১২:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
জিপিএ ৫ পেল একজন, ফেল থেকে পাস ১০২

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে ফলাফল চ্যালেঞ্জ

২০২৪ সালে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার ২৮ হাজার ৩৫১ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২ হাজার ৬০ জনের ফল পরিবর্তন হয়েছে, যা গতবারের তুলনায় দ্বিগুণ। সেইসাথে নতুন করে ফেল থেকে পাস করেছে ১০২ জন। আবার ফেল থেকে একজন জিপিএ ৫ পেয়েছে বলে জানিয়েছেন বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এএমএম মুজিবুর রহমান।

মঙ্গলবার (১১ জুন) শিক্ষা বোর্ডের নিজস্ব ওয়েবসাইটে এ ফলাফল প্রকাশ করা হয়। গতবারের তুলনায় এবার পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন বেশি হওয়ায় ফলাফল পরিবর্তনে ব্যবধান দেখা গেছে।

বোর্ড সংশ্লিষ্টদের দাবি, অন্যান্য বছরের চেয়ে ২০২৪ সালে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার বাড়লেও জিপিএ ৫ কমেছে। এবারে, উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণের জন্য ২৮ হাজার ৩৫১ জন পরীক্ষার্থী আবেদন করে। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ৭৬ হাজার ৪২টি উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণ করা হয়। এদের মধ্যে ফল পরিবর্তন হয়েছে ২ হাজার ৬০ জনের। গতবার (২০২৩ সাল) ১ হাজার ৮০ জনের ফল পরিবর্তন হয়েছিল।

এদিকে, উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে মোট নম্বর বেড়েছে কিন্তু গ্রেড পয়েন্ট বাড়েনি এমন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ১৮৯ জন। আবার গ্রেড পয়েন্ট বেড়েছে এমন পরীক্ষার্থী ৮৭১ জন। গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু সিজিপিএ পরিবর্তন হয়নি এমন সংখ্যা ১৬৫। সেইসাথে জিপিএ ও সিজিপিএ দুটোই বেড়েছে এমন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৭০৬।

তবে ফেল থেকে ফেল রয়ে গেছে কিন্তু নম্বর বেড়েছে এমন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবার একজনও নেই। এমনকি গ্রেড পরিবর্তন হয়ে জিপিএ ৫ পেয়েছে এমন পরীক্ষার্থীও এবার ছিল না।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এএমএম মুজিবুর রহমান বলেন, ‘উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণ শেষে ফল পরিবর্তন হয়েছে ২ হাজার ৬০ জন পরীক্ষার্থীর। আর ফেল থেকে পাস করেছে ১০২ জন। সেইসাথে ফেল থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে একজন।’

জনপ্রিয় সংবাদ

টিউশনের নামে প্রতারণার ফাঁদ

জিপিএ ৫ পেল একজন, ফেল থেকে পাস ১০২

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে ফলাফল চ্যালেঞ্জ

আপডেট সময় : ০৪:৫২:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

২০২৪ সালে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার ২৮ হাজার ৩৫১ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২ হাজার ৬০ জনের ফল পরিবর্তন হয়েছে, যা গতবারের তুলনায় দ্বিগুণ। সেইসাথে নতুন করে ফেল থেকে পাস করেছে ১০২ জন। আবার ফেল থেকে একজন জিপিএ ৫ পেয়েছে বলে জানিয়েছেন বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এএমএম মুজিবুর রহমান।

মঙ্গলবার (১১ জুন) শিক্ষা বোর্ডের নিজস্ব ওয়েবসাইটে এ ফলাফল প্রকাশ করা হয়। গতবারের তুলনায় এবার পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন বেশি হওয়ায় ফলাফল পরিবর্তনে ব্যবধান দেখা গেছে।

বোর্ড সংশ্লিষ্টদের দাবি, অন্যান্য বছরের চেয়ে ২০২৪ সালে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার বাড়লেও জিপিএ ৫ কমেছে। এবারে, উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণের জন্য ২৮ হাজার ৩৫১ জন পরীক্ষার্থী আবেদন করে। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ৭৬ হাজার ৪২টি উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণ করা হয়। এদের মধ্যে ফল পরিবর্তন হয়েছে ২ হাজার ৬০ জনের। গতবার (২০২৩ সাল) ১ হাজার ৮০ জনের ফল পরিবর্তন হয়েছিল।

এদিকে, উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণে মোট নম্বর বেড়েছে কিন্তু গ্রেড পয়েন্ট বাড়েনি এমন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ১৮৯ জন। আবার গ্রেড পয়েন্ট বেড়েছে এমন পরীক্ষার্থী ৮৭১ জন। গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু সিজিপিএ পরিবর্তন হয়নি এমন সংখ্যা ১৬৫। সেইসাথে জিপিএ ও সিজিপিএ দুটোই বেড়েছে এমন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৭০৬।

তবে ফেল থেকে ফেল রয়ে গেছে কিন্তু নম্বর বেড়েছে এমন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবার একজনও নেই। এমনকি গ্রেড পরিবর্তন হয়ে জিপিএ ৫ পেয়েছে এমন পরীক্ষার্থীও এবার ছিল না।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এএমএম মুজিবুর রহমান বলেন, ‘উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণ শেষে ফল পরিবর্তন হয়েছে ২ হাজার ৬০ জন পরীক্ষার্থীর। আর ফেল থেকে পাস করেছে ১০২ জন। সেইসাথে ফেল থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে একজন।’