব্বির সরদারের হেফাজতে একটি অবৈধ অস্ত্র আছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে এসআই মোঃ হাসানুর রহমান সঙ্গীয় অফিসার ফোর্সসহ বিষয়টি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে সত্যতা যাচাই এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ভোর রাত ৫টার সময় সাব্বির সরদারের বাড়ীতে পৌছে বসত ঘর তল্লাশী করেন। কিন্তু তার বসত ঘরে কিছুই না পেয়ে একটি নীল সিজার লিস্ট প্রস্তুত করে ডিবি অফিসে ফিরে যাওয়ার পথে সোর্সকে পেয়ে পূনরায় জিজ্ঞাসা করলে সে জানায় সাব্বিরের বাড়ীতে ঢুকতে বামপাশে মোঃ আক্তার হোসেনের গোয়াল ঘরের দক্ষিণ পার্শ্বে বাতাবি লেবু গাছের গোড়ায় বাঁশের পাতা দিয়ে ঢেকে রাখা আছে।

 

 

সোর্সের এমন তথ্যে এবং কথায় সন্দেহ হলে সোর্স কে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে তার নাম মিরাজ শেখ বলে জানায়। ধৃত সোর্স মিরাজ শেখকে সাথে নিয়ে পূনরায় সাব্বিরের বাড়ীতে গিয়ে তার দেখানো যায়গা থেকে একটি সপিং ব্যাগের ভিতর নীল রংয়ের ছেড়া টি শার্ট দ্বারা মোড়ানো একটি লোহার তৈরী দেশীয় সচল ওয়ান শ্যূটার গান নিজ হাতে বের করে দেওয়া মতে জব্দ করা হয়।

 

 

ধৃত মিরাজকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায় অস্ত্রটি তাকে দয়ালনগর এলাকার শাকিল ১৫-২০ দিন আগে রোজার মধ্যে দিয়েছে এবং বলেছে সাব্বিরকে এ অস্ত্রটি সহ পুলিশের নিকট ধরিয়ে দিতে পারলে শাকিল মিরাজকে ভাল একটা খরচ দিবে। তখন শাকিলের দেওয়া অস্ত্রটি নিয়ে মিরাজ রানার নিকট রেখে আসে। শনিবার রাত ৯ টার সময় মিরাজ রানাকে অস্ত্রটি নিয়ে তার কাছে আসতে বললে রানা অস্ত্রটি নিয়ে রাত সাড়ে ৯ টার সময় বড় চরবেনীনগর মিরাজের কাছে আসে। মিরাজ অস্ত্রটি নিয়ে রনির হাতে দেয় এবং বলে অস্ত্রটি যেন সাব্বিরের বাড়ীতে রেখে আসে। রনি তার সঙ্গীয় রানাকে সাথে নিয়ে পলাতক ব্যক্তির মোটর সাইকেলে করে রাত ১০ টার সময় সাব্বিরের বাড়ীর সামনে যায়। মিরাজের কথা মতো রনি অস্ত্রটি সাব্বিরের বাড়ীতে বাতাবি লেবু গাছের গোড়ায় বাঁশের পাতা দিয়ে ঢেকে রেখে আসে। তখন বিষয়টি সোর্স মিরাজ পুলিশকে জানায়।

 

 

ডিবির ওসি বলেন, পরে ভোর সোয়া ৬ টা থেকে সকাল সোয়া ৭ টার মধ্যে আসামী মোঃ শাকিল শেখ, রানা মোল্লা ও শিশু মোঃ রনি বিশ্বাসকে আটক করেন। তাদের সকলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা লোকজনের সামনে ঘটনার কথা স্বীকার করে।

এছাড়াও ধৃতরা এলাকায় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে চাঁদাবাজি, ত্রাসের রাজত্ব সহ আধিপত্য বিস্তার করে বিভিন্ন ধরণের অপরাধমূলক কর্মকান্ড করে এবং এলাকায় যখনই কোন ঘটনা ঘটে তখন তারা অস্ত্র হাতে মহড়া দিত বলে অভিযোগ আছে।
এ ব্যাপারে জেলা গোয়েন্দা শাখার সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) মোঃ হাসানুর রহমান বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে সদর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সহযোগীতার আহ্বান এডিসি তৌহিদুল ইসলামের

রাজবাড়ীতে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ফেঁসে গেল শিশুসহ ৫ জন

আপডেট সময় : ০৬:১৬:০৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৪

রাজবাড়ীতে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে শিশুসহ ৫জন ফেঁসে গেছে। রবিবার (২৮ এপ্রিল) সকাল ৭টার দিকে পুলিশ এ ঘটনার সাথে জড়িত ৪জনকে গ্রেপ্তার করেছে। এসময় একটি লোহার তৈরী দেশীয় ওয়ান শ্যুটার গান উদ্ধার করা হয়।

 

 

 

