০৬:৪৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘যাকাত ফান্ড সমৃদ্ধ হলে দারিদ্র্য বিমোচনে ভূমিকা রাখবে’: বিভাগীয় কমিশনার

বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেছেন, দেশপ্রেম হলো ঈমানের অঙ্গ। যাকাতের উদ্দেশ্য হলো সমাজ থেকে দারিদ্র্যতা নির্মূল করা। তাই সমৃদ্ধ অর্থনীতিতে যাকাতের ভূমিকা অপরিসীম। এক্ষেত্রে সুষ্ঠু আদায় ও বণ্টনের মাধ্যমে যাকাত ফান্ড শক্তিশালী হলে দারিদ্র বিমোচন করা সম্ভব হবে।
সেই লক্ষ্যে যাকাত ব্যবস্থাপনাকে সুশৃঙ্খল করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে সরকার ‘যাকাত তহবিল ব্যবস্থাপনা আইন’ জাতীয় সংসদে পাস করেছেন। তাই যাকাত ফান্ডকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলা সকল সামর্থবান নাগরিকের নৈতিক দায়িত্ব। সোমবার (২৫ মার্চ) সকালে রাজশাহী ইসলামিক ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে আয়োজিত ‘দারিদ্র বিমোচনে যাকাতের গুরুত্ব’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন তিনি।
এসময় বিভাগীয় কমিশনার আরো বলেন, যাকাত অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির অন্যতম প্রধান হাতিয়ার। তাই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যাকাত ইসলামের সেতু। তাই ইসলামি সমাজ ব্যবস্থায় যাকাত একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ বণ্টন ব্যবস্থা। যাকাত ইসলামের পঞ্চম তম্ভের অন্যতম ফরজ আর্থিক ইবাদত। এটি হতদরিদ্র, অভাবী ও অক্ষম জনগোষ্ঠীকে সামাজিক নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রদান করে। এর ফলে অসহায় ও দুস্থ মানবতার কল্যাণই হবে না বরং সমাজে আয়বণ্টনের ক্ষেত্রেও বৈষম্য হ্রাস পাবে। ধনীরা তাদের ধনসম্পদের ৪০ ভাগের এক অংশ অসহায় দরিদ্রদের মধ্যে যাকাত বিতরণ করলে গরিব জনগণ দারিদ্র্যের নিষ্ঠুর কশাঘাত থেকে মুক্তি পাবে।
উক্ত সেমিনারে রাজশাহী ইসলামিক ফাউন্ডেশন বিভাগীয় কার্যালয়ের সভাপতি মো. আনিসুজ্জামান সিকদার এঁর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন যাকাত ফান্ড বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ হারুনূর রশীদ। রাজশাহী ইসলামিক ফাউন্ডেশন বিভাগীয় কার্যালয়ের আয়োজিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান।
জনপ্রিয় সংবাদ

‘যাকাত ফান্ড সমৃদ্ধ হলে দারিদ্র্য বিমোচনে ভূমিকা রাখবে’: বিভাগীয় কমিশনার

আপডেট সময় : ০৫:২৮:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০২৪
বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বলেছেন, দেশপ্রেম হলো ঈমানের অঙ্গ। যাকাতের উদ্দেশ্য হলো সমাজ থেকে দারিদ্র্যতা নির্মূল করা। তাই সমৃদ্ধ অর্থনীতিতে যাকাতের ভূমিকা অপরিসীম। এক্ষেত্রে সুষ্ঠু আদায় ও বণ্টনের মাধ্যমে যাকাত ফান্ড শক্তিশালী হলে দারিদ্র বিমোচন করা সম্ভব হবে।
সেই লক্ষ্যে যাকাত ব্যবস্থাপনাকে সুশৃঙ্খল করার লক্ষ্যে ইতোমধ্যে সরকার ‘যাকাত তহবিল ব্যবস্থাপনা আইন’ জাতীয় সংসদে পাস করেছেন। তাই যাকাত ফান্ডকে শক্তিশালী করে গড়ে তোলা সকল সামর্থবান নাগরিকের নৈতিক দায়িত্ব। সোমবার (২৫ মার্চ) সকালে রাজশাহী ইসলামিক ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে আয়োজিত ‘দারিদ্র বিমোচনে যাকাতের গুরুত্ব’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন তিনি।
এসময় বিভাগীয় কমিশনার আরো বলেন, যাকাত অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধির অন্যতম প্রধান হাতিয়ার। তাই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যাকাত ইসলামের সেতু। তাই ইসলামি সমাজ ব্যবস্থায় যাকাত একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ বণ্টন ব্যবস্থা। যাকাত ইসলামের পঞ্চম তম্ভের অন্যতম ফরজ আর্থিক ইবাদত। এটি হতদরিদ্র, অভাবী ও অক্ষম জনগোষ্ঠীকে সামাজিক নিরাপত্তার নিশ্চয়তা প্রদান করে। এর ফলে অসহায় ও দুস্থ মানবতার কল্যাণই হবে না বরং সমাজে আয়বণ্টনের ক্ষেত্রেও বৈষম্য হ্রাস পাবে। ধনীরা তাদের ধনসম্পদের ৪০ ভাগের এক অংশ অসহায় দরিদ্রদের মধ্যে যাকাত বিতরণ করলে গরিব জনগণ দারিদ্র্যের নিষ্ঠুর কশাঘাত থেকে মুক্তি পাবে।
উক্ত সেমিনারে রাজশাহী ইসলামিক ফাউন্ডেশন বিভাগীয় কার্যালয়ের সভাপতি মো. আনিসুজ্জামান সিকদার এঁর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন যাকাত ফান্ড বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ হারুনূর রশীদ। রাজশাহী ইসলামিক ফাউন্ডেশন বিভাগীয় কার্যালয়ের আয়োজিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান।