০৬:১৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বেরোবির ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় সড়ক অবরোধ

 বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় দুই গ্রুপের কর্মীরা বিচারের দাবিতে কিছু সময়ের জন্য রংপুর-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে।

গত ২৯ এপ্রিল সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন পার্কের মোড়ে সংঘর্ষ হয়। জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ স¤পাদক গ্রুপের কর্মী ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী রিমু রায় এবং একই বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মুন্না হাসান লিয়নের সঙ্গে সভাপতি গ্রুপের ছাত্রলীগ কর্মী পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী পিপাসের কথা কাটাকাটি হয়।

কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে পিপাস রড দিয়ে রিমুর পিঠে আঘাত করলে স¤পাদক গ্রুপের কর্মীরা রড কেড়ে নিয়ে পিপাসকে এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। পিপাস ও তার সঙ্গে থাকা বন্ধু আহত হলে তারা অন্যান্য বন্ধুদের সংবাদ দেয় তখন রিমু ও লিয়ন স্থান ত্যাগ করে। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের প্রায় শতাধিক ছাত্রলীগের কর্মীর মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এ ঘটনায় ৩ জন আহত হন।

এ সময় সভাপতি গ্রুপের কর্মীরা স¤পাদক গ্রুপের কর্মীদের বিচার চেয়ে ঢাকা-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে। এ বিষয়ে বেরোবি ছাত্রলীগের সভাপতি পোমেল বড়ুয়া ও সাধারণ স¤পাদক শামীম মাহফুজের সাথে কোন যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর শরিফুল ইসলাম বলেন, শুনলাম আগের কোনো ঘটনার জেরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী লিয়ন আর রিমু পিপাসকে মেরেছে। বিষয়টি জানার চেষ্টা করছি।

ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবেলায় কতটুকু প্রস্তুত পবিপ্রবি?

বেরোবির ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় সড়ক অবরোধ

আপডেট সময় : ০৮:১৭:০১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৪

 বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় দুই গ্রুপের কর্মীরা বিচারের দাবিতে কিছু সময়ের জন্য রংপুর-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে।

গত ২৯ এপ্রিল সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন পার্কের মোড়ে সংঘর্ষ হয়। জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ স¤পাদক গ্রুপের কর্মী ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী রিমু রায় এবং একই বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মুন্না হাসান লিয়নের সঙ্গে সভাপতি গ্রুপের ছাত্রলীগ কর্মী পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী পিপাসের কথা কাটাকাটি হয়।

কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে পিপাস রড দিয়ে রিমুর পিঠে আঘাত করলে স¤পাদক গ্রুপের কর্মীরা রড কেড়ে নিয়ে পিপাসকে এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। পিপাস ও তার সঙ্গে থাকা বন্ধু আহত হলে তারা অন্যান্য বন্ধুদের সংবাদ দেয় তখন রিমু ও লিয়ন স্থান ত্যাগ করে। এ সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের প্রায় শতাধিক ছাত্রলীগের কর্মীর মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এ ঘটনায় ৩ জন আহত হন।

এ সময় সভাপতি গ্রুপের কর্মীরা স¤পাদক গ্রুপের কর্মীদের বিচার চেয়ে ঢাকা-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে। এ বিষয়ে বেরোবি ছাত্রলীগের সভাপতি পোমেল বড়ুয়া ও সাধারণ স¤পাদক শামীম মাহফুজের সাথে কোন যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর শরিফুল ইসলাম বলেন, শুনলাম আগের কোনো ঘটনার জেরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী লিয়ন আর রিমু পিপাসকে মেরেছে। বিষয়টি জানার চেষ্টা করছি।