০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মস্কোতে কনসার্টে ভয়াবহ হামলা, মৃত্যু ১৩৩

 

➤ মস্কোয় ঘটনায় বিশ্বনেতাদের নিন্দা
➤ দুই সপ্তাহ আগেই সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্র
➤মস্কো হামলা ইউক্রেনের কোনো সম্পর্ক নেই
➤হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি পুতিনের

 

 

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে কনসার্ট হলে মুখোশপরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় নিহত মানুষের সংখ্যা বেড়ে ১৩৩ জনে পৌঁছেছে। এখনো ঘটনাস্থলে উদ্ধার অভিযান চলছে। ফলে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়বে। এ ঘটনায় রাশিয়ায় জাতীয় শোক ঘোষণা করেছেন পুতিন। হামলার দায় স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী (আইএসআইএস)। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। এদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে হামলার ঘটনার সপ্তাহ দুয়েক আগে নিরাপত্তা নিয়ে সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। অন্যদিকে এ ঘটনায় নিজেদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। হামলার ঘটনায় ইউক্রেনের সম্পৃক্ততার কোনো আভাস পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জন কারবি।

গতকাল বার্তা আদান-প্রদান অ্যাপ টেলিগ্রামের এক পোস্টে রাশিয়ার তদন্ত কমিটি জানিয়েছে, জরুরি সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিরা কনসার্ট ভেন্যুতে ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করার সময় সেখানে তারা আরো কিছু মরদেহ খুঁজে পেয়েছেন। উদ্ধার অভিযান এখনো চলছে, নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ১৩৩ হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ৪১ জনের নাম ও পরিচয় শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এছাড়া এখনো হাসপাতালে রয়েছেন আরো ১০৭ জন।

গতকাল টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে মস্কোর কনসার্ট হলে বন্দুকধারীর হামলার ঘটনাকে ‘বর্বর সন্ত্রাসী হামলা’ বলে আখ্যায়িত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। তিনি বলেন, সীমান্ত অতিক্রম করে ইউক্রেনে ঢুকে যাওয়ার আগে চার বন্দুকধারীসহ ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। আমি আজ আপনাদের সঙ্গে রক্তাক্ত, বর্বর সন্ত্রাসী হামলা প্রসঙ্গে কথা বলছি, যার শিকার হয়েছে শতাধিক নিরীহ, শান্তিপ্রিয় মানুষ। এই হামলার পিছনে যারা রয়েছে তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পুতিন।

ক্রেমলিনের বরাতে রুশ বার্তা সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স জানিয়েছে, এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে চারজন সরাসরি জড়িত। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় মস্কোর ক্রোকাস সিটি হলে হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় বন্দুকধারীরা কনসার্ট হলে ঢুকে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল দিয়ে ভিড়ের মধ্যে এলোপাতাড়ি গুলি চালান।
এ ঘটনাকে ‘রক্তাক্ত সন্ত্রাসী হামলা’ বলে উল্লেখ করেছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। হামলার পরপর শুক্রবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা টেলিগ্রাম পোস্টে বলেন, এটা রক্তাক্ত সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা।

হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলাগুলোর একটি এটি। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, ইতালিসহ বিশ্বনেতারা।

ঘটনাস্থলে থাকা এক সাংবাদিক বলেন, গ্রেনেড অথবা বোমা থেকে অগ্নিকাণ্ড শুরু হয়। মুহূর্তের মধ্যে পুরো কনসার্ট হল যেন আগ্নেয়গিরিতে পরিণত হয়। উদ্ধারকারী দল ও জরুরি সেবা সংস্থাগুলো সারা রাত ধরে উদ্ধারকাজ চালায়। কালো ধোঁয়ায় আকাশ ছেয়ে যায়। ক্রোকাস সিটি হলে বেজমেন্টে থাকা ও ছাদে আশ্রয় নেওয়া দর্শকদের উদ্ধার করতে চেষ্টা করে যাচ্ছিল রাশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনী।

