০৮:৫৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সাবেক এমপির গাড়িতে পাচার হচ্ছিল ফেন্সিডিল, আটক ১

বগুড়া থেকে সাবেক এক সংসদ সদস্যর (প্রয়াত এমপি) পাজেরো গাড়িতে করে ফেন্সিডিল ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার সময় সুজন হোসেন (২৯) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা।

এসময় পাজেরো গাড়ি ও গাড়ির ভেতরে থাকা ৪৪২ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ করা হয়েছে। একই সঙ্গে ফেন্সিডিল ক্রয়-বিক্রয়ের কাজে ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন, দুটি সিম কার্ড এবং নগদ ৫ হাজার ২৩২ টাকা জব্দ করা হয়। তবে প্রয়াত এই সাবেক সংসদ সদস্যর পরিচয় প্রকাশ করেনি র‌্যাব।

আজ রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ হেডকোয়ার্টারে এক প্রেস কনফারেন্সে একথা বলেন র‌্যাব-১২ অধিনায়ক মো. মারুফ হোসেন।

এর আগে শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম গোলচত্বর এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাবেক এক সংসদ সদস্যের শুল্কমুক্ত পাজেরো গাড়িসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। গ্র্রেপ্তার সুজন চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানার এখলাছপুর গ্রামের বাবুল হোসেনের ছেলে।

র‌্যাব-১২ অধিনায়ক বলেন, বগুড়া থেকে বিশেষ এক রাজনৈতিক দলের প্রয়াত সংসদ সদস্যের শুল্কমুক্ত পাজেরো জীপে করে ৪৪২ বোতল ফেন্সিডিল পাচার করা হচ্ছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে ১০ ফেব্রুয়ারী দুপুর র‌্যাব-১২ এর একটি আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম গোলচত্বর এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন যানবাহনের তল্লাশী চালানো হয়। তল্লাশী চলাকালে একটি পাজেরো জীপগাড়ি (যার রেজিষ্ট্রেশন নম্বর ঢাকা মেট্রো-ঘ-০২-২৯১৫) আসতে দেখে গাড়িটিকে সংকেত দিয়ে থামিয়ে তল্লাশী করা হয়। এ সময় গাড়িতে থাকা সুজন হোসেনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে স্বীকার করে যে, পাজেরো গাড়ির পেছনে তেলের ট্যাংকির ভেতরে ফেন্সিডিল লুকানো আছে। তার তথ্যেও ভিত্তিতে গাড়ীতে রাখা ফেন্সিডিল সহ গাড়িটি জব্দ করা হয়। এঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

র‌্যাব-১২ অধিনায়ক আরো বলেন, গ্রেপ্তারকৃত মাদক ব্যবসায়ী জিজ্ঞাসাবাদে জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ লোকচক্ষুর আড়ালে বড় বড় মাদকের চালান সিরাজগঞ্জ জেলাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করে আসছিল। তিনি ছাড়াও তার সঙ্গে আরও ব্যাক্তি জড়িত আছেন। এছাড়াও যে সাবেক সংসদ সদস্যের গাড়িটিতে মাদক পাচার হচ্ছিল সেই ব্যাক্তি মারা গেছেন। তিনি বিশেষ একটি রাজনৈতিক দলের এমপি ছিলেন। গাড়িটি মাদক ব্যাবসায়ীর কাছে কীভাবে আসলো এবং কারা কারা এর সাথে জড়িত তা উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।

ফুটপাত থেকে হকার মুক্ত করতে চসিকের ফের অভিযান

সাবেক এমপির গাড়িতে পাচার হচ্ছিল ফেন্সিডিল, আটক ১

আপডেট সময় : ০৩:৫৫:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

বগুড়া থেকে সাবেক এক সংসদ সদস্যর (প্রয়াত এমপি) পাজেরো গাড়িতে করে ফেন্সিডিল ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার সময় সুজন হোসেন (২৯) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা।

এসময় পাজেরো গাড়ি ও গাড়ির ভেতরে থাকা ৪৪২ বোতল ফেন্সিডিল জব্দ করা হয়েছে। একই সঙ্গে ফেন্সিডিল ক্রয়-বিক্রয়ের কাজে ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন, দুটি সিম কার্ড এবং নগদ ৫ হাজার ২৩২ টাকা জব্দ করা হয়। তবে প্রয়াত এই সাবেক সংসদ সদস্যর পরিচয় প্রকাশ করেনি র‌্যাব।

আজ রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১২টার দিকে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ হেডকোয়ার্টারে এক প্রেস কনফারেন্সে একথা বলেন র‌্যাব-১২ অধিনায়ক মো. মারুফ হোসেন।

এর আগে শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম গোলচত্বর এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাবেক এক সংসদ সদস্যের শুল্কমুক্ত পাজেরো গাড়িসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। গ্র্রেপ্তার সুজন চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর থানার এখলাছপুর গ্রামের বাবুল হোসেনের ছেলে।

র‌্যাব-১২ অধিনায়ক বলেন, বগুড়া থেকে বিশেষ এক রাজনৈতিক দলের প্রয়াত সংসদ সদস্যের শুল্কমুক্ত পাজেরো জীপে করে ৪৪২ বোতল ফেন্সিডিল পাচার করা হচ্ছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে ১০ ফেব্রুয়ারী দুপুর র‌্যাব-১২ এর একটি আভিযানিক দল সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম গোলচত্বর এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন যানবাহনের তল্লাশী চালানো হয়। তল্লাশী চলাকালে একটি পাজেরো জীপগাড়ি (যার রেজিষ্ট্রেশন নম্বর ঢাকা মেট্রো-ঘ-০২-২৯১৫) আসতে দেখে গাড়িটিকে সংকেত দিয়ে থামিয়ে তল্লাশী করা হয়। এ সময় গাড়িতে থাকা সুজন হোসেনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে স্বীকার করে যে, পাজেরো গাড়ির পেছনে তেলের ট্যাংকির ভেতরে ফেন্সিডিল লুকানো আছে। তার তথ্যেও ভিত্তিতে গাড়ীতে রাখা ফেন্সিডিল সহ গাড়িটি জব্দ করা হয়। এঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

র‌্যাব-১২ অধিনায়ক আরো বলেন, গ্রেপ্তারকৃত মাদক ব্যবসায়ী জিজ্ঞাসাবাদে জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ লোকচক্ষুর আড়ালে বড় বড় মাদকের চালান সিরাজগঞ্জ জেলাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করে আসছিল। তিনি ছাড়াও তার সঙ্গে আরও ব্যাক্তি জড়িত আছেন। এছাড়াও যে সাবেক সংসদ সদস্যের গাড়িটিতে মাদক পাচার হচ্ছিল সেই ব্যাক্তি মারা গেছেন। তিনি বিশেষ একটি রাজনৈতিক দলের এমপি ছিলেন। গাড়িটি মাদক ব্যাবসায়ীর কাছে কীভাবে আসলো এবং কারা কারা এর সাথে জড়িত তা উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।