০৯:৩৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দু’টি সেতু নির্মাণ করে তিন গ্রামের মানুষের বন্ধন তৈরির প্রতিশ্রুতি এমপি শুভ’র

টাঙ্গাইল ৭ মির্জাপুর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য খান আহমেদ শুভ বলেছেন, কহেলা গ্রাম, নতুন কহেলা এবং নাগরপাড়া গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে দুটি নদী রয়েছে। দু’পাশে নদী থাকায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। এই  দু’টি সেতু নির্মাণের মাধ্যমে তিন গ্রামের মধ্যে বন্ধন তৈরি করে দেওয়া হবে।
শনিবার বিকেলে উপজেলার উয়ার্শী ইউনিয়ন এর তার নিজ গ্রাম কহেলাতে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এছাড়া তিনি আরও বলেন, আমাকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে অনেক পরিশ্রম করেছে উয়ার্শী ইউনিয়নের মানুষ। বিশেষ করে ইউনিয়ন এর সভাপতি  আওলাদ হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক মনির খান। তিনি আরও বলেন এই এলাকার মানুষ ২৪ ঘন্টা যখন খুশি  আমাকে ফোন করলেই পাবেন। আমার পিতাকে যে পরিমাণ ভালবাসা দিয়েছেন আমি কোনো দিন এই ঋণ পরিশোধ করতে পারবো না। তবে ৫ বছর সময় পর্যন্ত আমি যদি  এমপিতে থাকি যত ধরনের চাওয়া পাওয়া আছে আমি পূরণ করার চেষ্টা করবো। নির্বাচিত হওয়ায় পরে কোথাও সংবর্ধনা নিবো না উন্নয়নের লক্ষ্যেই কাজ করে যাবো এমন মনোভাব ছিলো, কিন্তু নিজ গ্রামের মানুষের কাছে না নিলে নিজেকে পাপী লাগবে। এই সংবর্ধনা আপনাদের সংবর্ধনা। উন্নয়নের লক্ষেই কাজ করে যাবো। আমি উন্নয়ন করে দেখিয়ে দিতে চাই একজন এমপির কাজ কি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আনুগত্য এবং দেশের প্রতি ভালবাসা রেখে আপনাদের ভালবাসা এবং দোয়া নিয়ে উন্নয়নের কাজ করে যেতে চাই।
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা, এছাড়া উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন এর সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ প্রমুখ।

দু’টি সেতু নির্মাণ করে তিন গ্রামের মানুষের বন্ধন তৈরির প্রতিশ্রুতি এমপি শুভ’র

আপডেট সময় : ১২:১৩:০৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
টাঙ্গাইল ৭ মির্জাপুর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য খান আহমেদ শুভ বলেছেন, কহেলা গ্রাম, নতুন কহেলা এবং নাগরপাড়া গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে দুটি নদী রয়েছে। দু’পাশে নদী থাকায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। এই  দু’টি সেতু নির্মাণের মাধ্যমে তিন গ্রামের মধ্যে বন্ধন তৈরি করে দেওয়া হবে।
শনিবার বিকেলে উপজেলার উয়ার্শী ইউনিয়ন এর তার নিজ গ্রাম কহেলাতে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এছাড়া তিনি আরও বলেন, আমাকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে অনেক পরিশ্রম করেছে উয়ার্শী ইউনিয়নের মানুষ। বিশেষ করে ইউনিয়ন এর সভাপতি  আওলাদ হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক মনির খান। তিনি আরও বলেন এই এলাকার মানুষ ২৪ ঘন্টা যখন খুশি  আমাকে ফোন করলেই পাবেন। আমার পিতাকে যে পরিমাণ ভালবাসা দিয়েছেন আমি কোনো দিন এই ঋণ পরিশোধ করতে পারবো না। তবে ৫ বছর সময় পর্যন্ত আমি যদি  এমপিতে থাকি যত ধরনের চাওয়া পাওয়া আছে আমি পূরণ করার চেষ্টা করবো। নির্বাচিত হওয়ায় পরে কোথাও সংবর্ধনা নিবো না উন্নয়নের লক্ষ্যেই কাজ করে যাবো এমন মনোভাব ছিলো, কিন্তু নিজ গ্রামের মানুষের কাছে না নিলে নিজেকে পাপী লাগবে। এই সংবর্ধনা আপনাদের সংবর্ধনা। উন্নয়নের লক্ষেই কাজ করে যাবো। আমি উন্নয়ন করে দেখিয়ে দিতে চাই একজন এমপির কাজ কি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আনুগত্য এবং দেশের প্রতি ভালবাসা রেখে আপনাদের ভালবাসা এবং দোয়া নিয়ে উন্নয়নের কাজ করে যেতে চাই।
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা, এছাড়া উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন এর সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ প্রমুখ।