মস্কোয় কনসার্টে হামলার দায় স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএল (আইএসআইএস)। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। হামলার ওই ঘটনায় বিবৃতি দিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র ফারহান হক। তিনি বলেন, মস্কোয় কনসার্ট হলে হামলায় ৬০ জন নিহত ও শতাধিক ব্যক্তি আহত হওয়ার ঘটনার সম্ভব সর্বোচ্চ কড়া ভাষায় নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘপ্রধান।’ নিহত ব্যক্তিদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া বিষয়ে রুশ কর্তৃপক্ষের ঘোষণার আগে এ বিবৃতি দেওয়া হয়। গুতেরেস এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ব্যক্তিদের শোকাহত পরিবার, রাশিয়ার জনগণ ও সরকারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন বলেও উল্লেখ করা হয় বিবৃতিতে।

মস্কোর ক্রাসনোগোরস্ক অঞ্চলে কনসার্ট হলে হামলাকে জঘন্য ও কাপুরুষোচিত কর্মকাণ্ড বলে কঠোর ভাষায় নিন্দা জানিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বলেছে, নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা এ নিন্দনীয় সন্ত্রাসী কাজে জড়িত অপরাধী, সংগঠক, অর্থের যোগানদাতা ও পৃষ্ঠপোষকদের জবাবদিহি করানো এবং তাদের বিচারের আওতায় আনার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছে। এলিসি প্রাসাদের এক বিবৃতিতে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ বলেছেন, ক্রোকাস সিটি হলে ইসলামিক স্টেটের সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান তিনি। এ ঘটনার ভুক্তভোগী ব্যক্তি, তাদের স্বজন ও রুশ জনগণের প্রতি ফ্রান্স তার সংহতি প্রকাশ করছে।

হামলার নিন্দা জানিয়ে জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, মস্কোর কাছে ক্রোকাস সিটি হলে নিরীহ মানুষের ওপর রোমহর্ষক হামলার চিত্রগুলো ভয়াবহ। হামলার নেপথ্যে কারা, তা দ্রুত স্পষ্ট করতে হবে। হামলার শিকার ব্যক্তিদের পরিবারগুলোর প্রতি আমাদের আন্তরিক সমবেদনা। এ হামলাকে জঘন্য সন্ত্রাসী কাজ বলে আখ্যায়িত করে ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি বলেন, মস্কোয় নিরপরাধ বেসামরিক লোকজনের ওপর চালানো ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড অগ্রহণযোগ্য।’ হামলায় ভুক্তভোগী ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের প্রতি মেলোনি তার পূর্ণ সংহতির কথা জানান।

হামলার নিন্দা জানিয়ে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জন কিরবি বলেছেন, হামলার দৃশ্যগুলো ভয়ানক ও দেখার মতো নয়। এই ভয়ানক গুলিবর্ষণের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের পাশে আমরা নিশ্চয়ই থাকব।

এদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে মুখোশপরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনার সপ্তাহ দুয়েক আগে নিরাপত্তা নিয়ে সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। ৭ মার্চ রাশিয়ায় মার্কিন দূতাবাস একটি নিরাপত্তা সতর্কতা জারি করে। সতর্কবার্তায় বলা হয়, মস্কোয় বড় জমায়েতে উগ্রপন্থীদের হামলার পরিকল্পনার খবর জানা গেছে। এ সতর্কবার্তায় বড় জমায়েতের মধ্যে কনসার্টের কথাও বলা হয়েছিল। সেই সঙ্গে সতর্কবার্তায় মস্কোয় অবস্থানরত মার্কিন নাগরিকদের ৪৮ ঘণ্টার জন্য বড় জমায়েত এড়িয়ে চলতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। অন্যদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে মুখোশ পরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় নিজেদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। হামলার পর টেলিগ্রাম পোস্টে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সহযোগী মিখাইলো পোদোলাক বলেন, একটি বিষয় স্পষ্ট করছি, মস্কোর এ ঘটনায় ইউক্রেনের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে মুখোশপরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় ইউক্রেনের সম্পৃক্ততার কোনো আভাস পাওয়া যায়নি। শুর হামলার পরপর হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জন কারবি বলেছেন, মস্কোয় ভয়াবহ ওই হামলার সঙ্গে ইউক্রেনের কিংবা ইউক্রেনের কোনো নাগরিকের সম্পৃক্ততার আভাস এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

মস্কোতে কনসার্টে ভয়াবহ হামলা, মৃত্যু ১৩৩

আপডেট সময় : ০৭:৩৯:১৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০২৪

 

