০৭:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইসলাম অবমাননায় স্বপ্নীলের শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

ইসলাম ধর্মকে অবমাননার অভিযোগে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী স্বপ্নীল মুখার্জিকে স্থায়ী বহিষ্কার ও শাস্তির দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে  মানববন্ধন, গণ-স্বাক্ষর, প্রতিবাদ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরপর সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে একটি এবং তার নারী সহপাঠীদের পক্ষ থেকে আরেকটি অভিযোগপত্র দেয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর।
 বুধবার (১৫ মে) সকাল দশটায় বিশ্ববিদ্যালয় গোলচত্বরে প্রথমে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় মসজিদ হয়ে প্রসশনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়।
এর আগে সকাল সাড়ে নয়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি স্বপ্নীলের ব্যাপারে আলোচনায় বসেন এবং  বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে স্বপ্নীলকে বহিস্কারের প্রাথমিক সুপারিশ করেন বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী।
মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের ১২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী নূর আহমেদ আল আমিন বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় তার লেখাগুলো দেখলে আমাদের মুসলমানদের মাথার রক্ত পায়ে ওঠে যায়। তার লেখার প্রত্যেকটা শব্দে শব্দে মুসলমানদের উদ্দেশ্য করে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে থাকে। আমাদের প্রশাসনের কাছে অনুরোধ থাকবে স্বল্প সময়ের মধ্যে তাকে স্থায়ী বহিষ্কার করতে হবে। আমরা কখনও এরকম উগ্রবাদী বিশ্ববিদ্যালয়ে দেখতে চাই না।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের  ১৪ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ  নাজিম উদ্দীন বলেন, ‘ আমরা অবগত আছি যে জয়দেব নামে এক উগ্র শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে পূর্বে প্রশাসন ব্যাবস্থা নিয়েছিল। এছাড়াও সম্প্রতি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। আমরা চাই তাকে আরও কঠোর শাস্তি দেয়া হোক। যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের দাবি পূরণ না হবে আমাদের কর্মসূচি চলমান থাকবে।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা প্রক্টরিয়াল বডি সকাল ৯টায় একটা মিটিং করেছি। ফেইসবুকের বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের উপর ভিত্তি করে আমরা জেনেছি যে সে ইসলাম ধর্মের অবমাননা এবং মহানবী হযরত মোহাম্মদ (স.) কে নয়ে কটুক্তি করেছে। তাই আমরা প্রক্টোরিয়াল বডি তার সাময়িক বহিষ্কারের সুপারিশ করেছি।’
দুটি অভিযোগপত্রের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘ একটি অভিযোগ দিয়েছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আরেকটি অভিযোগ দিয়েছে স্বপ্নীলের নারী সহপাঠীরা। নারী সহপাঠীদের কিছু ছবি তার (স্বপ্নীল) ফোনে আছে। সেই ছবিগুলো স্বপ্নীল এআইয়ের মাধ্যমে বিকৃত করে ছড়িয়ে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করে এই অভিযোগপত্র দিয়েছে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ১৬ তম আবর্তনের নারী শিক্ষার্থীরা। আমরা বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানিয়েছি। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি দেখছে।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১৪ মে) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা এবং হযরত মোহাম্মদ (স.) কে কটুক্তি ও ফিলিস্তিন নিয়ে ব্যাঙ্গাত্মক মন্তব্যের স্কিনশটগুলো ছড়িয়ে পড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুবি শিক্ষার্থী স্বপ্নীল মুখার্জির বিভিন্ন ফেসবুক একাউন্ট থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ইসলাম কে কটাক্ষ করা হয়েছে। ফেসবুক একাউন্ট গুলো হলো “Sawpnil, Sawpnil Mukharjee, স্বপ্নীলের বউ নেই, স্বপ্নীল পড়তে বস” প্রভৃতি ফেসবুক একাউন্ট থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ইসলাম কে কটাক্ষ করেছে।

কিশোর গ্যাং এখন সামাজিক ব্যাধি

ইসলাম অবমাননায় স্বপ্নীলের শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

আপডেট সময় : ০৪:৪৬:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৫ মে ২০২৪
ইসলাম ধর্মকে অবমাননার অভিযোগে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী স্বপ্নীল মুখার্জিকে স্থায়ী বহিষ্কার ও শাস্তির দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে  মানববন্ধন, গণ-স্বাক্ষর, প্রতিবাদ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরপর সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে একটি এবং তার নারী সহপাঠীদের পক্ষ থেকে আরেকটি অভিযোগপত্র দেয়া হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর বরাবর।
 বুধবার (১৫ মে) সকাল দশটায় বিশ্ববিদ্যালয় গোলচত্বরে প্রথমে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় মসজিদ হয়ে প্রসশনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়।
এর আগে সকাল সাড়ে নয়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি স্বপ্নীলের ব্যাপারে আলোচনায় বসেন এবং  বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে স্বপ্নীলকে বহিস্কারের প্রাথমিক সুপারিশ করেন বলে জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী।
মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের ১২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী নূর আহমেদ আল আমিন বলেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় তার লেখাগুলো দেখলে আমাদের মুসলমানদের মাথার রক্ত পায়ে ওঠে যায়। তার লেখার প্রত্যেকটা শব্দে শব্দে মুসলমানদের উদ্দেশ্য করে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে থাকে। আমাদের প্রশাসনের কাছে অনুরোধ থাকবে স্বল্প সময়ের মধ্যে তাকে স্থায়ী বহিষ্কার করতে হবে। আমরা কখনও এরকম উগ্রবাদী বিশ্ববিদ্যালয়ে দেখতে চাই না।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের  ১৪ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ  নাজিম উদ্দীন বলেন, ‘ আমরা অবগত আছি যে জয়দেব নামে এক উগ্র শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে পূর্বে প্রশাসন ব্যাবস্থা নিয়েছিল। এছাড়াও সম্প্রতি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। আমরা চাই তাকে আরও কঠোর শাস্তি দেয়া হোক। যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের দাবি পূরণ না হবে আমাদের কর্মসূচি চলমান থাকবে।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা প্রক্টরিয়াল বডি সকাল ৯টায় একটা মিটিং করেছি। ফেইসবুকের বিভিন্ন তথ্য উপাত্তের উপর ভিত্তি করে আমরা জেনেছি যে সে ইসলাম ধর্মের অবমাননা এবং মহানবী হযরত মোহাম্মদ (স.) কে নয়ে কটুক্তি করেছে। তাই আমরা প্রক্টোরিয়াল বডি তার সাময়িক বহিষ্কারের সুপারিশ করেছি।’
দুটি অভিযোগপত্রের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘ একটি অভিযোগ দিয়েছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আরেকটি অভিযোগ দিয়েছে স্বপ্নীলের নারী সহপাঠীরা। নারী সহপাঠীদের কিছু ছবি তার (স্বপ্নীল) ফোনে আছে। সেই ছবিগুলো স্বপ্নীল এআইয়ের মাধ্যমে বিকৃত করে ছড়িয়ে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করে এই অভিযোগপত্র দিয়েছে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ১৬ তম আবর্তনের নারী শিক্ষার্থীরা। আমরা বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে জানিয়েছি। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি দেখছে।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১৪ মে) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা এবং হযরত মোহাম্মদ (স.) কে কটুক্তি ও ফিলিস্তিন নিয়ে ব্যাঙ্গাত্মক মন্তব্যের স্কিনশটগুলো ছড়িয়ে পড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুবি শিক্ষার্থী স্বপ্নীল মুখার্জির বিভিন্ন ফেসবুক একাউন্ট থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ইসলাম কে কটাক্ষ করা হয়েছে। ফেসবুক একাউন্ট গুলো হলো “Sawpnil, Sawpnil Mukharjee, স্বপ্নীলের বউ নেই, স্বপ্নীল পড়তে বস” প্রভৃতি ফেসবুক একাউন্ট থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে ইসলাম কে কটাক্ষ করেছে।