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, রাজবাড়ী সদর উপজেলার বড় চরবেনীনগর গ্রামের মৃত আঃ আজিজ শেখের ছেলে মিরাজ শেখ (২৭), দয়ালনগর গ্রামের আঃ কাদের শেখের ছেলে মোঃ শাকিল শেখ (২৮), রেল কলোনী ভবানীপুরের মোঃ ছালাম মোল্লার ছেলে রানা মোল্লা (২৯) ও বড় চরবেনীনগর গ্রামের মোঃ লিটন বিশ্বাসের ছেলে আইনের সহিত সংঘাতে জড়িত শিশু মোঃ রনি বিশ্বাস (১৭)।

 

 

রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান খান বলেন, রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকৃষ্ণপুর গ্রামের সাব্বির সরদারের হেফাজতে একটি অবৈধ অস্ত্র আছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার ভোর পৌনে ৫টার দিকে এসআই মোঃ হাসানুর রহমান সঙ্গীয় অফিসার ফোর্সসহ বিষয়টি উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে সত্যতা যাচাই এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ভোর রাত ৫টার সময় সাব্বির সরদারের বাড়ীতে পৌছে বসত ঘর তল্লাশী করেন। কিন্তু তার বসত ঘরে কিছুই না পেয়ে একটি নীল সিজার লিস্ট প্রস্তুত করে ডিবি অফিসে ফিরে যাওয়ার পথে সোর্সকে পেয়ে পূনরায় জিজ্ঞাসা করলে সে জানায় সাব্বিরের বাড়ীতে ঢুকতে বামপাশে মোঃ আক্তার হোসেনের গোয়াল ঘরের দক্ষিণ পার্শ্বে বাতাবি লেবু গাছের গোড়ায় বাঁশের পাতা দিয়ে ঢেকে রাখা আছে।

 

 

সোর্সের এমন তথ্যে এবং কথায় সন্দেহ হলে সোর্স কে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে তার নাম মিরাজ শেখ বলে জানায়। ধৃত সোর্স মিরাজ শেখকে সাথে নিয়ে পূনরায় সাব্বিরের বাড়ীতে গিয়ে তার দেখানো যায়গা থেকে একটি সপিং ব্যাগের ভিতর নীল রংয়ের ছেড়া টি শার্ট দ্বারা মোড়ানো একটি লোহার তৈরী দেশীয় সচল ওয়ান শ্যূটার গান নিজ হাতে বের করে দেওয়া মতে জব্দ করা হয়।

 

 

ধৃত মিরাজকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায় অস্ত্রটি তাকে দয়ালনগর এলাকার শাকিল ১৫-২০ দিন আগে রোজার মধ্যে দিয়েছে এবং বলেছে সাব্বিরকে এ অস্ত্রটি সহ পুলিশের নিকট ধরিয়ে দিতে পারলে শাকিল মিরাজকে ভাল একটা খরচ দিবে। তখন শাকিলের দেওয়া অস্ত্রটি নিয়ে মিরাজ রানার নিকট রেখে আসে। শনিবার রাত ৯ টার সময় মিরাজ রানাকে অস্ত্রটি নিয়ে তার কাছে আসতে বললে রানা অস্ত্রটি নিয়ে রাত সাড়ে ৯ টার সময় বড় চরবেনীনগর মিরাজের কাছে আসে। মিরাজ অস্ত্রটি নিয়ে রনির হাতে দেয় এবং বলে অস্ত্রটি যেন সাব্বিরের বাড়ীতে রেখে আসে। রনি তার সঙ্গীয় রানাকে সাথে নিয়ে পলাতক ব্যক্তির মোটর সাইকেলে করে রাত ১০ টার সময় সাব্বিরের বাড়ীর সামনে যায়। মিরাজের কথা মতো রনি অস্ত্রটি সাব্বিরের বাড়ীতে বাতাবি লেবু গাছের গোড়ায় বাঁশের পাতা দিয়ে ঢেকে রেখে আসে। তখন বিষয়টি সোর্স মিরাজ পুলিশকে জানায়।

 

 

ডিবির ওসি বলেন, পরে ভোর সোয়া ৬ টা থেকে সকাল সোয়া ৭ টার মধ্যে আসামী মোঃ শাকিল শেখ, রানা মোল্লা ও শিশু মোঃ রনি বিশ্বাসকে আটক করেন। তাদের সকলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা লোকজনের সামনে ঘটনার কথা স্বীকার করে।

এছাড়াও ধৃতরা এলাকায় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে চাঁদাবাজি, ত্রাসের রাজত্ব সহ আধিপত্য বিস্তার করে বিভিন্ন ধরণের অপরাধমূলক কর্মকান্ড করে এবং এলাকায় যখনই কোন ঘটনা ঘটে তখন তারা অস্ত্র হাতে মহড়া দিত বলে অভিযোগ আছে।
এ ব্যাপারে জেলা গোয়েন্দা শাখার সাব-ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) মোঃ হাসানুর রহমান বাদী হয়ে ৫জনকে আসামী করে সদর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।