➤ মস্কোয় ঘটনায় বিশ্বনেতাদের নিন্দা
➤ দুই সপ্তাহ আগেই সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্র
➤মস্কো হামলা ইউক্রেনের কোনো সম্পর্ক নেই
➤হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি পুতিনের

 

 

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে কনসার্ট হলে মুখোশপরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় নিহত মানুষের সংখ্যা বেড়ে ১৩৩ জনে পৌঁছেছে। এখনো ঘটনাস্থলে উদ্ধার অভিযান চলছে। ফলে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়বে। এ ঘটনায় রাশিয়ায় জাতীয় শোক ঘোষণা করেছেন পুতিন। হামলার দায় স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী (আইএসআইএস)। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। এদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে হামলার ঘটনার সপ্তাহ দুয়েক আগে নিরাপত্তা নিয়ে সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। অন্যদিকে এ ঘটনায় নিজেদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। হামলার ঘটনায় ইউক্রেনের সম্পৃক্ততার কোনো আভাস পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জন কারবি।

গতকাল বার্তা আদান-প্রদান অ্যাপ টেলিগ্রামের এক পোস্টে রাশিয়ার তদন্ত কমিটি জানিয়েছে, জরুরি সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিরা কনসার্ট ভেন্যুতে ধ্বংসস্তূপ পরিষ্কার করার সময় সেখানে তারা আরো কিছু মরদেহ খুঁজে পেয়েছেন। উদ্ধার অভিযান এখনো চলছে, নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ১৩৩ হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ৪১ জনের নাম ও পরিচয় শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এছাড়া এখনো হাসপাতালে রয়েছেন আরো ১০৭ জন।

গতকাল টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে মস্কোর কনসার্ট হলে বন্দুকধারীর হামলার ঘটনাকে ‘বর্বর সন্ত্রাসী হামলা’ বলে আখ্যায়িত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। তিনি বলেন, সীমান্ত অতিক্রম করে ইউক্রেনে ঢুকে যাওয়ার আগে চার বন্দুকধারীসহ ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। আমি আজ আপনাদের সঙ্গে রক্তাক্ত, বর্বর সন্ত্রাসী হামলা প্রসঙ্গে কথা বলছি, যার শিকার হয়েছে শতাধিক নিরীহ, শান্তিপ্রিয় মানুষ। এই হামলার পিছনে যারা রয়েছে তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পুতিন।

ক্রেমলিনের বরাতে রুশ বার্তা সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স জানিয়েছে, এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে ১১ জনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে চারজন সরাসরি জড়িত। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় মস্কোর ক্রোকাস সিটি হলে হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় বন্দুকধারীরা কনসার্ট হলে ঢুকে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল দিয়ে ভিড়ের মধ্যে এলোপাতাড়ি গুলি চালান।
এ ঘটনাকে ‘রক্তাক্ত সন্ত্রাসী হামলা’ বলে উল্লেখ করেছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। হামলার পরপর শুক্রবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা টেলিগ্রাম পোস্টে বলেন, এটা রক্তাক্ত সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা।

হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে প্রাণঘাতী হামলাগুলোর একটি এটি। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, ইতালিসহ বিশ্বনেতারা।

ঘটনাস্থলে থাকা এক সাংবাদিক বলেন, গ্রেনেড অথবা বোমা থেকে অগ্নিকাণ্ড শুরু হয়। মুহূর্তের মধ্যে পুরো কনসার্ট হল যেন আগ্নেয়গিরিতে পরিণত হয়। উদ্ধারকারী দল ও জরুরি সেবা সংস্থাগুলো সারা রাত ধরে উদ্ধারকাজ চালায়। কালো ধোঁয়ায় আকাশ ছেয়ে যায়। ক্রোকাস সিটি হলে বেজমেন্টে থাকা ও ছাদে আশ্রয় নেওয়া দর্শকদের উদ্ধার করতে চেষ্টা করে যাচ্ছিল রাশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনী।

