০৬:০৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিমান বিধ্বস্ত এক মায়ের আহাজারি 

Oplus_131072

একমাত্র সন্তান ছিলেন আসিম জাওয়াদ, কান্না থামছে না মায়ের চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত আসিম জাওয়াদের গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জে। বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তানর মৃত্যুর খবরে পরিবারে চলছে শোকের মাতম। বারবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন  মা নিলুফা খানম।

মানিকগঞ্জ শহরের নগর ভবন সড়কের গোল্ডেন প্লাজায় আসিম জাওয়াদের বাসা। সেখানে থাকেন চিকিৎসক বাবা আমান উল্লাহ ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মা নিলুফা আক্তার খানম। আর স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে কর্মস্থল চট্টগ্রামে থাকতেন আসিম।

বিকালে মানিকগঞ্জের আসিম জাওয়াদের বাসায় গিয়ে দেখা যায়, তার মা ছেলের কথা মনে করে বারবার কান্না করে জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন । তাকে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছেন স্বজনরা। চোখে পানি ধরে রাখতে পারেননি তারাও।

 

আসিম জাওয়াদের মা নিলুফা খানম আর্তনাদ করে বলছিলেন, ‘আমার ছেলে প্রতিদিন খোঁজ নেয় আমি খেয়েছি কি না, গোসল করেছি কি না। কই আজতো খোঁজ নিচ্ছে না? আজ কেন কথা বলছে না? আমি আমার ছেলের কাছে যাবো। আমাকে ঢাকায় নিয়ে চলো।

কর্ণফুলী নদীতে বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ  যুদ্ধবিমানের এক পাইলট নিহত। আগুন লাগার পরে বিমানটি জনবিরল এলাকায় নেন পাইলটরা: আইএসপিআর কিছুক্ষণ চুপ থেকে আবার বিলাপ করে বলতে থাকেন, ‘আমার আসিমের কত স্বপ্ন। কত পুরস্কার পেয়েছে। সেতো কারও ক্ষতি করে নাই। তাহলে এই অবস্থা হলো কেন? আল্লাহ তুমি এমন করলা কেন?’

তিনি জানান, আসিমের ছোটবেলা থেকেই পাইলট হওয়ার স্বপ্ন ছিল। সাভার ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করার পর প্রশিক্ষণ শেষে বিমানবাহিনীতে যোগ দেন। প্রশিক্ষণ থেকে শুরু করে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন মেধাবী আসিম। পেশাগত জীবনে পেয়েছেন সোর্ড অব অনারসহ বিভিন্ন সম্মাননা। 

২০১১ সালে আসিম জাওয়াদ চাকরিতে যোগদান করেন। ব্যক্তিগত জীবনে এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক তিনি।

শোকাহত পরিবারকে সান্ত্বনা দিতে আসা মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল বলেন, ‘আসিম জাওয়াদ সম্ভাবনাময় একটি ছেলে ছিল। তার মৃত্যুতে সবাই শোকাহত। এমন মেধাবী সন্তানকে হারিয়ে পরিবারসহ মানিকগঞ্জবাসীর অপূরণীয় ক্ষতি হলো।’

ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবেলায় কতটুকু প্রস্তুত পবিপ্রবি?

বিমান বিধ্বস্ত এক মায়ের আহাজারি 

আপডেট সময় : ০৯:৩৩:২২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মে ২০২৪

একমাত্র সন্তান ছিলেন আসিম জাওয়াদ, কান্না থামছে না মায়ের চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত আসিম জাওয়াদের গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জে। বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তানর মৃত্যুর খবরে পরিবারে চলছে শোকের মাতম। বারবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন  মা নিলুফা খানম।

মানিকগঞ্জ শহরের নগর ভবন সড়কের গোল্ডেন প্লাজায় আসিম জাওয়াদের বাসা। সেখানে থাকেন চিকিৎসক বাবা আমান উল্লাহ ও অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মা নিলুফা আক্তার খানম। আর স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে কর্মস্থল চট্টগ্রামে থাকতেন আসিম।

বিকালে মানিকগঞ্জের আসিম জাওয়াদের বাসায় গিয়ে দেখা যায়, তার মা ছেলের কথা মনে করে বারবার কান্না করে জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন । তাকে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হচ্ছেন স্বজনরা। চোখে পানি ধরে রাখতে পারেননি তারাও।

 

আসিম জাওয়াদের মা নিলুফা খানম আর্তনাদ করে বলছিলেন, ‘আমার ছেলে প্রতিদিন খোঁজ নেয় আমি খেয়েছি কি না, গোসল করেছি কি না। কই আজতো খোঁজ নিচ্ছে না? আজ কেন কথা বলছে না? আমি আমার ছেলের কাছে যাবো। আমাকে ঢাকায় নিয়ে চলো।

কর্ণফুলী নদীতে বিমানবাহিনীর প্রশিক্ষণ  যুদ্ধবিমানের এক পাইলট নিহত। আগুন লাগার পরে বিমানটি জনবিরল এলাকায় নেন পাইলটরা: আইএসপিআর কিছুক্ষণ চুপ থেকে আবার বিলাপ করে বলতে থাকেন, ‘আমার আসিমের কত স্বপ্ন। কত পুরস্কার পেয়েছে। সেতো কারও ক্ষতি করে নাই। তাহলে এই অবস্থা হলো কেন? আল্লাহ তুমি এমন করলা কেন?’

তিনি জানান, আসিমের ছোটবেলা থেকেই পাইলট হওয়ার স্বপ্ন ছিল। সাভার ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করার পর প্রশিক্ষণ শেষে বিমানবাহিনীতে যোগ দেন। প্রশিক্ষণ থেকে শুরু করে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন মেধাবী আসিম। পেশাগত জীবনে পেয়েছেন সোর্ড অব অনারসহ বিভিন্ন সম্মাননা। 

২০১১ সালে আসিম জাওয়াদ চাকরিতে যোগদান করেন। ব্যক্তিগত জীবনে এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক তিনি।

শোকাহত পরিবারকে সান্ত্বনা দিতে আসা মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল বলেন, ‘আসিম জাওয়াদ সম্ভাবনাময় একটি ছেলে ছিল। তার মৃত্যুতে সবাই শোকাহত। এমন মেধাবী সন্তানকে হারিয়ে পরিবারসহ মানিকগঞ্জবাসীর অপূরণীয় ক্ষতি হলো।’