০৯:২৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
৯ ফেব্রুয়ারি শুরু দ্বিতীয় পর্ব

আখেরি মোনাজাতে ঐক্য শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা

বিশ্ব মুসলিম উম্মার হেদায়েত ঐক্য শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখর হয়ে ওঠে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দান। গতকাল রোববার সকাল ৯টা ১মিনিটে এই মোনাজাত শুরু হয়ে ৯টা ২৩ মিনিটে শেষ হয়। এতে দেশ-বিদেশের লাখো মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা জুবায়ের। এর মধ্য দিয়ে শেষ হয় প্রথম পর্বের তিন দিনব্যাপী বিশ^ ইজতেমা। চার দিন বিরতি দিয়ে আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি একই স্থানে শুরু হবে বিশ^ ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।
প্রথম পর্বের এই ইজতেমায় ৭২ বিয়ে হয়েছে যৌতুকবিহীন। এছাড়া মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের। রোববার সকাল পর্যন্ত একজন পুলিশ সদস্যসহ ওই ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ব ইজতেমার মিডিয়া সেলের প্রধান মো. হাবিবুল্লাহ রায়হান। এদিকে গতকাল বিশ^ ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম, গাজীপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এড. আজমত উল্লা খান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মাহবুবুল আলম ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এড. মো. জাহাঙ্গীর আলম।
এবার বিপুল সংখ্যক নারী মুসল্লিও অংশ নেন আখেরি মোনাজাতে। ইজতেমায় নারীদের অংশ নেওয়ার কোনো বিধান না থাকলেও আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েক হাজার নারী ইজতেমা ময়দানের আশপাশ, বিভিন্ন মিলকারখানা, বাসা-বাড়ি ও বিভিন্ন দালানের ছাদে বসে আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন। ভোর থেকে তারা ইজতেমা ময়দানের পাশে টঙ্গী আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতাল মাঠ, ইজতেমা মাঠের পশ্চিম পাশে কামারপাড়া ও আশপাশের খোলা ময়দানে অবস্থান নেন। আখেরি মোনাজাতের ফজিলত লাভের আশায় তারা মোনাজাতে শরিক হতেই ময়দানের আশপাশের এলাকায় পর্দার সঙ্গে অবস্থান নেন। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে। গাজীপুর মেট্রোপলিটনের পুলিশ কমিশনার মাহবুব আলম জানান, আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে অন্যান্য দিনের চেয়ে দ্বিগুণ ফোর্স মোতায়েন করা হয়। মোনাজাতে লাখ লাখ লোকের সমাগম হয়। সেই কারণে ট্রাফিক ব্যবস্থাও জোরদার করা হয়। শনিবার টঙ্গী ব্রিজ থেকে ভোগড়া বাইপাস, টঙ্গী স্টেশন রোড থেকে মীরেরবাজার পর্যন্ত সব যানবাহন চলাচল বন্ধ কওে দেয়া হয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
মোনাজাত প্রচারের জন্য গণযোগাযোগ অধিদপ্তর ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়। টঙ্গীর রেলওয়ে স্টেশনের কর্মকর্তা মো. রাকিবুর রহমান জানান, বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষ থেকে আখাউড়া, কুমিল্লা ও ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন রুটে প্রায় ১০০টি ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়। এ ছাড়া ১৪টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা এবং আখেরি মোনাজাতের আগে ও পরে সোনার বাংলা, সুবর্ণা, পর্যটক ও কক্সবাজার এই ৪টি বিশেষ ট্রেন ছাড়া সব ট্রেন টঙ্গী স্টেশনে যাত্রা বিরতি করে। উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু হয়।

 

 

 

স/ম

সাংবাদিকের বাসা থেকে দুটি স্মার্ট ফোন চুরি

৯ ফেব্রুয়ারি শুরু দ্বিতীয় পর্ব

আখেরি মোনাজাতে ঐক্য শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা

আপডেট সময় : ১১:৫০:০৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বিশ্ব মুসলিম উম্মার হেদায়েত ঐক্য শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখর হয়ে ওঠে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দান। গতকাল রোববার সকাল ৯টা ১মিনিটে এই মোনাজাত শুরু হয়ে ৯টা ২৩ মিনিটে শেষ হয়। এতে দেশ-বিদেশের লাখো মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা জুবায়ের। এর মধ্য দিয়ে শেষ হয় প্রথম পর্বের তিন দিনব্যাপী বিশ^ ইজতেমা। চার দিন বিরতি দিয়ে আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি একই স্থানে শুরু হবে বিশ^ ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব।
প্রথম পর্বের এই ইজতেমায় ৭২ বিয়ে হয়েছে যৌতুকবিহীন। এছাড়া মৃত্যু হয়েছে ১৯ জনের। রোববার সকাল পর্যন্ত একজন পুলিশ সদস্যসহ ওই ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ব ইজতেমার মিডিয়া সেলের প্রধান মো. হাবিবুল্লাহ রায়হান। এদিকে গতকাল বিশ^ ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো. জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর জেলা প্রশাসক আবুল ফাতে মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম, গাজীপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এড. আজমত উল্লা খান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মাহবুবুল আলম ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এড. মো. জাহাঙ্গীর আলম।
এবার বিপুল সংখ্যক নারী মুসল্লিও অংশ নেন আখেরি মোনাজাতে। ইজতেমায় নারীদের অংশ নেওয়ার কোনো বিধান না থাকলেও আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েক হাজার নারী ইজতেমা ময়দানের আশপাশ, বিভিন্ন মিলকারখানা, বাসা-বাড়ি ও বিভিন্ন দালানের ছাদে বসে আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন। ভোর থেকে তারা ইজতেমা ময়দানের পাশে টঙ্গী আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতাল মাঠ, ইজতেমা মাঠের পশ্চিম পাশে কামারপাড়া ও আশপাশের খোলা ময়দানে অবস্থান নেন। আখেরি মোনাজাতের ফজিলত লাভের আশায় তারা মোনাজাতে শরিক হতেই ময়দানের আশপাশের এলাকায় পর্দার সঙ্গে অবস্থান নেন। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে। গাজীপুর মেট্রোপলিটনের পুলিশ কমিশনার মাহবুব আলম জানান, আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে অন্যান্য দিনের চেয়ে দ্বিগুণ ফোর্স মোতায়েন করা হয়। মোনাজাতে লাখ লাখ লোকের সমাগম হয়। সেই কারণে ট্রাফিক ব্যবস্থাও জোরদার করা হয়। শনিবার টঙ্গী ব্রিজ থেকে ভোগড়া বাইপাস, টঙ্গী স্টেশন রোড থেকে মীরেরবাজার পর্যন্ত সব যানবাহন চলাচল বন্ধ কওে দেয়া হয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি।
মোনাজাত প্রচারের জন্য গণযোগাযোগ অধিদপ্তর ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়। টঙ্গীর রেলওয়ে স্টেশনের কর্মকর্তা মো. রাকিবুর রহমান জানান, বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষ থেকে আখাউড়া, কুমিল্লা ও ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন রুটে প্রায় ১০০টি ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়। এ ছাড়া ১৪টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা এবং আখেরি মোনাজাতের আগে ও পরে সোনার বাংলা, সুবর্ণা, পর্যটক ও কক্সবাজার এই ৪টি বিশেষ ট্রেন ছাড়া সব ট্রেন টঙ্গী স্টেশনে যাত্রা বিরতি করে। উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু হয়।

 

 

 

স/ম