০১:১৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চায় না যুক্তরাষ্ট্র : পেন্টাগন

জর্ডানে ড্রোন হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের নিহত তিন সেনার পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে। দেশটির সিরিয়া সীমান্তবর্তী একটি সামরিক ঘাঁটিতে ওই ড্রোন হামলায় আহত হয়েছেন আরো ৪০ জনেরও বেশি। এ ঘটনায় যুদ্ধের শঙ্কা দেখা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে।

তবে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন জানিয়েছে, এই মুহূর্তে তারা ইরানের সঙ্গে যুদ্ধে জড়াতে চাইছে না। যদিও নিজে দেশের সেনাদের রক্ষা করার জন্য ‘সব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ’ নেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন।

মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া গোষ্ঠীর জর্ডানে প্রাণঘাতী ড্রোন হামলার পরে যুক্তরাষ্ট্র তার সৈন্যদের রক্ষা করার জন্য ‘সব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ’ নেবে বলে সোমবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন। যদিও প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন জোর দিয়ে বলছে, তারা ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চাইছে না।

গত রোববারের ওই হামলায় তিন মার্কিন সেনা নিহত এবং ৪০ জনেরও বেশি সেনা আহত হয়। পরদিন সোমবার মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনে প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন বলেন, ‘জর্ডানে তিন সাহসী মার্কিন সেনার মৃত্যু এবং আহত অন্যান্য সৈন্যদের জন্য আমার ক্ষোভ এবং দুঃখ দিয়ে (কথা) শুরু করা যাক।’ পেন্টাগনে ন্যাটো সেক্রেটারি জেনারেল জেনস স্টলটেনবার্গের সঙ্গে বৈঠকের শুরুতে অস্টিন বলেন, প্রেসিডেন্ট (জো বাইডেন) ও আমি মার্কিন বাহিনীর ওপর কোনো ধরনের হামলা সহ্য করব না এবং আমরা যুক্তরাষ্ট্র এবং আমাদের সৈন্যদের রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের পদক্ষেপ নেব।

আর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেছেন, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যেমন বলেছেন, ‘আমরা হামলার প্রতিক্রিয়া জানাব এবং সেই প্রতিক্রিয়া বহু স্তরীয় হতে পারে, পর্যায়ক্রমে আসতে পারে এবং সময়ের সঙ্গে সঙ্গে চলতে পারে।’

তবে বাইডেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলেছেন, তারা উত্তেজনাকর এই পরিস্থিতি আরো বাড়তে চান না। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইরানও যুদ্ধ চায় না বলে ইঙ্গিত দিয়েছে পেন্টাগন। পেন্টাগনের মুখপাত্র সাবরিনা সিং সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, আমরা অবশ্যই যুদ্ধ চাই না এবং সত্যি বলতে আমরা দেখতে পাচ্ছি না যে, ইরানও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যুদ্ধ করতে চায়। পেন্টাগন বিশ্বাস করে ইরান নিজেও যুদ্ধ চায় না। এছাড়া হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তার মুখপাত্র জন কিরবি বলছেন, আমরা সামরিক উপায়ে ইরানের সঙ্গে সংঘাত চাইছি না।

নিহত ৩ সেনার নাম প্রকাশ
সিরিয়ায় জর্ডান সীমান্তের কাছে ড্রোন হামলায় নিহত তিন সেনার নাম প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তারা হলেনÑসার্জেন্ট উইলিয়াম জেরোম রিভারস (৪৬), বিশেষজ্ঞ কেনেডি ল্যাডন স্যান্ডার্স (২৪) এবং বিশেষজ্ঞ ব্রেওনা অ্যালেক্সসন্ড্রিয়া মফেট (২৩)। জর্ডানের সিরিয়া সীমান্তবর্তী একটি সামরিক ঘাঁটির হাউসিং ইউনিটে ড্রোন আঘাত করলে তারা নিহত হন। যুক্তরাষ্ট্র এই হামলার জন্য ইরান সমর্থিত গ্রুপগুলোকে দায়ী করে বলেছে, তারা হিজবুল্লাহর ‘পদচিহ্ন’ অনুসরণ করেছে।

বিবিসির মার্কিন অংশীদার সিবিএস নিউজ জানিয়েছে, সামরিক ঘাঁটিতে হামলায় ব্যবহৃত ড্রোনটি ইরানের তৈরি বলে মনে হচ্ছে বলে একজন মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন। তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, এই ড্রোনটি ‘শাহেদ ড্রোনের মতো’। একমুখী এই হামলার ড্রোনটি ইউক্রেনে ব্যবহারের জন্য রাশিয়াকে সরবরাহ করছে ইরান। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের অভিযোগ অস্বীকার করে ইরান এ হামলা চালিয়েছেÑএমন সন্দেহকে নাকচ করে দিয়েছে তেহরান।

 

 

স/মিফা

ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চায় না যুক্তরাষ্ট্র : পেন্টাগন

আপডেট সময় : ১২:১১:৩৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

জর্ডানে ড্রোন হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের নিহত তিন সেনার পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে। দেশটির সিরিয়া সীমান্তবর্তী একটি সামরিক ঘাঁটিতে ওই ড্রোন হামলায় আহত হয়েছেন আরো ৪০ জনেরও বেশি। এ ঘটনায় যুদ্ধের শঙ্কা দেখা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে।

তবে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন জানিয়েছে, এই মুহূর্তে তারা ইরানের সঙ্গে যুদ্ধে জড়াতে চাইছে না। যদিও নিজে দেশের সেনাদের রক্ষা করার জন্য ‘সব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ’ নেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন।

মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া গোষ্ঠীর জর্ডানে প্রাণঘাতী ড্রোন হামলার পরে যুক্তরাষ্ট্র তার সৈন্যদের রক্ষা করার জন্য ‘সব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ’ নেবে বলে সোমবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন। যদিও প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন জোর দিয়ে বলছে, তারা ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চাইছে না।

গত রোববারের ওই হামলায় তিন মার্কিন সেনা নিহত এবং ৪০ জনেরও বেশি সেনা আহত হয়। পরদিন সোমবার মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনে প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন বলেন, ‘জর্ডানে তিন সাহসী মার্কিন সেনার মৃত্যু এবং আহত অন্যান্য সৈন্যদের জন্য আমার ক্ষোভ এবং দুঃখ দিয়ে (কথা) শুরু করা যাক।’ পেন্টাগনে ন্যাটো সেক্রেটারি জেনারেল জেনস স্টলটেনবার্গের সঙ্গে বৈঠকের শুরুতে অস্টিন বলেন, প্রেসিডেন্ট (জো বাইডেন) ও আমি মার্কিন বাহিনীর ওপর কোনো ধরনের হামলা সহ্য করব না এবং আমরা যুক্তরাষ্ট্র এবং আমাদের সৈন্যদের রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের পদক্ষেপ নেব।

আর মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন বলেছেন, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যেমন বলেছেন, ‘আমরা হামলার প্রতিক্রিয়া জানাব এবং সেই প্রতিক্রিয়া বহু স্তরীয় হতে পারে, পর্যায়ক্রমে আসতে পারে এবং সময়ের সঙ্গে সঙ্গে চলতে পারে।’

তবে বাইডেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলেছেন, তারা উত্তেজনাকর এই পরিস্থিতি আরো বাড়তে চান না। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইরানও যুদ্ধ চায় না বলে ইঙ্গিত দিয়েছে পেন্টাগন। পেন্টাগনের মুখপাত্র সাবরিনা সিং সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, আমরা অবশ্যই যুদ্ধ চাই না এবং সত্যি বলতে আমরা দেখতে পাচ্ছি না যে, ইরানও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যুদ্ধ করতে চায়। পেন্টাগন বিশ্বাস করে ইরান নিজেও যুদ্ধ চায় না। এছাড়া হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তার মুখপাত্র জন কিরবি বলছেন, আমরা সামরিক উপায়ে ইরানের সঙ্গে সংঘাত চাইছি না।

নিহত ৩ সেনার নাম প্রকাশ
সিরিয়ায় জর্ডান সীমান্তের কাছে ড্রোন হামলায় নিহত তিন সেনার নাম প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তারা হলেনÑসার্জেন্ট উইলিয়াম জেরোম রিভারস (৪৬), বিশেষজ্ঞ কেনেডি ল্যাডন স্যান্ডার্স (২৪) এবং বিশেষজ্ঞ ব্রেওনা অ্যালেক্সসন্ড্রিয়া মফেট (২৩)। জর্ডানের সিরিয়া সীমান্তবর্তী একটি সামরিক ঘাঁটির হাউসিং ইউনিটে ড্রোন আঘাত করলে তারা নিহত হন। যুক্তরাষ্ট্র এই হামলার জন্য ইরান সমর্থিত গ্রুপগুলোকে দায়ী করে বলেছে, তারা হিজবুল্লাহর ‘পদচিহ্ন’ অনুসরণ করেছে।

বিবিসির মার্কিন অংশীদার সিবিএস নিউজ জানিয়েছে, সামরিক ঘাঁটিতে হামলায় ব্যবহৃত ড্রোনটি ইরানের তৈরি বলে মনে হচ্ছে বলে একজন মার্কিন কর্মকর্তা বলেছেন। তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, এই ড্রোনটি ‘শাহেদ ড্রোনের মতো’। একমুখী এই হামলার ড্রোনটি ইউক্রেনে ব্যবহারের জন্য রাশিয়াকে সরবরাহ করছে ইরান। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের অভিযোগ অস্বীকার করে ইরান এ হামলা চালিয়েছেÑএমন সন্দেহকে নাকচ করে দিয়েছে তেহরান।

 

 

স/মিফা