০৬:২০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেএনএফ ব্যাংকে লুটপাটে আতঙ্ক

নতুন গজিয়ে উঠা সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট কেএনএফ সন্ত্রাসীদের ব্যাংক হামলার আশঙ্কায় বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি উপজেলারসহ তিনটির ব্যাংকের সব ধরনের লেনদেনের কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে। বন্ধ রয়েছে কৃষি ও সোনালী ব্যাংক। সেই সাথে সাথে রাঙ্গামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার দুই টি ব্যাংক, সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের লেনদেন স্বাভাবিক ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ঈদের এই সময়ে গ্রাহকদের সুবিধা করার লক্ষে এ ব্যবস্থা নিয়েছেন আইন শৃঙ্খলাবাহিনী।
জানা গেছে, গত মঙ্গলবার রাতে রুমা সোনালী ব্যাংক এবং গতকাল বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় থানচির সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায় নিরাপত্তার স্বার্থে রাজস্থলী উপজেলার ব্যাংক গুলোর নিরাপত্তার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে গত দুদিনে তিনটি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনার পর আতঙ্কে রয়েছে রাজস্থলীর দুইটি ব্যাংক ও আশে পাশের মানুষ। বিগত ১৯৯০/৯২ সালে একই কাদায় রাজস্থলী কৃষি ব্যাংক ডাকাতি ও ম্যানজার কে অপহরণ করে নিয়ে গেছে সন্ত্রাসীরা।
এ দিকে রুমা ও থানচির ঘটনার পরপর রাজস্থলী উপজেলায় রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশ সুপারের কার্যলযের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহানোয়াজ আজ বৃহস্পতিবার রাজস্থলী উপজেলার সোনালী ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংক পরিদর্শন করছেন। পরিদর্শন শেষে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, বান্দরবানের রুমা, থানচির ব্যাংক লুডের প্রভাব যাতে এ রাজস্থলীতে না ঘটে সে ব্যাপারে ব্যাংকের নিরাপত্তা জোরদার বাড়িয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
রাজস্থলী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন জানান, রাজস্থলী উপজেলায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। উপজেলার আশপাশ পুলিশের মোবাইল টিম টহল অব্যাহত আছে।
জনপ্রিয় সংবাদ

কেএনএফ ব্যাংকে লুটপাটে আতঙ্ক

আপডেট সময় : ০৭:৪৩:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল ২০২৪
নতুন গজিয়ে উঠা সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট কেএনএফ সন্ত্রাসীদের ব্যাংক হামলার আশঙ্কায় বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি উপজেলারসহ তিনটির ব্যাংকের সব ধরনের লেনদেনের কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে। বন্ধ রয়েছে কৃষি ও সোনালী ব্যাংক। সেই সাথে সাথে রাঙ্গামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলার দুই টি ব্যাংক, সোনালী ও কৃষি ব্যাংকের লেনদেন স্বাভাবিক ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। ঈদের এই সময়ে গ্রাহকদের সুবিধা করার লক্ষে এ ব্যবস্থা নিয়েছেন আইন শৃঙ্খলাবাহিনী।
জানা গেছে, গত মঙ্গলবার রাতে রুমা সোনালী ব্যাংক এবং গতকাল বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় থানচির সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায় নিরাপত্তার স্বার্থে রাজস্থলী উপজেলার ব্যাংক গুলোর নিরাপত্তার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে গত দুদিনে তিনটি ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনার পর আতঙ্কে রয়েছে রাজস্থলীর দুইটি ব্যাংক ও আশে পাশের মানুষ। বিগত ১৯৯০/৯২ সালে একই কাদায় রাজস্থলী কৃষি ব্যাংক ডাকাতি ও ম্যানজার কে অপহরণ করে নিয়ে গেছে সন্ত্রাসীরা।
এ দিকে রুমা ও থানচির ঘটনার পরপর রাজস্থলী উপজেলায় রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশ সুপারের কার্যলযের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহানোয়াজ আজ বৃহস্পতিবার রাজস্থলী উপজেলার সোনালী ব্যাংক ও কৃষি ব্যাংক পরিদর্শন করছেন। পরিদর্শন শেষে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, বান্দরবানের রুমা, থানচির ব্যাংক লুডের প্রভাব যাতে এ রাজস্থলীতে না ঘটে সে ব্যাপারে ব্যাংকের নিরাপত্তা জোরদার বাড়িয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
রাজস্থলী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন জানান, রাজস্থলী উপজেলায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। উপজেলার আশপাশ পুলিশের মোবাইল টিম টহল অব্যাহত আছে।