০৬:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে পুলিশ সুপার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী

খাগড়াছড়িতে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে পুলিশ সুপার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার বিকেলে খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইন্স মাঠে বেলুন উড়িয়ে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২৪ ফাইনাল খেলা এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এর শুভ উদ্বোধন করেছেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।
এ খেলায় পুলিশ সদস্যদের মধ্য হতে ০৪ (চার)টি দল অংশ গ্রহন করেছে।  যথাক্রমে পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ, রিজার্ভ অফিস একাদশ, মেজর অফিস একাদশ, পুলিশ লাইন্স একাদশ অংশগ্রহণ করে। উক্ত টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্ব শেষে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে অবস্থান করে ফাইনাল খেলার যোগ্যতা অর্জন করে পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ বনাম রিজার্ভ অফিস একাদশ।
পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ এর অধিনায়কত্ব করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মোঃ জসীম উদ্দিন পিপিএম এবং রিজার্ভ অফিস একাদশ এর অধিনায়কত্ব করেন সহাকারি পুলিশ সুপার সৈয়দ মুমিদ রায়হান। “পুলিশ সুপার কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট-২০২৪খ্রি.” চ্যাম্পিয়ন হয় রিজার্ভ অফিস একাদশ, রানার্স-আপ হয় পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ ।
খেলা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন পুলিশ সুপার মুক্ত ধর পিপিএম (বার)।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার বলেন,
ক্রীড়া প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমাদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বাংলাদেশ পুলিশের ক্রীড়াবিদেরা নৈপূণ্য প্রদর্শন করে ক্রীড়া ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পুলিশের অবস্থান সুদৃঢ় করেছে। নিজেদের মধ্যে শৃঙ্খলাবোধ জাগ্রত হয় যা পুলিশ সদস্যদের পেশাগত উৎকর্ষ সাধনে অত্যন্ত জরুরি।সুস্থ মানসিক চর্চায় খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই। খেলাধুলা আমাদের শরীরকে সুস্থ্য ও সবল রাখে। খেলাধুলা শুধুমাত্র আনন্দের বিষয় নয়,এর সাথে সম্পর্ক রয়েছে দৈহিক সুস্ত্যতা ও মানসিক পরিতৃপ্তি। সুন্দর ও সুস্থ জীবনের জন্য খেলাধুলার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। আনন্দ বিকাশের এ ধরনের খেলাধুলার আয়োজন ভবিষ্যতে চলমান থাকবে।
খেলায় অংশগ্রহণ করা পুলিশ সদস্যরা বলেন,  পুলিশ সুপার মুক্তাধর স্যার আমাদের জন্য এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছেন। এজন্য স্যারের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। আমরা চাই সব সময় যেন এ ধরনের খেলাধুলার আয়োজন করা হয় যাতে আমাদের কর্মের পাশাপাশি আমাদের খেলার  একটি ব্যবস্থা সব সময় থাকে।
দর্শকরা বলেন, খেলাধুলা হচ্ছে ভ্রাতৃত্ব বন্ধন তৈরির জায়গা। খেলাধুলা থেকে যে নির্মল আনন্দ পাওয়া যায় তা উপলব্ধি করে স্যার এই ধরনের আনন্দের আয়োজন করেছেন এজন্য স্যারকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
উক্ত ফাইনাল ম্যাচে দর্শক হিসাবে জেলা পুলিশের বিভিন্ন পদমর্যাদার সদস্যরা উপস্থিত থেকে খেলাটি উপভোগ করেন।

জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে রাশিয়ান বিনিয়োগের আহ্বান ঢাকা চেম্বারের

জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে পুলিশ সুপার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী

আপডেট সময় : ০৯:৩৬:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০২৪
খাগড়াছড়িতে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে পুলিশ সুপার ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।
শুক্রবার বিকেলে খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইন্স মাঠে বেলুন উড়িয়ে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২৪ ফাইনাল খেলা এবং পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এর শুভ উদ্বোধন করেছেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।
এ খেলায় পুলিশ সদস্যদের মধ্য হতে ০৪ (চার)টি দল অংশ গ্রহন করেছে।  যথাক্রমে পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ, রিজার্ভ অফিস একাদশ, মেজর অফিস একাদশ, পুলিশ লাইন্স একাদশ অংশগ্রহণ করে। উক্ত টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্ব শেষে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে অবস্থান করে ফাইনাল খেলার যোগ্যতা অর্জন করে পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ বনাম রিজার্ভ অফিস একাদশ।
পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ এর অধিনায়কত্ব করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মোঃ জসীম উদ্দিন পিপিএম এবং রিজার্ভ অফিস একাদশ এর অধিনায়কত্ব করেন সহাকারি পুলিশ সুপার সৈয়দ মুমিদ রায়হান। “পুলিশ সুপার কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট-২০২৪খ্রি.” চ্যাম্পিয়ন হয় রিজার্ভ অফিস একাদশ, রানার্স-আপ হয় পুলিশ লাইন্স খেলোয়ার একাদশ ।
খেলা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন পুলিশ সুপার মুক্ত ধর পিপিএম (বার)।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার বলেন,
ক্রীড়া প্রতিযোগিতার মাধ্যমে আমাদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বাংলাদেশ পুলিশের ক্রীড়াবিদেরা নৈপূণ্য প্রদর্শন করে ক্রীড়া ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পুলিশের অবস্থান সুদৃঢ় করেছে। নিজেদের মধ্যে শৃঙ্খলাবোধ জাগ্রত হয় যা পুলিশ সদস্যদের পেশাগত উৎকর্ষ সাধনে অত্যন্ত জরুরি।সুস্থ মানসিক চর্চায় খেলাধুলার কোন বিকল্প নেই। খেলাধুলা আমাদের শরীরকে সুস্থ্য ও সবল রাখে। খেলাধুলা শুধুমাত্র আনন্দের বিষয় নয়,এর সাথে সম্পর্ক রয়েছে দৈহিক সুস্ত্যতা ও মানসিক পরিতৃপ্তি। সুন্দর ও সুস্থ জীবনের জন্য খেলাধুলার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। আনন্দ বিকাশের এ ধরনের খেলাধুলার আয়োজন ভবিষ্যতে চলমান থাকবে।
খেলায় অংশগ্রহণ করা পুলিশ সদস্যরা বলেন,  পুলিশ সুপার মুক্তাধর স্যার আমাদের জন্য এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছেন। এজন্য স্যারের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। আমরা চাই সব সময় যেন এ ধরনের খেলাধুলার আয়োজন করা হয় যাতে আমাদের কর্মের পাশাপাশি আমাদের খেলার  একটি ব্যবস্থা সব সময় থাকে।
দর্শকরা বলেন, খেলাধুলা হচ্ছে ভ্রাতৃত্ব বন্ধন তৈরির জায়গা। খেলাধুলা থেকে যে নির্মল আনন্দ পাওয়া যায় তা উপলব্ধি করে স্যার এই ধরনের আনন্দের আয়োজন করেছেন এজন্য স্যারকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
উক্ত ফাইনাল ম্যাচে দর্শক হিসাবে জেলা পুলিশের বিভিন্ন পদমর্যাদার সদস্যরা উপস্থিত থেকে খেলাটি উপভোগ করেন।