মস্কোয় কনসার্টে হামলার দায় স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএল (আইএসআইএস)। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। হামলার ওই ঘটনায় বিবৃতি দিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র ফারহান হক। তিনি বলেন, মস্কোয় কনসার্ট হলে হামলায় ৬০ জন নিহত ও শতাধিক ব্যক্তি আহত হওয়ার ঘটনার সম্ভব সর্বোচ্চ কড়া ভাষায় নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘপ্রধান।’ নিহত ব্যক্তিদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়া বিষয়ে রুশ কর্তৃপক্ষের ঘোষণার আগে এ বিবৃতি দেওয়া হয়। গুতেরেস এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ব্যক্তিদের শোকাহত পরিবার, রাশিয়ার জনগণ ও সরকারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন বলেও উল্লেখ করা হয় বিবৃতিতে।

মস্কোর ক্রাসনোগোরস্ক অঞ্চলে কনসার্ট হলে হামলাকে জঘন্য ও কাপুরুষোচিত কর্মকাণ্ড বলে কঠোর ভাষায় নিন্দা জানিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বলেছে, নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা এ নিন্দনীয় সন্ত্রাসী কাজে জড়িত অপরাধী, সংগঠক, অর্থের যোগানদাতা ও পৃষ্ঠপোষকদের জবাবদিহি করানো এবং তাদের বিচারের আওতায় আনার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছে। এলিসি প্রাসাদের এক বিবৃতিতে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাখোঁ বলেছেন, ক্রোকাস সিটি হলে ইসলামিক স্টেটের সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান তিনি। এ ঘটনার ভুক্তভোগী ব্যক্তি, তাদের স্বজন ও রুশ জনগণের প্রতি ফ্রান্স তার সংহতি প্রকাশ করছে।

হামলার নিন্দা জানিয়ে জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, মস্কোর কাছে ক্রোকাস সিটি হলে নিরীহ মানুষের ওপর রোমহর্ষক হামলার চিত্রগুলো ভয়াবহ। হামলার নেপথ্যে কারা, তা দ্রুত স্পষ্ট করতে হবে। হামলার শিকার ব্যক্তিদের পরিবারগুলোর প্রতি আমাদের আন্তরিক সমবেদনা। এ হামলাকে জঘন্য সন্ত্রাসী কাজ বলে আখ্যায়িত করে ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি বলেন, মস্কোয় নিরপরাধ বেসামরিক লোকজনের ওপর চালানো ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড অগ্রহণযোগ্য।’ হামলায় ভুক্তভোগী ব্যক্তি ও তাদের পরিবারের প্রতি মেলোনি তার পূর্ণ সংহতির কথা জানান।

হামলার নিন্দা জানিয়ে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জন কিরবি বলেছেন, হামলার দৃশ্যগুলো ভয়ানক ও দেখার মতো নয়। এই ভয়ানক গুলিবর্ষণের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের পাশে আমরা নিশ্চয়ই থাকব।

এদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে মুখোশপরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনার সপ্তাহ দুয়েক আগে নিরাপত্তা নিয়ে সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্র। ৭ মার্চ রাশিয়ায় মার্কিন দূতাবাস একটি নিরাপত্তা সতর্কতা জারি করে। সতর্কবার্তায় বলা হয়, মস্কোয় বড় জমায়েতে উগ্রপন্থীদের হামলার পরিকল্পনার খবর জানা গেছে। এ সতর্কবার্তায় বড় জমায়েতের মধ্যে কনসার্টের কথাও বলা হয়েছিল। সেই সঙ্গে সতর্কবার্তায় মস্কোয় অবস্থানরত মার্কিন নাগরিকদের ৪৮ ঘণ্টার জন্য বড় জমায়েত এড়িয়ে চলতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। অন্যদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে মুখোশ পরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় নিজেদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। হামলার পর টেলিগ্রাম পোস্টে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সহযোগী মিখাইলো পোদোলাক বলেন, একটি বিষয় স্পষ্ট করছি, মস্কোর এ ঘটনায় ইউক্রেনের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এদিকে রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর কনসার্ট হলে মুখোশপরা বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনায় ইউক্রেনের সম্পৃক্ততার কোনো আভাস পাওয়া যায়নি। শুর হামলার পরপর হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জন কারবি বলেছেন, মস্কোয় ভয়াবহ ওই হামলার সঙ্গে ইউক্রেনের কিংবা ইউক্রেনের কোনো নাগরিকের সম্পৃক্ততার আভাস এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। এ সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।