০৬:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কাজ বন্ধ করতে বলায় সরকারি কর্মকর্তাকে হুমকি: থানায় অভিযোগ

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার অষ্টমনিষা ইউনিয়নের রুপসী বাজার এলাকার গুমানি নদীর খেয়া ঘাট সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) প্রায় দেড় বিঘা জায়গা দখল করে করাতকল নির্মাণ করেছেন সায়দার আলী নামের এক ব্যক্তি।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গুমানি নদীর খেয়া ঘাটের রাস্তা ঘেঁষে প্রায় দেড় বিঘা জায়গা দীর্ঘদিন ধরে দখল করে রেখেছেন সায়দার। সম্প্রতি তিনি ওই জায়গাটির কিছু অংশ এলাকার এক বালু ব্যবসায়ীর নিকট মাসিক চুক্তিতে ভাড়া দেন। করাতকল বসানোর কাজ শুরু করেন নিজেই।
এলাকার লোকজন খেয়া ঘাটের চলাচলের রাস্তা ঘেঁষে করাতকল না বসানোর জন্য তাকে অনুরোধ করেলেও কথা রাখেননি সায়দার।
বিষয়টি জানতে পেরে গত ২৯ এপ্রিল ওই জায়গা পরিদর্শন করেন, পাবনা অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলামিন হোসেন। ফিরে গিয়ে তিনি পাউবোর নিজস্ব প্যাডে নির্বাহী প্রকৌশলী অমিতাভ চৌধুরীর স্বাক্ষরিত উচ্ছেদ নোটিশের অনুলিপি ভাঙ্গুড়া উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বরাবর প্রেরণ করেন।
অভিযুক্ত সায়দার আলী করাতকল বসানোর কথা স্বীকার করে বলেন, নদীর জায়গা দখল করে করাতকল দিচ্ছি। সরকার চাইলে যে কোন সময় ভেঙে দিতে পারবে‌।
এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবোর) পাবনা অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলামিন হোসেন বলেন, নিষেধ করার পরও সায়দার আলী কাজ বন্ধ করেননি। তিনি আমাদের হুমকি দিয়েছেন। তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আদেশে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে রাশিয়ান বিনিয়োগের আহ্বান ঢাকা চেম্বারের

কাজ বন্ধ করতে বলায় সরকারি কর্মকর্তাকে হুমকি: থানায় অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৪:৪৯:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪
পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার অষ্টমনিষা ইউনিয়নের রুপসী বাজার এলাকার গুমানি নদীর খেয়া ঘাট সংলগ্ন পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) প্রায় দেড় বিঘা জায়গা দখল করে করাতকল নির্মাণ করেছেন সায়দার আলী নামের এক ব্যক্তি।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গুমানি নদীর খেয়া ঘাটের রাস্তা ঘেঁষে প্রায় দেড় বিঘা জায়গা দীর্ঘদিন ধরে দখল করে রেখেছেন সায়দার। সম্প্রতি তিনি ওই জায়গাটির কিছু অংশ এলাকার এক বালু ব্যবসায়ীর নিকট মাসিক চুক্তিতে ভাড়া দেন। করাতকল বসানোর কাজ শুরু করেন নিজেই।
এলাকার লোকজন খেয়া ঘাটের চলাচলের রাস্তা ঘেঁষে করাতকল না বসানোর জন্য তাকে অনুরোধ করেলেও কথা রাখেননি সায়দার।
বিষয়টি জানতে পেরে গত ২৯ এপ্রিল ওই জায়গা পরিদর্শন করেন, পাবনা অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলামিন হোসেন। ফিরে গিয়ে তিনি পাউবোর নিজস্ব প্যাডে নির্বাহী প্রকৌশলী অমিতাভ চৌধুরীর স্বাক্ষরিত উচ্ছেদ নোটিশের অনুলিপি ভাঙ্গুড়া উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বরাবর প্রেরণ করেন।
অভিযুক্ত সায়দার আলী করাতকল বসানোর কথা স্বীকার করে বলেন, নদীর জায়গা দখল করে করাতকল দিচ্ছি। সরকার চাইলে যে কোন সময় ভেঙে দিতে পারবে‌।
এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবোর) পাবনা অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী আলামিন হোসেন বলেন, নিষেধ করার পরও সায়দার আলী কাজ বন্ধ করেননি। তিনি আমাদের হুমকি দিয়েছেন। তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আদেশে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।