০১:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিশু গালিবের পাশে তরুণ সমাজসেবক তোতা

ময়মনসিংহের ত্রিশালে অর্থের অভাবে হৃদযন্ত্রের জটিল রোগে আক্রান্ত শিশু গালিবের চিকিৎসায় অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এবিষয়ে দৈনিক সবুজ বাংলায় সংবাদ প্রকাশিত হলে শিশুটির খোঁজ নেন এবং চিকিৎসা ব্যয়ে কিছু সহযোগিতা প্রদান করেন তরুণ সমাজসেবক আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ তোতা।

সোমবার রাত সোয়া নয়টার দিকে উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের অলহরী খারহর গ্রামে শিশু গালিব ও তার জমজ সহোদর আলিফের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে তাদের জন্য ঈদ উপহার হিসেবে নতুন পোশাক ও নগদ কিছু টাকা প্রদান করেন তিনি।

এসময় ত্রিশাল পৌরসভার বাসিন্দা আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ তোতা বলেন, ‘এই শিশুকে নিয়ে সবুজ বাংলায় রিপোর্ট দেখে আমার খুব খারাপ লাগে। আমারও একটি শিশু সন্তান রয়েছে। তাই শিশুটিকে দেখতে আমি তার বাড়িতে চলে এসেছি। উনারা খুবই সমস্যায় আছেন। সবার প্রতি আহ্বান থাকবে আমরা যেনো এই শিশুটির পাশে দাঁড়াই।’

শিশু গালিবের বাবা মোঃ জামান বলেন, ‘আমার শিশু সন্তানকে বাঁচাতে এগিয়ে আসায় তোতা ভাই সহ স্থানীয় যারা সহযোগিতা করছেন সবার প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। এই ঋণ আমি কোনদিন শোধ করতে পারবোনা। আল্লাহ আপনাদের মঙ্গল করবেন।’ উল্লেখ্য গত শনিবার ‘জটিল রোগে আক্রান্ত শিশু গালিব, অর্থাভাবে হচ্ছে না চিকিৎসা’ শিরোনামে দৈনিক সবুজ বাংলায় রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। এরপরই এই সহায়তা পেলো শিশুটির পরিবার। শিশু আব্দুল আল গালিবের চিকিৎসায় চার লাখ টাকা প্রয়োজন, কিন্তু তার পরিবার অর্থনৈতিকভাবে অস্বচ্ছল হওয়ায় তাঁদের পক্ষে এই ব্যয় বহন করা সম্ভব হচ্ছে না।

জানা গেছে, কার্ডিওলজিস্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নূরুন্নাহার ফাতেমা শিশুটির হার্টে জন্মগত ছিদ্র রয়েছে জানিয়ে দ্রুত ঢাকায় নিয়ে অপারেশন করানোর পরামর্শ দিয়েছেন। সময় যাচ্ছে এবং হার্টের ছিদ্র আকারে বড় হচ্ছে। তাই দ্রুত অপারেশন না করালে ধীরে ধীরে শিশুটি কষ্ট পেয়ে নিস্তেজ হয়ে মৃত্যু বরণ করবে। এ অপারেশনের জন্য ৪ লাখ টাকা প্রয়োজন হবে। গালিবের দরিদ্র বাবা জামানের পক্ষে কোন ক্রমেই এতো গুলো টাকা জোগাড় করে ছেলের অপারেশন করানো সম্ভব নয়। তাই গালিবের বাবা-মা ছেলেকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবান ও সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

টিউশনের নামে প্রতারণার ফাঁদ

শিশু গালিবের পাশে তরুণ সমাজসেবক তোতা

আপডেট সময় : ০৫:২১:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

ময়মনসিংহের ত্রিশালে অর্থের অভাবে হৃদযন্ত্রের জটিল রোগে আক্রান্ত শিশু গালিবের চিকিৎসায় অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এবিষয়ে দৈনিক সবুজ বাংলায় সংবাদ প্রকাশিত হলে শিশুটির খোঁজ নেন এবং চিকিৎসা ব্যয়ে কিছু সহযোগিতা প্রদান করেন তরুণ সমাজসেবক আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ তোতা।

সোমবার রাত সোয়া নয়টার দিকে উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের অলহরী খারহর গ্রামে শিশু গালিব ও তার জমজ সহোদর আলিফের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে তাদের জন্য ঈদ উপহার হিসেবে নতুন পোশাক ও নগদ কিছু টাকা প্রদান করেন তিনি।

এসময় ত্রিশাল পৌরসভার বাসিন্দা আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ তোতা বলেন, ‘এই শিশুকে নিয়ে সবুজ বাংলায় রিপোর্ট দেখে আমার খুব খারাপ লাগে। আমারও একটি শিশু সন্তান রয়েছে। তাই শিশুটিকে দেখতে আমি তার বাড়িতে চলে এসেছি। উনারা খুবই সমস্যায় আছেন। সবার প্রতি আহ্বান থাকবে আমরা যেনো এই শিশুটির পাশে দাঁড়াই।’

শিশু গালিবের বাবা মোঃ জামান বলেন, ‘আমার শিশু সন্তানকে বাঁচাতে এগিয়ে আসায় তোতা ভাই সহ স্থানীয় যারা সহযোগিতা করছেন সবার প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ। এই ঋণ আমি কোনদিন শোধ করতে পারবোনা। আল্লাহ আপনাদের মঙ্গল করবেন।’ উল্লেখ্য গত শনিবার ‘জটিল রোগে আক্রান্ত শিশু গালিব, অর্থাভাবে হচ্ছে না চিকিৎসা’ শিরোনামে দৈনিক সবুজ বাংলায় রিপোর্ট প্রকাশিত হয়। এরপরই এই সহায়তা পেলো শিশুটির পরিবার। শিশু আব্দুল আল গালিবের চিকিৎসায় চার লাখ টাকা প্রয়োজন, কিন্তু তার পরিবার অর্থনৈতিকভাবে অস্বচ্ছল হওয়ায় তাঁদের পক্ষে এই ব্যয় বহন করা সম্ভব হচ্ছে না।

জানা গেছে, কার্ডিওলজিস্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নূরুন্নাহার ফাতেমা শিশুটির হার্টে জন্মগত ছিদ্র রয়েছে জানিয়ে দ্রুত ঢাকায় নিয়ে অপারেশন করানোর পরামর্শ দিয়েছেন। সময় যাচ্ছে এবং হার্টের ছিদ্র আকারে বড় হচ্ছে। তাই দ্রুত অপারেশন না করালে ধীরে ধীরে শিশুটি কষ্ট পেয়ে নিস্তেজ হয়ে মৃত্যু বরণ করবে। এ অপারেশনের জন্য ৪ লাখ টাকা প্রয়োজন হবে। গালিবের দরিদ্র বাবা জামানের পক্ষে কোন ক্রমেই এতো গুলো টাকা জোগাড় করে ছেলের অপারেশন করানো সম্ভব নয়। তাই গালিবের বাবা-মা ছেলেকে বাঁচাতে সমাজের বিত্তবান ও সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন।